Inqilab Logo

শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সোয়া ৩ কোটি টিকা দেয়া হবে

বুস্টার ডোজের সময় কমেছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ মার্চ, ২০২২, ১২:২৬ এএম

দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার পর বুস্টার ডোজ প্রয়োগের সময় কমানো হয়েছে। এখন থেকে করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার ৪ মাসের মাথায় ১৮ বছর বয়সী যে কোনো ব্যক্তি বুস্টার ডোজ নিতে পারবেন। এর আগে দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার ৬ মাস পর বুস্টার ডোজ দেয়া হতো। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী, এবার তা দুই মাস কমিয়ে ৪ মাসে নিয়ে এসেছে। আজ বৃহস্পতিবার ‘১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন’ উপলক্ষে বুস্টার ডোজের দুই দিনের বিশেষ ক্যাম্পেইন করা হবে। এছাড়া ১৭ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত টিকা প্রয়োগের বিশেষ কার্যক্রমের সোয়া তিন কোটি ডোজ টিকা দেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে টিকার আওতায় চলে আসবে দেশের মোট জনংখ্যার ৭৫ শতাংশ মানুষ।

গতকাল স্বাস্থ্য অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে ২৬ তম জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত এক অবহিতকরণ সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, যারা টিকা নেবে তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, এতদিন দ্বিতীয় ডোজের ছয় মাস পর বুস্টার ডোজ দেয়া হতো। কিন্তু এখন থেকে দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর যাদের চার মাস হয়ে গেছে তারা বুস্টার ডোজ নিতে পারবেন। বুস্টার ডোজের জন্য আগের নিয়মেই মোবাইলে এসএমএস যাবে। কেউ যদি এসএমএস নাও পায় তাহলে সে আসলেও টিকা দেয়া হবে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন বৃহস্পতিবার থেকে বিশেষ কার্যক্রম হাতে নেয়া হচ্ছে বলে জানয়িছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, ১৭ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত আমরা টিকা দেয়ার বিশেষ কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। এই কার্যক্রমের মাধ্যমে ৩ কোটি ২৫ লাখ ডোজ দেয়া হবে। এরমধ্যে দুই কোটি ডোজ দেয়া হবে দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে। বাকীটা প্রথম এবং বুস্টার ডোজ হিসেবে দেয়া হবে।
টিকা প্রয়োগে লাভ হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সব চেয়ে লাভ হয়েছে মৃত্যুর হার শুণ্যের কোঠায় নেমে এসেছে। টিকা দিতে পেরেছি বিধায় দেশে স্কুল কলেজ খুলেছে। স্কুলের ছেলে-মেয়েকে আমরা দেড় কোটি ডোজ টিকা দিয়েছি। টিকা দেয়ার কারণে মৃত্যু হার কমায় দেশের অর্থনীতিও সচল রয়েছে বলে উল্লেখ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। বর্তমানে আট কোটির উপর টিকা মজুদ আছে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক প্রফেসর ডা. এবিএম খুরশীদ আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, এ পর্যন্ত ১২ কোটির বেশি মানুষ প্রথম ডোজ, ৯ কোটি ৪ লাখ দ্বিতীয় ডোজ এবং বুস্টার ডোজ পেয়েছে প্রায় ৫০ লাখ মানুষ। সব মিলেয়ে ২২ কোটির বেশি হয়েছে। এই সোয়া তিন কোটি দেয়া হলে ২৫ কোটি ক্রস করবে। তাহলে জনসংখ্যার ৭৫ শতাংশ এবং মোট জনসংখ্যা হিসেবে লক্ষ্যমাত্রার ৯৫ শতাংশের দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়ে যাবে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিার্থীদের টিকার আওতায় আনা হবে কি না জানতে চাইলে জাহিদ মালেক বলেন, এ বিষয়ে আমাদের সব প্রস্তুতি আছে। আমরা অপেক্ষায় আছি বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনার।
দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার পর বুস্টার ডোজ প্রয়োগের মাঝের সময়সীমা কমিয়ে ৪ মাস করার বিষয়টি সারাদেশের সংশ্লিষ্টদেরও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সেই হিসেবে মাঠ পর্যায়েও কাজ শুরু হয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা শনাক্তের প্রায় ১১ মাস পর টিকা কার্যক্রম শুরু হয় ২০২১ সালের ২৭ জানুয়ারি। সারাদেশে এই কার্যক্রম শুরু হয় ৮ ফেব্রুয়ারি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

১৬ জানুয়ারি, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ