Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪

নাটোরে লালন একাডেমীর জমি নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে, বেকায়দায় লালন ভক্তরা

নাটোর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০২২, ৬:১৬ পিএম

নাটোরে লালন একাডেমীর জমি নিয়ে দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করেছে। এতে করে বেকায়দায় পড়েছে লালন ভক্তরা। পূর্বে জেলায় কোন লালন একাডেমীর নিজস্ব স্থায়ী কোন অফিস বা জমি ছিলনা। তাই লালন সঙ্গীত ও ফকির লালনকে নিয়ে গবেষণা, লালন চর্চা আর লালন ফকিরের জীবনাদর্শকে মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ নিয়ে নাটোরে প্রতিষ্ঠা করা হয় জেলা লালন একাডেমী। সদর উপজেলার কাফুরিয়া ইউনিয়নের জালালাবাদ গ্রামের শরিফ উদ্দিন জেলা লালন একাডেমীর অনুকূলে ২০০৯ সালের ৩ ডিসেম্বর ৩৯ শতাংশ পরিমাণ একটি জমি জেলা লালন একাডেমীকে দান করেন।

সাবেক জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন ওই জমিতে লালন একাডেমীর ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। এরপর থেকে লালনের জন্ম-মৃত্যু বার্ষিকীতে জালালাবাদ গ্রামে জাঁক জমক অনুষ্ঠান ছাড়াও প্রতি সপ্তাহে একদিন করে গুরুবার পালন করা হয়। ওই সকল অনুষ্ঠানে জেলার বাইরে থেকেও লালন ভক্তরা-অনুরাগী ও শিল্পীরা এখানে সমবেত হন। জেলা প্রশাসনের সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতা ও তত্বাবধানে পরিচালিত হয় লালন একাডেমীর কার্যক্রম। একাডেমীতে দলে দলে যোগ হতে থাকে লালনশিল্পী আর সাধুরা। সাবেক জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন নাটোরে থাকাকালে লালন একাডেমী পরিচালনা পর্ষদের প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন।
কিন্তু স¤প্রতি একাডেমীর জমির মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্বে স্থবির হয়ে পড়েছে একাডেমীর সকল কার্যক্রম। স্থানীয় অধিবাসী ও শিল্পীদের দাবী সমস্যার সমাধান না হওয়ায় বন্ধ রয়েছে লালন চর্চাও।

নাটোর জেলা লালন একাডেমীর সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ খাঁন খোকা জানান, ওই বিবাদমান গ্রুপ কাউকে মানতে চায়না। তারা সকলকেই অবমাননা করে। মাঝে মাঝে এসে তারা হট্রগোল করে। এসব কারণে তিনিসহ লালনশিল্পীরা ওই একাডেমীতে যাওয়া বন্ধ করেছেন। এতে পুরাতন শিল্পীদের সঙ্গীতচর্চা বন্ধ হওয়ার পাশাপাশি নতুন শিল্পী তৈরীও বন্ধ রয়েছে যা সংস্কৃতি অঙ্গনের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। এ ক্ষতি পোষানোর পাশাপাশি তাদের লালন চর্চায় ওই একাডেমীতে সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টিতে সংশ্লিষ্টদের পদক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

লালন একাডেমীর বর্তমান কমিটির সাধারণ স¤পাদক নয়ন হালদার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এখন প্রতি সন্ধ্যায় ওই একাডেমীতে সঙ্গীত চর্চার বদলে ওই জায়গা হয়েছে মাদকসেবীদের আড্ডাস্থল। এতে বেকায়দায় পড়েছেন তার মতো লালন শিল্পীরা।

এব্যাপারে জানতে চাইলে জেলার বাগাতিপাড়া উপজেলার বজরাপুর এলাকার আব্দুল করিমের ছেলে কামরুল ইসলাম ওই জমির মালিক দাবী করে বলেন,ওই জমিটি মূলত তার নানা হযরত আলী সরকারের। তার একমাত্র মামা শরিফ ছাড়াও মা ছুরাইয়া ও খালা ছুফিয়া, ছইজান এবং সামিয়ারা তার নানার সন্তান। নানা মারা যাওয়ার আগে কিছু জমি ওই মামাকে রেজিষ্ট্রি করে দেন। নানা মারা যাওয়ার পর মামা, মা ও খালাদের মধ্যে এজমালী স¤পত্তি স্থানীয় ও পারিবারিকভাবে আপোষ বন্টন হয়। এতে বর্তমানে লালন একাডেমীর জায়গাটি তার মা পান। এরপর ওই জমিটি তার মা তাকে রেজিষ্ট্রি করে দেন। এরপর জমিটির খাজনা খারিজ করে ভোগদখলও করছিলেন তিনি। অপরদিকে তার মামা শরিফ তার নিজ নামের সমস্ত স¤পত্তি স্ত্রী ও ছেলেকে রেজিষ্ট্রি করে দেয়। এরপর তার নামে রেজিষ্ট্রি ও খারিজ হওয়া ওই ২৬ শতক জমিও লালন একাডেমীকে রেজিষ্ট্রি করে দিয়ে তাকে বেদখল করা হয়। তিনি ওই জমিটি দখল পেতে ইতোমধ্যেই জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে লালন একাডেমীর জমিদাতা শরিফ দাবী করেন, তার বাবা বেঁচে থাকতে তাকে ১০-১২ বিঘা এবং তার দুই ছেলেকে ১০ বিঘা জায়গা রেজিষ্ট্রি করে দেন। বাবার মৃত্যুর পর এজমালি জমি পারিবারিক আপোষ মিমাংসায় মায়ের অংশ দেয়া ছাড়াও সকল বোনকে ৪ বিঘা করে আর তাকে হিসেব মতো ৮ বিঘা জায়গা দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে ওই ২৬ শতক জমি তার অংশে রয়েছে দাবী করে তিনি আরো বলেন, সাবেক ডিসি শাহিনা খাতুনের আহবানে তিনি ওই জমি ২০০৯ সালে লালন একাডেমীর নামে ওয়াকফ করে দেন। এরপর সেখানে কাজ শুরু হলে তার বোনেরা বাধা দেয়। বিষয়টি জানতে পেরে ২০১৭ সালে ডিসি শাহিনা খাতুন তার তিন বোন এবং কামরুলের বাবা করিমকে ডেকে তাদের কাছ থেকে লিখিত নেন। কিন্তু করিম ও তার ছেলে কামরুল এখন পর্যন্তও তাদের জমি দাবী করেই যাচ্ছেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, তার বাবার জমি বন্টননামার জন্য তিনি আদালতে মামলা করেছেন। মামলাটি চলমান আছে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বলেন,কামরুল ইসলামের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করতে সদর উপজেলা নির্বাহীকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর এব্যাপারে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ নেয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নাটোর


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ