Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

বর্ধিত প্যাকেজ ভ্যাট দোকান মালিকদের আন্দোলনের হুমকি

প্রকাশের সময় : ১০ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : নভেম্বরের মধ্যে বর্ধিত প্যাকেজ ভ্যাট বাতিল করার ঘোষণা না দিলে আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। গতকাল বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি এস এ কাদের কিরণ এ সব কথা বলেন।
কিরণ বলেন, প্যাকেজ ভ্যাটের সমস্যা নিয়ে আমাদের পক্ষে এফবিসিসিআই সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। আমরা আলোচনার ফলাফলের জন্য এ মাসটি (নভেম্বর পর্যন্ত) অপেক্ষা করবো। এর মধ্যে আমাদের দাবি মানা না হলে আমাদের সামনে সহজ পথ খোলা আছে। আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করবো। দোকানে তালা মেরে ঘরে বসে থাকবো। তিনি আরো বলেন, আমাদের সঙ্গে কাঁচামালের দোকান মালিক সমিতিও আছে। দু’দিন দোকান ও কাঁচামালের বাজার বন্ধ রাখলেই কাজ হয়ে যাবে। আমাদের রাস্তায় নেমে ভাংচুর, জ্বালাও-পোড়াও করা লাগবে না।
মাঝারি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য ২০১৬-১৭ অর্থ-বছরে প্যাকেজ ভ্যাট দ্বিগুণ করা হয়েছে জানিয়ে কিরণ বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে ১৪ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৮ হাজার টাকা করা হয়েছে। আমাদের পক্ষে এত ভ্যাট দেয়া সম্ভব না। আমরা এ বছর ২০ শতাংশ পর্যন্ত বর্ধিত হারে প্যাকেজ ভ্যাট দিতে পারব। এ বিষয়ে আমরা এফবিসিসিআই’র মাধ্যে একটি প্রস্তাবও দিয়েছি। তাতে বলা হয়েছে, এ বছর আমরা ২০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে ভ্যাট দিতে রাজি আছি। আর পরবর্তীতে প্রতি বছর প্যাকেজ ভ্যাট ১০ শতাংশ হারে বাড়ানো যাবে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের সকল দোকানে ইলেক্ট্রনিক ক্যাশ রেজিস্ট্রার (ইসিআর) বসানো সম্ভব না। তাই আমরা প্রস্তাব দিয়েছি প্রথমে বড় বড় দোকানগুলোতে ইসিআর বসানো হোক। পরবর্তীতে মাঝারি দোকানগুলোতে বসানোর উদ্যোগ নিতে হবে।
সমিতিটির মহাসচিব মো. শাহ আলম খন্দকার সংবাদ সম্মেলনে দোকান মালিকদের পক্ষ থেকে তিনটি দাবি তুলে ধরে তিনি বলেন, গরিবের জন্য তৈরি রুটি, বিস্কুট ও প্লাস্টিকের হাওয়াই চপ্পল ভ্যাটের আওতামুক্ত রাখতে হবে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের ভ্যাট হারের সঙ্গে ২০ শতাংশ হারে বর্ধিত করে প্যাকেট ভ্যাটের হার পুনঃনির্ধারিত করতে হবে এবং স্থায়ীভাবে প্যাকেজ ভ্যাট, ভ্যাট আইন ২০১২ তে সংযোজন করতে হবে। আমদানি পর্যায়ে এটিভি (অগ্রিম ভ্যাট) ৪ শতাংশ পরিশোধের পর আমদানিকারকরা কোনো দাবি না করলে অথবা এটিকে যদি চূড়ান্ত বিবেচনা করা হয় সেক্ষেত্রে আমদানিকারকদের কাছ থেকে পুনরায় ভ্যাট আদায়ের নামে হয়রানি করা যাবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন