Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯, ০১ শ্রাবণ ১৪২৬, ১২ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

এসএ গেমসের উদ্বোধন করবেন নরেন্দ্র মোদী

প্রকাশের সময় : ১৯ জানুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস রিপোর্টার : গৌহাটি ও শিলং সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসের উদ্বোধন করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ তথ্য দিয়েছেন ভারতের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কিরণ শামি গুপ্তা।
এসএ গেমসের জন্য সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছে ভারত। আর এটা জানাতেই গেমসে অংশগ্রহণকারী দেশগুলো প্রদক্ষিণ করছেন ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থার কর্মকর্তারা। এরই অংশ হিসেবে রোববার ঢাকায় এসে গতকাল বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) কর্মকর্তাদের সঙ্গে সভা করেন ভারতের তিন কর্মকর্তা। সভা শেষে কিরণ শামি গুপ্তা বলেন, ‘১২তম এসএ গেমস আয়োজনের জন্য আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত। সব কাজই প্রায় চূড়ান্ত। ৫ ফেব্রæয়ারি গৌহাটিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গেমসের শুভ উদ্বোধন করবেন।’ তবে গেমসের মশাল প্রজ্জ্বলন করবেন কে সেটা এখনো নিশ্চিত হয়নি। এ প্রসঙ্গে গুপ্তা বলেন, ‘অবশ্যই বড় মাপের ক্রীড়াবিদ দিয়ে মশাল জ্বালানোর পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। যদিও সেই তারকা অ্যাথলেটকে এখনো মনোনীত করা হয়নি।’ আয়োজকদের ধারণা করা হচ্ছে আট দেশের চার হাজারের বেশি অ্যাথলেট অংশ নেবেন এই গেমসে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ অ্যাথলেট থাকবে ভারতেরই (৫৫০)। অ্যাথলেট, কর্মকর্তা, মিডিয়া মিলিয়ে গেমস উপলক্ষ্যে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষের সমাগম ঘটবে আসাম ও মেঘালয় রাজ্যে। আবাসন, যোগাযোগ ব্যবস্থা ছাড়াও নিরাপত্তার বিষয়টিও অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন গুপ্তা।
এসএ গেমসের ১২তম আসর বসার কথা ছিল ২০১৩ সালের প্রথম দিকে। ভারতের অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের আভ্যন্তরীণ ঝামেলার কারণে দুই বছরের বেশি সময় পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই গেমস। অন্য রাজ্যের তুলনায় খানিকটা পিছিয়ে আসাম ও মেঘালয়। তবে শিলং ও গৌহাটিতে কোনো সমস্যা হবে না বলে মনে করছেন ভারত অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (আইওসি) যুগ্ম সম্পাদক এসএম বালি। তিনি বলেন, ‘শিলং ও গৌহাটি এসএ গেমস সফল করা ভারতের অলিম্পিক সংস্থার জন্য একটি চ্যালেঞ্জ। আশা করি আমরা এই চ্যালেঞ্জ সফল ভাবেই মোকাবেলা করতে পারবো। গেমস আয়োজনের জন্য আমাদের সরকার যথেষ্ট সহযোগিতা করছেন।’ এসএ গেমস উপলক্ষ্যে বাজেট ধরা হয়েছে দু’শ কোটি টাকা। গত সপ্তাহে দু’রাজ্য আসাম ও মেঘালয়ে গেমস উপলক্ষ্যে প্রতিটি দেশের শেফ দ্য মিশনদের নিয়ে সভা হয়েছে। ভারত ঘুরে এসে সন্তুষ্টিই প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের শেফ দ্য মিশন ও বিওএ উপমহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু। গতকাল তিনি বলেন, ‘প্রতিটি ভেন্যুতে গিয়েছি আমরা। দেখেছি সব ভেন্যুই প্রস্তুত। হোটেল, যাতায়াত, নিরাপত্তাসহ সকল বিষয় আয়োজকরা পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। আমরা আয়োজকদের পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনায় সন্তুষ্ট।’ তার সফর সঙ্গী বিওএ’র ট্রনিং এন্ড ডেভলপমেন্ট কমিটির সদস্য সচিব গ্রæপ ক্যাপ্টেন (অব.) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘মহিলা ফুটবল হবে টার্ফে। পুরুষ ফুটবল ঘাসের মাঠে। সাঁতারের পানি হবে গরম। টেনিস হবে হার্ড কোর্টে। হকির টার্ফের রং নীল।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন