Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প সরকার বাতিল করবে

প্রকাশের সময় : ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

আশা সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির
স্টাফ রিপোর্টার : দেশের স্বার্থ ও সুন্দরবন বিরোধী সব অপপ্রচার বন্ধ করে জনদাবি মেনে নিয়ে সুন্দরবনকে বাঁচানোর স্বার্থে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রকল্প সরকার বাতিল করবে বলে মনে করছে সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি। গতকাল শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সুলতানা কামাল এ মনোভাব ব্যক্ত করেন। রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সর্বশেষ অবস্থা ও সরকারি অবস্থান জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক বলেন, রামপাল কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে প্রচারিত সরকারি বিজ্ঞাপন বিভ্রান্তিকর ও প্রতারণামূলক। এটা বন্ধ করতে হবে। মিথ্যা তথ্যের ওপর এই বিজ্ঞাপন নির্মিত হয়েছে। এটা অবশ্যই বন্ধ করা উচিত।
লিখিত বক্তব্যে সুলতানা কামাল বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র সার্বিক বিচারে বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এটি কোনো যুক্তিতেই সারা বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিসরে কোনো জ্ঞান-বুদ্ধিসম্পন্ন সচেতন মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য নয় এবং কোনো দিনই তা গ্রহণযোগ্য হবে না। যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ ও বিজ্ঞানভিত্তিক বিশ্লেষণের মাধ্যমেই রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিরোধিতা করা হচ্ছে। সুন্দরবনকে বাংলাদেশের ‘প্রাকৃতিক বর্ম’ উল্লেখ করে সুলতানা কামাল বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় এই বন তার বুক পেতে দিয়ে আমাদের লাখ লাখ মানুষ, প্রাণ ও সম্পদকে রক্ষার মাধ্যমে তা প্রমাণ করেছে। অথচ সেই সুন্দরবনকে সরকার কয়লা বিদ্যুকেন্দ্র নির্মাণের মাধ্যমে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয়ার মতো আত্মঘাতী ও স্ববিরোধী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আসলে সুন্দরবন প্রশ্নে বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান আর জলবায়ু প্রশ্নে তার অবস্থান ও আকাক্সক্ষা পরস্পরবিরোধী। কারণ, জলবায়ু সঙ্কট মোকাবিলা করতে হলে সুন্দরবনকে অক্ষত রাখা আমাদের প্রধান ও পরম দায়িত্ব।
সংবাদ সম্মেলনে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, রামপাল নিয়ে ইউনেস্কোর যে প্রতিবেদন, তা জাতিসংঘের মহাসচিব অনুমোদন করেছেন। তাদের প্রতিবেদন যে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রর বিরুদ্ধে, সেটা প্রমাণিত। এর বৈজ্ঞানিক ভিত্তি আছেই বলে জাতিসংঘ এটা করেছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন মানবাধিকারকর্মী খুশি কবির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম এম আকাশ, অধ্যাপক বদরুল ইমাম, সিপিবির নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স, সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্যসচিব আবদুল মতিন প্রমুখ।



 

Show all comments
  • MD Abdur Rashid ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:২২ পিএম says : 0
    বিদ্যুৎ চাই কিন্তু রামপাল থেকে নয়।দেশে এটি স্থাপনের জন্য অনেক জায়গা আছে,,,সেখানে এটি স্থাপন করা হোক।।
    Total Reply(0) Reply
  • Sohanur Rahman Dipu ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:২৩ পিএম says : 0
    অবশ্যই বন্ধ করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply
  • Tasnim Antu ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:২৫ পিএম says : 0
    বিদ্যূৎ না সুন্দরবন বাচাতে চাই
    Total Reply(0) Reply
  • Farjana ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:২৬ পিএম says : 0
    এটা অবশ্যই বন্ধ করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply
  • Rifat ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:২৫ পিএম says : 0
    বন্ধ হবে ইনশাল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Shahzahan ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:২৮ পিএম says : 0
    Stop rampal
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ মুন্নাফ হোসেন ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ৪:০৩ পিএম says : 0
    এটা অবশ্যই বন্ধ করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ