Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

তদন্ত রিপোর্ট যেন হিমাগারে ছাতকে দু’জনের ডিলারশিপ বাতিল হলেও মামলা হয়নি

প্রকাশের সময় : ১৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ছাতক (সুনামগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জের ছাতকে সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১০ টাকা কেজির চাল বিক্রিতে জাল-জালিয়াতি ও অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে দু’জনের ডিলারশিপ বাতিল করা হলেও রহস্যজনক কারণে তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা করা হয়নি। এমনকি দীর্ঘ এক মাসেও গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পেশ করেনি। সম্প্রতি নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের তালিকা সংশোধন করে নতুন তালিকা অনুমোদন করা হয়েছে।
এ সময় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহাব উদ্দিনসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউপির ফেয়ার প্রাইজ ডিলার হিসেবে দড়ারপার বাজারে চাল বিক্রি করবে আজিজুর রহমান ও জাতুয়াবাজারে আব্দুল কাদির। গত অক্টোবর মাসে প্রথম কিস্তির চাল উত্তোলনের পর বিক্রির ক্ষেত্রে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে তাদের দু’জনের ডিলারশিপ বাতিল করা হয়। কিন্তু সরকারদলীয় সাইনবোর্ডের কারণে তাদের বিরুদ্ধে এসব অনিয়ম-দুর্নীতির কোনো আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
হয়নি তাদের বিরুদ্ধে কোনো বিভাগীয় মামলা। তবে এসব অনিয়মে দেশের অন্যান্য এলাকায় ডিলারদের বিরুদ্ধে মামলা হলেও দু’জনের উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিস থেকে কোনো মামলা না করায় জনমনে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকে মনে করছেন, ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি প্রমাণিত হবার পরও এর সাথে জড়িত দুই ডিলারই সরকারি দলের নেতা থাকায় প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। শুধুমাত্র দায়সারাভাবেই তাদের ডিলারশিপ বাতিল করা হয়েছে। যা কি না সরকারের এবং খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষার শামিল। জানা গেছে, ১৩ ইউনিয়নের ২৬ জন জন ফেয়ার প্রাইজ ডিলারই হচ্ছেন আওয়ামী লীগ ঘরানার। ফলে দলীয় প্রভাবে ১০ টাকা কেজির চাল বিক্রিতে অনিয়ম-দুর্নীতির আশঙ্কা করছেন অভিজ্ঞ মহল।
উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহাব উদ্দিন জানান, বাতিলকৃত ডিলারদের বিরুদ্ধে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী সমরেন্দ্র দাস তালুকদারকে আহ্বায়ক, পরিসংখ্যান অফিসার মনিরুজ্জামান খান ও সমবায় অফিসার বিজিত রঞ্জন করকে সদস্য করে গঠিত কমিটিকে যত দ্রুত সম্ভব তদন্ত রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়। তিনি বলেন, এখানে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত ডিলার আব্দুল খালিক ও আনোয়ার হোসেন। তবে আনোয়ারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
তদন্ত কমিটির প্রধান সমরেন্দ্র দাস তালুকদার ১৩ নভেম্বর ঘটনাস্থলে গিয়ে ডিলারদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে রিপোর্ট দেয়া হবে বলে জানান। ছাতক উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফুজ্জআমান জানান, তদন্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে অবশ্যই জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তদন্ত রিপোর্ট যেন হিমাগারে ছাতকে দু’জনের ডিলারশিপ বাতিল হলেও মামলা হয়নি
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ