Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, ০৭ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

র‍্যাবের কাছে লোমহর্ষক বর্ণনা দিল কক্সবাজারে আটক মুরশেদ হত্যার ৫ আসামী

কক্সবাজার ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৫ এপ্রিল, ২০২২, ৪:১০ পিএম

র‍্যাব এর হাতে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পিএমখালীর প্রতিবাদী যুবক মোর্শেদকে নির্মমভাবে হত্যার লোমহর্ষক ঘটনার বিবরণ দিলেন খুনের ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী এবং সরাসরি জড়িত ৫ আসামি।

খুনিদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব-৭ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, একটি সেচ প্রকল্প নিয়ে বিরোধের জের ধরে মোর্শেদকে শায়েস্তা করতে গত ৭ এপ্রিল চেরাংঘাট বাজারে দিদারের সিমেন্টের দোকানে এ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী মাহমুদুল হক মেম্বার, তার ভাই মোহাম্মদ আলী এবং মেম্বারের ৩ ছেলেসহ সেদিনই ঘটনা করার সিদ্ধান্ত হয়।

সেই পরিকল্পনা মতে অন্যান্যদের সঙ্গে নিয়ে বাজারে প্রকাশ্যে মোর্শেদকে নির্মমভাবে খুন করা হয়।

সেসময় ঘটনাস্থলে সাধারণ মানুষ যেনো তাদের প্রতিহত করতে এগিয়ে না আসে সেজন্য আতংক ছড়াতেই মূলত ’উপরের নির্দেশেই মারা হচ্ছে' বলেই মিথ্যে কথা প্রচার করে খুনিরা।

এঘনাটি শুধুমাত্র সেচ প্রকল্পকে কেন্দ্র করে ঘটেছে, এ ঘটনাটিতে কোনো ধরনের রাজনৈতিক দল অথবা রাজনৈতিক দলের নেতাদের সংশ্লিষ্টতা নেই বলেও আটক ব্যক্তিদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জানায় র‍্যাব।

তবে ঘটনাস্থলে খুনিরা উপস্থিত জনতাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করার জন্য আগে ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে এবং 'উপরের নির্দেশে মারা হচ্ছে' এমন কথা বলতে থাকে।

খুনিদের কাছে শত আকুতি জানিয়েও ইফতার পর্যন্ত বাঁচিয়ে রাখার আকুতি করেও রক্ষা পায়নি কক্সবাজার অঞ্চলের প্রখ্যাত
মোর্শেদ বলী।

বাজারে উপস্থিত লোকজন মোর্শেদকে উদ্ধার করার চেষ্ঠা করলে আসামী মোহাম্মদ আলী আগ্নেয়াস্ত্র বের করে ১৫/২০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষন করে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্ঠি করে। উপস্থিত লোকজন ঘটনার ভিডিও করতে থাকলে আসামীরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়। রোজাদার মোরশেদ আলী ইফতার পর্যন্ত বাঁচার আকুতি জানালেও আসামীরা তাকে বাঁচতে দেয়নি।

তাদের ভাষ্যমত আসামী মাহমুদুল হক ছিল এই নারকীয় হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী। মাহমুদুল তার পরিবারের প্রধান হয়ে সকলের সাথে পরিকল্পনা করে এই নারকীয় হত্যাকান্ড ঘটায় যা একাধিক মিডিয়ায় প্রচারিত হয়েছে। আসামী মোহাম্মদ আলী মোহাম্মদ টাকা পয়সা নিয়ে সম্প্রতি সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে তাদের যাবতীয় অপরাধ কর্মকান্ড নির্ভিগ্নে পরিচালনা করার লক্ষ্যে অন্যায়ের প্রতিবাদকারী মোরশেদ আলীকে হত্যার জন্য পরিকল্পনায় যুক্ত হয়।
অন্যান্য অসামীদের নিয়ে পূর্ব পরিকল্পনামতে প্রকাশ্য দিবালোকে নৃশংসভাবে এই হত্যাকান্ড ঘটায়। এই নারকীয় হত্যাকান্ডের নেপথ্যে মদদদাতা ছিলেন মাহমুদুল হকের ভাই নুরুল হক।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীদের মোবাইলে ধারনকৃত ভিডিও ভাইরাল হলে এবং একাধিক মিডিয়াতে আসামী মাহমুদুল সহ হত্যাকারীদের অপকর্মের তথ্য প্রকাশিত হলে তা ভিকটিমের এলাকা তথা সারাদেশে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। ঘটনার পর হতে অসামীরা আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপন করে। চাঞ্চল্যকর ও লোম হর্ষক এই হত্যাকান্ডের আসামীদের গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব-৭ চট্টগ্রাম বিষয়টি চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহন করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে ব্যাপক গোয়েন্দা নজরদারী ও ছায়াতদন্ত শুরু করে। নজরদারীর এক পর্যায়ে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম জানতে পারে যে, উক্ত মামলার অন্যতম প্রধান ০৫ জন আসামী আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে গ্রেফতার এড়াতে কক্সবাজার জেলার টেকনাফ এলাকায় আত্মগোপন করে রয়েছে।

উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৫ এপ্রিল ২০২২ ইং তারিখ আনুমানিক ০৪ ঘটিকায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর একটি আভিযানিক দল বর্ণিত এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ঘটনার সাথে সরাসরি জড়িত এজাহার নামীয় ০২ নং আসামী মোহাম্মদ আলী প্রকাশ মোহাম্মদ, ০৪ নং আসামী মোহাম্মদুল হক (৫২), উভয় পিতা-মৃত মনির আহমদ ফকির, ১৮ নং আসামী আবদুল্লাহ(৩০), ১৯ নং আসামী আব্দুল আজিজ(২৮), উভয় পিতা-মাহমুদুল হক, সন্ধিদ্ধ আসামী নুরুল হক (৫৩), পিতা-মৃত মনির আহমদ ফকির, সর্ব সাং- মাইজ পাড়া, ০৯ নং ওয়ার্ড, পিএমখালী ইউপি,থানা ও জেলা কক্সবাজারদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামীরা অপকটে স্বীকার করে যে, ১০ নং সেচ স্কিম পরিচালনা সংক্রান্ত বিষয়ে এলাকার প্রতিবাদী যুবক মোরশেদ আলী তাদের পথের কাটা ছিল। মোরশেদ আলী আসামীদের সকল প্রকার অন্যায়ের প্রতিবাদ করার কারনে এলাকায় আসামীদের প্রকৃত মুখোশ খুলে যাওয়ায়। মোরশেদ এর অন্যায়ের প্রতিবাদের কারনে আসামীদের আরো ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশংকায় গ্রেফতারকৃত আসামীসহ এজাহার নামীয় অন্যান্য আসামীরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ওই দিন
এই নৃশংস ও নির্মম হত্যাকান্ড ঘটায়। মামলার এজাহারে ২৬ জন সহ অজ্ঞাত নামা ৮/১০ জনের নাম উল্লেখ থাকলেও স্থানীয় তদন্তে মাহমুদুল হকের পরিবারের সদস্যরাই হত্যাকান্ডের মূল ছিল মর্মে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এ ঘটনায় জড়িত সকল খুনিকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন র‍্যাব-৭।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গ্রেফতার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ