Inqilab Logo

সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ১৬ এপ্রিল, ২০২২, ১২:০৪ এএম

প্রশ্ন : চার রাকাত বিশিষ্ট ফরজ নামাজে আমি যদি প্রথম তিন রাকাত না পাই তা হলে, এই তিন রাকাত পড়ার সময় সূরা ফাতিহার সাথে অন্য সূরা কিভাবে মিলাব?
উত্তর : আপনি যে রাকাতটি পেয়েছেন, সেটিকে প্রথম রাকাত ভেবে বাকি নামাজ শেষ করুন। তা হলে প্রথম দু’টিতে ফাতিহার পর সূরা-কেরাত মিলাবেন। শেষ রাকাতটি শুধু ফাতিহা পড়ে নামাজ শেষ করবেন।
প্রশ্ন : পাশ্চাত্য বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে আমেরিকায় দেখা যায় নারীরা তাদের বুকের দুধ বিক্রি করে। ইসলামের দৃষ্টিতে কি এটা জায়েজ?
উত্তর : ইসলামে মায়ের দুধের প্রথম হকদার তার নিজের সন্তান। অবশ্য মা তার দুধ পান করাতে বাধ্য নয়। ইচ্ছা করলে সে সন্তানকে দুধ পান করানোর বিনিময়ে স্বামীর কাছ থেকে কিছু দাবী করতে পারে। যদি মা তার শিশুকে দুধ না দেয়, তাহলে অন্য দুধ মা রেখে স্বামী তার সন্তানকে দুধ পান করাবে। আমাদের সমাজে এ নীতির উর্দ্ধে থেকে মায়েরা স্নেহকে প্রাধান্য দিয়ে দুধ পান করিয়ে থাকেন। এটি তার নিজেরও তৃপ্তি, সন্তানের প্রতি মায়া এবং পাশাপাশি স্বামীর প্রতি ভালোবাসাপূর্ণ অনুগ্রহ বা এহসান। এখানে খুব লক্ষ্য রাখার একটি বিষয় এই যে, বংশের দ্বারা যেমন আত্মীয়তা সাব্যস্ত হয়, দুধ পানের দ্বারাও এমনই এক ধরণের আত্মীয়তা সাব্যস্ত হয়। যেমন, যে শিশু কোনো নারীর দুধ পান করবে, তাকে তার দুধবাবা কোনোদিনই বিয়ে করতে পারবে না। কারণ, সে ঔরসজাত কন্যার মতই দুধকন্যা। এ লোকটির ছেলেরাও এ মেয়েটিকে বিয়ে করতে পারবে না, কেননা সে মেয়েটি তাদের দুধবোন। এদের পরস্পরের মধ্যে পর্দার হুকুমও নেই। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, বুকের দুধ বিক্রি করা যাবে কি না? এখানে মাসআলাটি দু’রকম। ১. বিক্রি করা যাবে বা বিনিময় নিয়ে কোনো শিশুকে দুধ খাওয়ানো যাবে। পাশাপাশি তার সাথে হয়ে যাওয়া আত্মীয়তা চিরদিন মেইনটেইন করতে হবে। বিয়ে শাদীর ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। ২. যেখানে সেখানে দুধ বিক্রি করা বা মিল্ক ব্যাংকে বেচে দেওয়া শরীয়তে জায়েজ নয়। কেননা, এখানে কার কার দুধ মিশ্রিত হচ্ছে, কোন কোন শিশু তা খাচ্ছে এসব জানা বোঝা বা মেইনটেইন করা সম্ভব নয়। যাতে শরীয়তের লঙ্ঘনের শতভাগ আশংকা থেকে যায়। তাছাড়া বড় একটি সমস্যা এই যে, বহু পুরুষের দ্বারা উৎপন্ন বহু নারীর মিশ্রিত দুধ মনস্তাত্ত্বিকভাবে শিশুটিকে বিভ্রান্ত মানসিতার শিশুরূপে গড়ে তুলবে। এমন প্রজন্ম সুস্থ হতে পারে না। এ সমস্যাটি ইসলামও চায় না। সুতরাং দ্বিতীয় পর্যায়ের মাসআলাটি জায়েজ হবে না।
প্রশ্ন : হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃষ্টান-এদের মধ্যে কোন জাতি পৃথিবীতে সবার আগে এসেছে?
উত্তর : মুসলিম জাতির সৃষ্টি সবার আগে হয়েছে। মানব জাতির প্রথম পুরুষ এবং আদি পিতা ছিলেন মুলমান। তিনি আল্লাহর নবীও ছিলেন। পৃথিবীর সর্বপ্রাচীন ধর্ম হলো ইসলাম। এরপর বিভিন্ন সময়ে ইহুদী, খৃষ্টান, হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন ইত্যাদি ধর্মমতের সৃষ্টি হয়েছে। মানবজাতির প্রথম ও প্রকৃতিগত ধর্ম ইসলামেরই পূর্ণাঙ্গ ও সর্বশেষ স্থায়ী রূপ হযরত মুহাম্মদ সা. এর আনীত ইসলাম।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ