Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ০৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মুহাররম ১৪৪৪

রাশিয়ার সাথে ইউক্রেনের সমঝোতায় আসা উচিত

কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ম্যাগাজিনকে সাক্ষাৎকারে নোয়াম চমস্কি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ এপ্রিল, ২০২২, ১২:০০ এএম

ইউক্রেনে অভিযান চালানোর পরও আক্রান্ত দেশটিকেই রাশিয়ার সঙ্গে সমঝোতায় আসা উচিত বলে মনে করেন বিশ্বখ্যাত মার্কিন দার্শনিক ও ভাষাতত্ত্ববিদ অধ্যাপক নোয়াম চমস্কি। গতকাল সোমবার জেরুজালেম পোস্টের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। গত ১৩ এপ্রিল কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ম্যাগাজিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে অধ্যাপক চমস্কি এসব কথা বলেন।

সবাইকে বৈশ্বিক বাস্তবতার দিকে নজর দিতে হবে জানিয়ে নোয়াম চমস্কি বলেন, পরমাণুযুদ্ধের ‘ক্রসফায়ারে’ পড়ে ‘নিশ্চিহ্ন’ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে রাশিয়ার দাবির প্রতি ইউক্রেনকে অবশ্যই নমনীয় মনোভাব দেখাতে হবে।
বিষয়টি ব্যাখ্যা করে অধ্যাপক চমস্কি বলেন, আমরা এখন যে নীতি মেনে চলছি তা হলো, শেষ ইউক্রেনীয় বেঁচে থাকা পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়া। এ নীতি মেনে চললে পরমাণুযুদ্ধের আশঙ্কা থাকে। এছাড়া আরেকটি বিকল্প হচ্ছে কূটনৈতিক সমাধান। এ সমাধান সবার জন্য সুখকর কিছু হবে না। কারণ এটি মূলত পুতিন ও তার ঘনিষ্ঠদের জন্য এ যুদ্ধ থেকে পালানোর পথ তৈরি করে দেবে।

তিনি বলেন, আমরা জানি, মূল বিষয়টি হচ্ছে ইউক্রেনের ‘নিরপেক্ষ অবস্থান’ নিশ্চিত করা। সঙ্গে ডনবাস অঞ্চলের বাস্তবতা, অর্থাৎ ইউক্রেনের ফেডারেল কাঠামোর মধ্যে থেকেই সে অঞ্চলে ব্যাপক পরিসরে স্বায়ত্তশাসনের প্রতিষ্ঠা এবং আমরা মানি বা না মানি, এটা বুঝে নিতে হবে যে, ক্রিমিয়া নিয়ে কোনো ধরনের দাবিদাওয়া আলোচনার টেবিলে নেই।
চমস্কি আরো বলেন, এ বাস্তবতা আপনারা নাও মানতে পারেন। ধরুন আমরা জানতে পারলাম যে, আগামীকাল একটি ঘূর্ণিঝড় হবে। এখন ‘ঘূর্ণিঝড় পছন্দ করি না’ বা ‘ঘূর্ণিঝড়ের অস্তিত্ব মানি না’-এসব কথা বলে তো আপনি ঝড় থামাতে পারবেন না।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সমালোচনা করব না উল্লেখ করে সাক্ষাৎকারে অধ্যাপক চমস্কি আরও বলেন, জেলেনস্কি বেশ সাহসের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন। তার জায়গা থেকে তাকে দেখলে আপনারা বুঝতে পারবেন বা তার প্রতি সহানুভূতি সৃষ্টি হবে।
তিনি বলেন, পেন্টাগনও সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাদেরও যুদ্ধে যোগ দেওয়া সুযোগ আছে। জেলেনস্কিকে যুদ্ধবিমান ও অত্যাধুনিক অস্ত্র দেয়া যেতে পারে। এমনটি হলে পুতিনও ইউক্রেনে হামলার মাত্রা বাড়িয়ে দেবে। ইউক্রেনকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার ক্ষমতা রাশিয়ার আছে। অস্ত্র সরবরাহের পথেও হামলা চালানোর সক্ষমতাও তাদের আছে। এভাবে আমরা জটিল এক যুদ্ধে জড়িয়ে যাব। পরমাণুযুদ্ধের ক্রসফায়ারে পড়ে আমরা সবাই নিশ্চিহ্ন হয়ে যাব।

তিনি বলেন, তাই আমি জেলেনস্কির সমালোচনা করছি না। তিনি সম্মানিত মানুষ। তিনি অনেক সাহস দেখিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে তার প্রতি সহানুভূতি দেখানো যেতেই পারে। কিন্তু, সবাইকে বৈশ্বিক বাস্তবতার দিকেও নজর দিতে হবে। সূত্র : জেরুজালেম পোস্ট।



 

Show all comments
  • বুলবুল আহমেদ ১৯ এপ্রিল, ২০২২, ২:৪৪ এএম says : 0
    নোয়াম চমস্কি একদম ঠিক কথা বলেছেন
    Total Reply(0) Reply
  • সেলিম মোল্লা ১৯ এপ্রিল, ২০২২, ৭:৪১ এএম says : 0
    নোয়াম চমস্কি সঠিক উপলব্ধি আমার মনে হয় করেছেন
    Total Reply(0) Reply
  • Mominul Hoque ১৯ এপ্রিল, ২০২২, ৯:৪৩ এএম says : 0
    মি. নোয়াম চমস্কি’র চিন্তাধারা একদম বাস্তবিক। কিছু কুটচালবাজরা বরং জলন্ত আগুনে ঘি ঢেলে তামাশা দেখাতেই তাদের আনন্দ উপভোগ করে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Zahinur Rahman ১৯ এপ্রিল, ২০২২, ১০:১৬ এএম says : 0
    সেইটা হলে ত আনেক দেশ ঝুঁকিতে পড়বে।পশ্চিমরা যদি সাহস করে পারমানবিক অস্ত্র মোতায়েনের জন্য কূটনীতিক চাল চালে তাহলে রাশিয়া পিছনে যাওয়া সম্ভবনা আনেক বেশি।কিন্তু নিজ গৃহের দায়িত্ব ছেড়ে অন্য ঘরের সুরক্ষা কে দিবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেনে রাশিয়ার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ