Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ০৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মুহাররম ১৪৪৪

ডনবাসে ২০ হাজার ভাড়াটে যোদ্ধা মোতায়েন রাশিয়ার

মারিউপোলে কিয়েভের সেনারা ‘শেষ সময়ের’ মুখোমুখি মস্কোর বিরুদ্ধে জেলেনস্কিকে ব্যবহার করেছে পশ্চিমারা : ল্যাভরভ তেল ও গ্যাসের ওপর নিষেধাজ্ঞা সমর্থন করবে না হাঙ্গেরি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ এপ্রিল, ২০২২, ১২:০২ এএম

ইউক্রেনের ডনবান অঞ্চলে রাশিয়া তার আক্রমণের তীব্রতা বাড়িয়েছে। এ তথ্য জানিয়ে যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, পশ্চিমা সরকারগুলো ইউক্রেনে আরও আর্টিলারি পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে এবং মারিউপোলে আত্মসমর্পণের জন্য একটি নতুন সময়সীমা এগিয়ে আসছে। এদিকে, একজন ইউরোপীয় কর্মকর্তা দাবি করেছেন, রাশিয়া ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে তার দ্বিতীয় দফা অভিযানে সিরিয়া, লিবিয়াসহ বিভিন্ন স্থান থেকে ২০ হাজারেরও বেশি ভাড়াটে সেনা মোতায়েন করেছে। তিনি জানিয়েছেন, কোন ভারী সরঞ্জাম বা সাঁজোয়া যান ছাড়াই তাদেরকে যুদ্ধে পাঠানো হয়েছে।

কর্মকর্তা বলেন, সিরিয়ান, লিবিয়ান এবং রাশিয়ান ভাড়াটে কোম্পানি, ওয়াগনার গ্রুপ দ্বারা নিয়োগকৃত অন্যান্য যোদ্ধাদের সাথে পূর্ব ইউক্রেনের ভূমিতে ভাড়াটে সেনার সংখ্যা অনুমানিক ১০ থেকে ২০ হাজার পর্যন্ত। ‘আমি আপনাকে যা বলতে পারি তা হ’ল আমরা সিরিয়া এবং লিবিয়া থেকে পূর্ব ডনবাস অঞ্চলে কিছু স্থানান্তর দেখেছি এবং এই লোকগুলি মূলত ইউক্রেনীয় প্রতিরোধের বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হবে,’ কর্মকর্তা বলেছিলেন, ‘তারা পদাতিক। তাদের কাছে কোনো ভারী যন্ত্রপাতি বা যানবাহন নেই।’ সিরিয়ার সাবেক সৈন্যদের ইউক্রেনে যুদ্ধ করার জন্য র‌্যাঙ্ক এবং অভিজ্ঞতার উপর নির্ভর করে ৬০০ থেকে ৩ হাজার ডলারের মধ্যে মাসিক বেতন দেয়া হয়েছে। ওয়াগনার তার বেশিরভাগ সৈন্যকে লিবিয়া থেকে ইউক্রেনে স্থানান্তরিত করেছে বলে জানা গেছে এবং গত মাসে ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দারা দাবি করেছে যে, রাশিয়া লিবিয়ার যোদ্ধাদের পাঠানোর জন্য মস্কো-সমর্থিত লিবিয়ান যুদ্ধবাজ খলিফা হাফতারের সাথে একটি চুক্তি করেছে।

ইউক্রেনের যুদ্ধের এই দ্বিতীয় পর্বে ক্রেমলিনের চারটি উদ্দেশ্য রয়েছে। ইউরোপীয় কর্মকর্তা বলেছেন, ডনবাস দখল করা, ক্রিমিয়ার একটি স্থলসেতু সুরক্ষিত করা যেখানে অবরুদ্ধ শহর মারিউপোল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, ক্রিমিয়াতে মিষ্টি পানির সরবরাহ নিরাপদ করতে খেরসন ওব্লাস্ট দখল করা এবং অতিরিক্ত অঞ্চল দখল করা যা আলোচনায় বাফার বা দর কষাকষির চিপ হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

এদিকে, মারিউপোলে ইউক্রেনীয় মেরিনদের একজন কমান্ডার বলেছেন যে, তার বাহিনী ‘কয়েক ঘন্টার মধ্যে না হলেও, তার বাহিনী হয়তো শেষ দিনের মুখোমুখি হচ্ছে’। তিনি বুধবারের প্রথম দিকে প্রকাশিত একটি ফেসবুক পোস্টে তাদেরকে উদ্ধারের জন্য আবেদন করেছিলেন। ৩৬ তম পৃথক মেরিন ব্রিগেডের সের্হি ভোলিনা বলেন, ‘শত্রু আমাদের সংখ্যা ১০ থেকে এক করে ফেলেছে।’ তারা ভূগর্ভস্থ টানেল সহ বিশাল প্লান্টে আশ্রয় দিয়েছে যেখানে তাদের অবস্থান রাশিয়ান যোদ্ধারা শনাক্ত করে ফেলেছে। ভিডিওতে ভলিনা বলেছেন, ‘আমরা সমস্ত বিশ্ব নেতাদের কাছে আমাদের সাহায্য করার জন্য আবেদন ও অনুনয় করছি। আমরা তাদের কাছে উদ্ধারের পদ্ধতি ব্যবহার করতে এবং তৃতীয় পক্ষের রাষ্ট্রের অঞ্চলে নিয়ে যেতে অনুরোধ করছি।’

অন্যদিকে, ইউক্রেনে আরো অস্ত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ব্রিটেন ও নেদারল্যান্ডস। মঙ্গলবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো রুশ-ইউক্রেন সঙ্কট নিয়ে এক ভিডিও বৈঠক করেছেন। বৈঠকের পর যুক্তরাষ্ট্রসহ তিনটি দেশ জানিয়েছে, ইউক্রেনকে আরো বেশি অস্ত্র সরবরাহ করবে তারা। আগামি কয়েক দিনের মধ্যে ইউক্রেনকে নতুন দফা সামরিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দেবেন জো বাইডেন। এর পরিমাণ প্রায় ৮০ কোটি মার্কিন ডলার।

এ খবর সত্যি হলে রুশ-ইউক্রেন সংঘর্ষের পর ইউক্রেনকে দেয়া মার্কিন সামরিক সহায়তার পরিমাণ ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়াবে। একই দিন নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট সামাজিক মাধ্যমে বলেন, ইউক্রেনকে সাজোঁয়া গাড়িসহ আরো কিছু ভারি অস্ত্র দেবে তার দেশ। এদিন তিনি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে ফোনালাপে ইউক্রেনকে সমর্থনের কথা প্রকাশ করেছেন।

মস্কোর বিরুদ্ধে জেলেনস্কিকে ব্যবহার করেছে পশ্চিমারা : পশ্চিমারা মিনস্ক চুক্তির বাস্তবায়ন উপেক্ষা করার জন্য ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জেলেনস্কিকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবহার করেছে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ মঙ্গলবার ইন্ডিয়া টুডে টেলিভিশন চ্যানেলের সাথে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এই কথা বলেছেন। ‘আমি মনে করি পশ্চিমারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে জেলেনস্কিকে দাবার ঘুঁটির মতো ব্যবহার করেছে। এবং তারা (পশ্চিমারা) মিনস্ক চুক্তি উপেক্ষা করার ইচ্ছায় তাকে শক্তিশালী করার জন্য সবকিছু করেছে,’ ল্যাভরভ বলেছেন, ‘যদি তিনি (জেলেনস্কি) মিনস্ক চুক্তি বাস্তবায়নে সহযোগিতা করতেন, তাহলে সঙ্কট অনেক আগেই কেটে যেত।’ তিনি জোর দিয়ে বলেন, বিশ্বের যেসব দেশ পশ্চিমা অবৈধ একতরফা শাস্তির বিরোধিতা করে, তাদের সাথে সহযোগিতা জোরদার করতে আগ্রহী রাশিয়া।

তিনি বলেন, ‘রাশিয়ার উপর বহু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে পশ্চিমা দেশগুলো এবং এর মাধ্যমে তারা রুশ অর্থনীতি ও সমাজের ওপর আঘাত হানার চেষ্টা করেছে। তবে বহু খাতে পশ্চিমা দেশগুলোর উপর নির্ভরতা কমিয়ে আনার চেষ্টা করছে মস্কো।’ তিনি আরো বলেন, পশ্চিমা দেশগুলোর নিষেধাজ্ঞার মুখে রাশিয়া স্পষ্ট জবাব দিয়েছে। আর তা হল খাদ্যশস্য বা প্রতিরক্ষা শিল্পের কোনো খাতেই পশ্চিমা দেশগুলোর উপর নির্ভরশীল নয় মস্কো। এখন অনেক খাতেই দেশের স্বনির্ভরতা অর্জিত হয়েছে ‘

উল্লেখ্য, মিনস্ক চুক্তিগুলো ডনবাস শান্তি প্রক্রিয়ার ভিত্তিপ্রস্তর। চুক্তিটি একটি যুদ্ধবিরতি ঘোষণা, অস্ত্র প্রত্যাহার, সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা, অর্থনৈতিক সম্পর্ক পুনরুদ্ধার এবং স্বঘোষিত ডোনেৎস্ক এবং লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকস (ডিপিআর, এলপিআর) এর সাথে সংলাপের মাধ্যমে ইউক্রেনে সাংবিধানিক সংস্কার পরিচালনার রূপরেখা দেয়, যার লক্ষ্য ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ এবং একটি বিশেষ ব্যবস্থা প্রদান করা।

যাইহোক, মিনস্ক চুক্তির রাজনৈতিক বিধানগুলো পূরণ করতে কিয়েভের অস্বীকৃতির কারণে আলোচনা প্রক্রিয়াটি আসলে স্থবির হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে, কিয়েভ ডিপিআর এবং এলপিআর-এর সাথে কোনো সরাসরি সংলাপ প্রত্যাখ্যান করেছিল, সংবিধানে অঞ্চলগুলির বিশেষ মর্যাদা একীকরণের বিরোধিতা করেছিল এবং ডনবাসে রাশিয়ার সাথে সীমান্তের একটি অংশ ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রণে রাখার দাবি করেছিল যতক্ষণ না রাজনৈতিক চুক্তির একটি অংশ বাস্তবায়িত হয়।

রাশিয়ার তেল ও গ্যাসের ওপর নিষেধাজ্ঞা সমর্থন করবে না হাঙ্গেরি : হাঙ্গেরি রাশিয়ার তেল ও গ্যাসের উপর কোনো নিষেধাজ্ঞা সমর্থন করবে না। গত মাসে বুদাপেস্টের নেওয়া অবস্থানের পুনরাবৃত্তি করে মঙ্গলবার হাঙ্গেরির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পিটার সিজ্জার্তো এই তথ্য জানিয়েছেন। আঙ্কারায় তার তুর্কি সমকক্ষের সাথে আলোচনার পরে পিটার সিজ্জার্তো মঙ্গলবার তার ফেসবুক পেজে সম্প্রচারিত একটি সংবাদ ব্রিফিংকে বলেছেন, ইউক্রেনের যুদ্ধ থেকে কোনো বাধা ছাড়াই হাঙ্গেরিতে রাশিয়ান গ্যাসের চালান পৌঁছেছে। ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, আমরা রাশিয়ার বিরুদ্ধে জ্বালানি নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব সমর্থন করি না। সিজ্জার্তো যোগ করেছেন যে এটি কেবল তেল এবং গ্যাস আমদানির ক্ষেত্রেই নয়, পারমাণবিক শক্তিতে রাশিয়ার সাথে সহযোগিতার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য - বিশেষ করে, হাঙ্গেরিতে পাকস পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য জ্বালানী সরবরাহ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, হাঙ্গেরি, যাদের ইউক্রেনের সাথে সীমান্ত রয়েছে, তার জ্বালানি সরবরাহের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ‘সবকিছু’ করবে। এই মাসের শুরুর দিকে বিবিসির সাথে একটি সাক্ষাতকারে, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোডমির জেলেনস্কি জার্মানি এবং হাঙ্গেরির কথা উল্লেখ করেছিলেন, তাদের বিরুদ্ধে জ্বালানি বিক্রয় নিষেধাজ্ঞার প্রচেষ্টাকে বাধা দেয়ার অভিযোগ করেছিলেন, যেখান থেকে রাশিয়া এই বছর ২৫০ বিলিয়ন ইউরো পর্যন্ত উপার্জন করেছে। তিনি বলেছিলেন, ‘আমরা বুঝতে পারছি না আপনি কীভাবে রক্তের অর্থ উপার্জন করতে পারেন। দুর্ভাগ্যবশত কিছু ইউরোপীয় দেশ তাই করছে। উদাহরণস্বরূপ, এবং আমি চাই যে আমরা স্পষ্টভাবে বলি, তেল নিষেধাজ্ঞা, আমি মনে করি, ইউরোপীয় দেশগুলির মধ্যে জার্মানি এবং হাঙ্গেরি দ্বারা অবরুদ্ধ করা একটি মূল বিষয় যা আমরা জানি।

তিনি আরও বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে তেল নিষেধাজ্ঞা, এই ইস্যুতে ভিন্ন মনোভাব থাকা কীভাবে সম্ভব তা নিয়ে আমাদের এই দেশগুলির সাথে একসাথে কথা বলতে হবে।’ এর আগে হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান গত মাসে বলেছিলেন যে, যদিও হাঙ্গেরি ইউক্রেনে ক্রেমলিনের আক্রমণের নিন্দা করেছে, তবে এটি রাশিয়ার তেল ও গ্যাসের উপর নিষেধাজ্ঞা সমর্থন করবে না। সূত্র : দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট, তাস, দ্য গার্ডিয়ান, বিবিসি।



 

Show all comments
  • Anwar Ali Khan ২১ এপ্রিল, ২০২২, ৫:২২ এএম says : 0
    বিশ্বকে বোকা বানাচ্ছে, ন্যাটো ইউক্রেনকে যে সমরাস্ত্র দিয়েছে তা রাশিয়ার বিরুদ্ধে ব্যাবহার করতেই যুদ্ধে এদের অংশগ্রহন। এরা সবাই ন্যাটোর সৈন্য।
    Total Reply(0) Reply
  • আমিনুল লাল ২১ এপ্রিল, ২০২২, ৫:২৩ এএম says : 0
    ফিলিস্তিনের মানুষের জন্য বিশ্বের কোন মাথা বেথা নাই জাই হোক ভাড়াটে সেনা দিয়ে কোন পারবেনা
    Total Reply(0) Reply
  • Azizur Rahman Aziz ২১ এপ্রিল, ২০২২, ৫:২৩ এএম says : 0
    ইরাক-আফগানস্হানের জনগণের বিপক্ষে যুদ্ধ করেছে, আর ইউক্রেনের জনগণের পক্ষে যুদ্ধ করার কারণ সবাই বুঝতে পারছে..!
    Total Reply(0) Reply
  • Radowan Haque ২১ এপ্রিল, ২০২২, ৫:২৩ এএম says : 0
    বাংলাদেশ সব সময় রাশিয়ার পক্ষে থাকবে কেননা বাংলাদেশে যুদ্ধর সময় রাশিয়া অনেক সাহায্যে করেছিল। আর তারাতারি যেন জেলেনস্কির মৃত্যু ও তার পতন হয়। তার জন্যই আজ ইউক্রেন এর সাধারণ মানুষদের এই দুরঅবস্থা।
    Total Reply(0) Reply
  • Abul Farah ২১ এপ্রিল, ২০২২, ২:৪৭ পিএম says : 0
    আমি এ যুদ্ধকে ভিডিও গেমস হিসাবে দেখি।
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Akash Roy Chowhury ২১ এপ্রিল, ২০২২, ৩:৫৯ পিএম says : 0
    Apnader sobar kothar sathei ami 1 mot. Ami Russiar 1 number supporter. Karon Bangladesher Lal potaker sathe Russiar onek onek vumika ache. Seta osikar korar konoi sujok nei. Tobe Zelenesky ke joto taratari hotta kora hobe, toto taratari Ukrenbasir valo hobe. Oi ..i muloto Ukrener Censar. R oi harami sontrasi America ore dia Russia ke durbol korte chaiche.
    Total Reply(0) Reply
  • Mominul Hoque ২১ এপ্রিল, ২০২২, ৯:৫৮ এএম says : 0
    ইউক্রেন অথবা ইউক্রেনের জনগণ নয়, রাশিয়ার উচিত খুব তাড়াতাড়ি জেলেনস্কিকে শেষ করে দেওয়া। অন্যথায় এই যুদ্ধের কারণে বিশ্ব আরো বেশী দুরাবস্থায় পতিত হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেনে রাশিয়ার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ