Inqilab Logo

রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, ০৩ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

রাশিয়ার চার গ্যাস কর্মকর্তার রহস্যজনক মৃত্যু

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ এপ্রিল, ২০২২, ২:৫৬ পিএম

রাশিয়ার একটি শীর্ষ গ্যাস সংস্থার কোটিপতি কর্মকর্তা সের্গেই প্রোটোসেনিয়ার রহস্যজনক মৃত্যুর তদন্ত নেমেছে স্পেনের তদন্ত সংস্থাগুলো। স্পেনের কোস্টা ব্রাভাতে নিজের প্রাসাদোপম বাড়ির ভেতরে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধার করা হয় তার স্ত্রী এবং মেয়ের রক্তাক্ত দেহ-ও। তার স্ত্রী এবং মেয়েকে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে।

তদন্ত সংস্থাগুলোর ধারণা ৫৫ বছর বয়সি সের্গেই একটি কুড়াল এবং ছুরি দিয়ে নিজেই স্ত্রী এবং মেয়েকে খুন করে আত্মহত্যা করেন। সের্গেইয়ের পরিবার ফ্রান্সে বাস করত। স্পেনে তারা ছুটি কাটাতে এসেছিলেন।
তবে ঘটনাস্থলে কোনও সুইসাইড নোট পাওয়া যায়নি। উদ্ধার হওয়া কুড়াল এবং ছুরি থেকে পাওয়া যায়নি আঙুলের ছাপও। আর তা নিয়েই ঘনীভূত হয়েছে রহস্যের জাল। আত্মহত্যার আগে কেনই বা আঙুলের ছাপ মেটানোর কথা ভেবেছিলেন সের্গেই? উঠে আসছে সে প্রশ্নও।
স্পেনের পুলিশের ধারণা, সের্গেই তার স্ত্রী এবং মেয়েকে ঘুমন্ত অবস্থায় একটি কুড়াল এবং একটি ছুরি দিয়ে খুন করে পরে ওই বাড়ির বাইরে রেলিং থেকে ঝুলে আত্মহত্যা করেন।
যদিও দাম্পত্য কলহ বা অশান্তির কোনও প্রমাণ পুলিশের হাতে আসেনি। বাড়িতে বাইরে থেকে কেউ প্রবেশ করেছিল কি না তা দেখতে ইতিমধ্যেই সিসি ক্যামেরাগুলো খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে পুলিশ।
স্পেনে সের্গেই এবং তার পরিবারের দেহ উদ্ধার করা হয় মঙ্গলবার। আশ্চর্যজনকভাবে ঠিক তার এক দিন আগেই মস্কোর বিলাসবহুল বহুতলের ১৫ তলা থেকে উদ্ধার করা হয় স্ত্রী এবং ছোট মেয়ের মৃতদেহ-সহ অন্য এক রাশিয়ান কোটিপতি ব্যবসায়ীর মৃতদেহ। তিন জনের মৃতদেহই গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে বাড়ির বড় মেয়ে আনাস্তাসিয়া।
কোটিপতি ব্যবসায়ী ভ্লাদিস্লাভ আভায়েভ, তার স্ত্রী ইয়েলেনা এবং নাবালিকা মেয়ে মারিয়ার মৃতদেহগুলো পাশাপাশিই পড়ে ছিল। এক্ষেত্রেও তদন্তকারীদের দাবি ছিল, স্ত্রী-মেয়েকে গুলি করে আত্মহত্যা করেন আভায়েভ।
আনাস্তাসিয়া পুলিশকে জানান তিনি যখন তার বাবার দেহ দেখতে পান, সেই সময় বন্দুকটি তার হাতেই ছিল।
আনাস্তাসিয়ার মতে, বিলাসবহুল এই ফ্ল্যাটে মোট ১৩টি অস্ত্র ছিল। কিন্তু সে সব দেরাজে ভেতর থেকে তালাবদ্ধ অবস্থাতেই ছিল।
স্ত্রী ইয়েলেনা এবং তার গাড়ির চালকের মধ্যে বিবাহ বর্হিভূত সম্পর্ক ছিল বলেও কানাঘুষায় শোনা যেত। এর পরই ওই চালককে চাকরি থেকেও ছাড়িয়ে দেন আভায়েভ।
ক্রিস্টিনা নামে এক প্রতিবেশী জানান, তিনি পর পর তিনটি গুলির আওয়াজ এবং চিৎকার শোনেন। তবে খুব তাড়াতাড়িই চিৎকার থেমে যায়।
তবে এই অদ্ভুত ভাবে, ‘আত্মহনন’-এর পথ বেছে নেওয়া এই দুই ব্যবসায়ীই রাশিয়ার কোনও না কোনও গ্যাস কম্পানির সঙ্গে যুক্ত এবং সংস্থাগুলোর উঁচু পদে ছিলেন।
তবে কিয়েভের ওপর ক্রেমলিন আগ্রাসনের পর রাশিয়ার তেল এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের ওপর আমেরিকা-সহ বিশ্বের বহু দেশ নিষেধাজ্ঞা জারি করার পর থেকেই সামগ্রিক ক্ষতির মুখে পড়ে এই সংস্থাগুলো।
ভারতীয় মুদ্রায় সের্গেই-র মোট সম্পত্তির পরিমাণ ছিল তিন হাজার ২৫১ কোটি। এবং তিনি সাত বছর ধরে রাশিয়ার প্রাকৃতিক গ্যাস সংস্থা নোভেটেকের পরিচালনা পর্ষদের ডেপুটি চেয়ারম্যান ছিলেন।
আভায়েভ-ও এর আগে রাশিয়ার গ্যাস সংস্থা গ্যাজপ্রমের নিজস্ব ব্যঙ্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। এ ছাড়াও আভায়েভ একটি নির্মাণ সংস্থার মালিকও ছিলেন।
ক্রেমলিন ঘনিষ্ঠ হওয়ার কারণে এক সময় সেখানেও একটি বিভাগের উপপ্রধান ছিলেন আভায়েভ। পুতিন নিজেও অনেক বিদেশি সংস্থাকে এই ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট খোলার অনুরোধ করেছিলেন। এই বিনিয়োগের সাহায্যে বেশি প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপন্ন করে রাশিয়া, পশ্চিমা দেশগুলোকে টেক্কা দিতে পারে বলেও উল্লেখ করেছিলেন পুতিন।
রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের পর রুশ অর্থনীতিতে প্রভাব পড়লে পুতিন জানিয়েছিলেন যে, বিদেশি মুদ্রার সাহায্যে রুশ অর্থনীতি চাঙ্গা করা সম্ভব। কিন্তু পরে নিজের কথা থেকে সরে আসেন তিনি।
এখন এই অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে যখন প্রাকৃতিক গ্যাস রপ্তানি ক্ষতির মুখে পড়েছে, তখন হঠাৎ দুই প্রধান গ্যাস সংস্থার উচ্চপদস্থ দুই কর্মকর্তার পর পর ‘আত্মহত্যা’ করার ঘটনা কি নিছকই কাকতালীয়? না কি এর পেছনে লুকিয়ে কোনও গভীর রহস্য?
এর আগে গত ফেব্রুয়ারি মাসেও দুজন শীর্ষ গ্যাস কর্মকর্তা হত্যার শিকার হয়েছেন।
ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরের দিন গত ২৫ ফেব্রুয়ারি আলেকজান্ডার টিউলাকভ (৬১) নামের একজন গ্যাস কর্মকর্তাকে হত্যা করা হয়। তিনি গ্যাজপ্রমের ডেপুটি জেনারেল ডিরেক্টর পর্যায়ের একজন সিনিয়র আর্থিক ও নিরাপত্তা কর্মকর্তা ছিলেন।
এর তিন সপ্তাহ আগে গ্যাজপ্রম ইনভেস্টের পরিবহন প্রধান লিওনিড শুলম্যানকে (৬০) তার বাথরুমের মেঝেতে মৃত অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল। তার দেহে একাধিক ছুরিকাঘাত করে তাকে হত্যা করা হয়। দুজনই লেনিনগ্রাদ অঞ্চলের অভিজাত লেনিনস্কি গেটেড হাউজিং ডেভেলপমেন্ট এলাকায় বসবাস করতেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রহস্যজনক মৃত্যু


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ