Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯, ২৯ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ইসলামাবাদে মিছিল করে যুক্তরাষ্ট্রকে বার্তা দেয়া হবে

পেশোয়ারে ইমরান খান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ এপ্রিল, ২০২২, ১২:০০ এএম

পিটিআই চেয়ারম্যান এবং পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান গতকাল বলেছেন যে, তিনি জাতিকে রাস্তায় নিয়ে আসবেন এবং পাকিস্তান একটি ‘মুক্ত দেশ’, আমেরিকাকে এ বার্তা দিতে ইসলামাবাদে মিছিল করবেন।

পেশোয়ারে একটি অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্যদের ভাষণে, তিনি তার সমর্থকদের প্রতি গ্রাম, রাস্তা এবং এলাকা থেকে লোকদের একত্রিত করতে এবং ‘সত্যিকারের স্বাধীনতা’ আন্দোলনের জন্য তাদের প্রস্তুত করার আহ্বান জানান। ইমরান বলেন, পাকিস্তান লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ (আল্লাহ ছাড়া কোন উপাস্য নেই) সেøাগানে গঠিত হয়েছিল, মুসলমানরা আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করে না। ‘আমরা রাস্তায় নামব, ইসলামাবাদে মিছিল করব এবং আমেরিকাকে বার্তা দেব যে আমরা একটি স্বাধীন দেশ। আমরা তাদের এই বার্তা দেব যে আমরা একটি সম্মানিত দেশ যেটি কারও পুতুলে পরিণত হবে না,’ সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা তাদের বলবো এই আমদানি করা সরকারকে আমরা কোনোভাবেই মেনে নেব না।

তিনি স্মরণ করেন যে পাকিস্তানে আমেরিকার ‘শাসন পরিবর্তনের’ কৌশলটি ১৯৫০ এর দশকে ইরান এবং তারপরে চিলির সাথে একই রকম ছিল। ‘তারা প্রথমে মিডিয়া আউটলেটগুলোকে অর্থ দিয়েছিল এবং তাদের সরকারের বিরুদ্ধে পরিণত করেছিল। তারপর তারা ক্ষমতাসীন দলের রাজনীতিবিদদের কিনেছিল এবং পরে বিরোধীদের টাকা দিয়েছিল। পিটিআই চেয়ারম্যান বলেন, ‘পাকিস্তানেও তারা এটাই করেছে।’ তিনি আরও বলেছিলেন যে, দলটি ২৭ রমজানে একটি শব-ই-দুয়ার (প্রার্থনার জন্য একটি সন্ধ্যা) আয়োজন করতে যাচ্ছে। ‘আমি মাওলানা তারিক জামীলের সাথে থাকব এবং আমরা প্রতিটি শহরে পর্দার ব্যবস্থা করব। আমরা সবাই দেশের নিরাপত্তা, সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতার জন্য দোয়া করব।’

ইমরান দাবি করেন, নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফকে ‘ষড়যন্ত্রের’ মাধ্যমে ক্ষমতায় আনা হয়েছে। ‘এই ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল যখন আমেরিকা ইমরান খানকে সরিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল,’ পিটিআই চেয়ারম্যান বলেছেন, ‘তাদের সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু আমাদের আমেরিকান রাষ্ট্রদূতের কাছে এসে তাকে হুমকি দিয়েছিলেন যে, ইমরান খানকে অপসারণ না করলে পাকিস্তানকে অসুবিধার সম্মুখীন হতে হবে। তিনি আরও বলেছিলেন যে, ইমরান খানকে অনাস্থা ভোটে সরিয়ে দিলে পাকিস্তানকে ক্ষমা করা হবে।’ ‘তারা (মার্কিন) জানত যে দুর্নীতিগ্রস্ত মাফিয়ারা ক্ষমা চাইবে,’ ইমরান বলেছিলেন যে, আমেরিকা জানত ‘এই ডাকাতদের বিদেশে অর্থ রয়েছে। সর্বদা মনে রাখবেন, বিদেশে যাদের অর্থ, প্রাসাদ এবং ব্যবসা রয়েছে তারা কখনই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে দাঁড়াতে পারে না। তারা সর্বদা যুক্তরাষ্ট্রের দাস হয়ে থাকবে।’

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ফেডারেল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এফআইএ), ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টিবিলিটি ব্যুরো (এনএবি) এবং ফেডারেল বোর্ড অফ রেভিনিউ (এফবিআর) এর মতো দেশের প্রতিষ্ঠানগুলিকে ‘দুর্বল’ করার জন্য শেহবাজ সরকারকে দায়ি করেন। ক্ষমতা গ্রহণের সাথে সাথে, ইমরান বলেছিলেন, শাহবাজ তার বিরুদ্ধে সমস্ত মামলা বাতিল করে, তার তদন্তকারী সমস্ত এফআইএ কর্মচারীদের বরখাস্ত করে এবং তাদের নিজের লোকদের সাথে প্রতিস্থাপন করে, এবং প্রতিশোধ নিতে শুরু করে। ইমরান পুনর্ব্যক্ত করেন যে, এখন দায়িত্ব নেয়ার সময় এবং তার কর্মীদের দেশের প্রতিটি কোণায় মানুষের কাছে এই বার্তাটি জানাতে বলেছিলেন। সূত্র : ডন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তানের


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ