Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

রাশিয়াকে নিয়ে পার্থক্য রেখেই বিবৃতি ভারত-ফ্রান্সের

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ মে, ২০২২, ২:৪৮ পিএম

ত্রিদেশীয় সফরের শেষ লগ্নে ইউক্রেন যুদ্ধের দ্রুত অবসান দাবি করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। ডেনমার্ক থেকে ফেরার পথে প্যারিসে নেমেছিলেন মোদী। ফ্রান্সে পৌঁছনোর পরেই তার সঙ্গে ম্যাখোঁর আলিঙ্গনের একটি ছবি পোস্ট করে প্রধানমন্ত্রীর দফতর টুইট করে, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁর মধ্যে বৈঠক এই বন্ধুত্বকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে’।

ম্যাখোঁর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পরে যৌথ বিবৃতিতেও ইউক্রেন প্রসঙ্গ উঠে এসেছে। তবে ‘বন্ধুত্ব’ সত্ত্বেও সেখানে ভারত এবং ফ্রান্স রাশিয়া নিয়ে অবস্থানগত পার্থক্য ধরে রেখেছে। সাধারণত যৌথ বিবৃতিতে প্রত্যেকটি বিষয়েই যৌথ সিলমোহর থাকে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে রাশিয়ার নাম করে তীব্র নিন্দা করেছে ফ্রান্স।

যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রাশিয়ার বাহিনীর বেআইনি, একতরফা হিংসাকে ফের তীব্র নিন্দা করছে ফ্রান্স’। এর পরই যৌথতার খেই ধরে বলা হয়েছে, ‘ভারত এবং ফ্রান্স ইউক্রেনে চলতি হিংসা এবং মানবিক সঙ্কটের বিষয়ে অত্যন্ত উদ্বেগ প্রকাশ করেছে, ইউক্রেনে নিরীহ নাগরিকদের মৃত্যুর ঘটনাকে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় নিন্দা করেছে।

উভয় রাষ্ট্রই চাইছে, অবিলম্বে হিংসা বন্ধ করে কূটনীতিকে ফিরিয়ে আনা হোক। দু’টি দেশই মনে করে, জাতিসংঘের সনদ, আন্তর্জাতিক আইন, সার্বভৌমত্ব এবং ভৌগোলিক অখণ্ডতাকে সম্মান করার প্রয়োজন রয়েছে। ইউক্রেন যুদ্ধের আন্তর্জাতিক এবং আঞ্চলিক প্রভাব নিয়ে দুই নেতা আলোচনা করেছেন ও আরও ঘনিষ্ঠ সমন্বয়ের ব্যাপারে মতস্থির করেছেন’।

বৈঠকে সম্ভাব্য খাদ্য সঙ্কটের মোকাবিলা নিয়ে কথা হয়েছে। বিশেষ করে এই যুদ্ধের ফলে গমের সঙ্কট বাড়তে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে। ইউক্রেন গম উৎপাদনে এগিয়ে থাকা দেশ। বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে প্রতিরক্ষা সমঝোতা নিয়েও। ঘরোয়া রাজনীতিতে যে যুদ্ধবিমান বিতর্কের ঝড় তুলেছিল, সেই রাফালের কথা উল্লেখ করা হয়েছে সগর্বে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘মহামারির সময়ে বিলম্ব না করে রাফাল যুদ্ধবিমান পৌঁছে গিয়েছে ভারতে। এই সহযোগিতা আরও বাড়িয়ে ফ্রান্স চায় আত্মনির্ভর ভারতের সঙ্গে নিজেকে জুড়তে। আধুনিক প্রতিরক্ষা প্রযুক্তি, উৎপাদন, রফতানির ক্ষেত্রে আরও গভীর সমন্বয় হবে দু’দেশের মধ্যে’।

ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় উদ্যোগে ফ্রান্স আগেই নিজেকে যুক্ত করেছিল। মোদী-ম্যাখোঁ আলোচনায় তা গুরুত্ব পেয়েছে। চীনকে চাপে রেখে বলা হয়েছে, ‘ভারত এবং ফ্রান্স কৌশলগত অংশিদারি তৈরি করেছে, ভারত-প্রশান্তমহাসাগরীয় অঞ্চলে শান্তি, সুস্থিতি এবং সমৃদ্ধি বাড়ানোর জন্য। দু’টি দেশই স্বাধীন, আইনের শাসন মানা ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে বিশ্বাস করে। সমুদ্রপথকে এবং নৌ পরিবহণকে সংঘাত, উত্তেজনামুক্ত রাখায় তারা উদ্যোগী’। সূত্র: টিওআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত-ফ্রান্স
আরও পড়ুন