Inqilab Logo

শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

পদত্যাগের আহ্বান প্রত্যাখ্যান বরিস জনসনের

স্থানীয় নির্বাচনে টোরিদের ব্যাপক ক্ষতি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ মে, ২০২২, ১২:০৪ এএম

স্থানীয় নির্বাচনে টোরিদের ব্যাপক ক্ষতির পর তাকে পদত্যাগ করার আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেছেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। দলটি ইংল্যান্ডে প্রায় ৩০০টি আসন হারাতে চলেছে, কারণ লেবার, লিব ডেম এবং গ্রিনস সব দলই সাফল্য অর্জন করেছে।
কার্লাইল সিটি কাউন্সিলের রক্ষণশীল নেতা জন ম্যালিনসন বলেছেন, লেবার নতুন কাম্বারল্যান্ড কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পরে টোরি এমপিদের বরিস জনসনকে ক্ষমতাচ্যুত করার চেষ্টা করা উচিত। উত্তর-পশ্চিম ইংল্যান্ডের কাউন্সিলে টোরিরা ১৪টি আসন হারিয়েছে, যেখানে লেবার ১২টি লাভ করে সামগ্রিক নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।
ম্যালিনসন বলেছেন: ‘আমি মনে করি, এটি কেবল পার্টিগেট নয়, অখণ্ডতার সমস্যা রয়েছে। মূলত আমি মনে করি না যে, মানুষের আর আস্থা আছে যে, সত্য বলার জন্য প্রধানমন্ত্রীর ওপর নির্ভর করা যেতে পারে।
প্রশ্ন করা হলে তিনি মনে করেন যে, রক্ষণশীল এমপিদের প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতাচ্যুত করা উচিত, ম্যালিনসন বলেছিলেন: ‘এটি আমার পছন্দ হবে, হ্যাঁ’।
এদিকে, টোরি এমপি ডেভিড সিমন্ডস - যার রুইসলিপ, নর্থউড এবং পিনার আসন প্রধানমন্ত্রীর প্রতিবেশী - বলেছেন, জনসনের ব্যক্তিগত আচরণের বিষয়টি ‘সুরাহা করা দরকার’।
দলের খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য যারা তাকে দোষারোপ করছেন তাদের সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে প্রধানমন্ত্রী বলেন: ‘এ থেকে বড় শিক্ষা হল, এটি ভোটারদের কাছ থেকে একটি বার্তা যে, তারা আমাদের সর্বোপরি এক, দুই এবং তিন-এর ওপর ফোকাস করতে চায়। তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো- দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, কোভিড-পরবর্তী আফটারশক ঠিক করা নিশ্চিত করা, কোভিড-এর মধ্য দিয়ে যেভাবে আমরা পেয়েছি সেইভাবে অর্থনৈতিক আফটারশকের মধ্য দিয়ে আমাদের সকলকে পেতে, জ্বালানি সরবরাহের সমস্যাগুলো সমাধান করা, এখানেই মুদ্রাস্ফীতির স্পাইক আসছে, এবং আমাদের উচ্চ মজুরি, উচ্চ দক্ষতার চাকরির এজেন্ডা নিয়ে চলতে থাকুন’।
টোরিরাও স্কটল্যান্ডে একটি হতাশাজনক ফলাফলের জন্য প্রস্তুত, যেখানে দলীয় পরিসংখ্যানগুলো তাদের ভাগ্যের পতনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত অজনপ্রিয়তাকেও দায়ী করছে।
প্রারম্ভিক ফলাফল ইঙ্গিত দেয় যে, রক্ষণশীলরা অনেক কাউন্সিলর হারাতে এবং লেবারকে পিছনে ফেলে সীমান্তের উত্তরে তৃতীয় স্থানে চলে যাবে।
বেশ কয়েক মাস ধরে জনসনের কনজারভেটিভ পার্টির জনপ্রিয়তা নামছে। এর প্রধান কারণ, প্রধানমন্ত্রীর ‘পার্টিগেট’ কেলেঙ্কারি। কোভিড বিধি ভেঙে খাস প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে একাধিক মদের আসর বসিয়ে কড়া সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন কনজারভেটিভ দলের নেতা জনসন। তাছাড়া, গত কয়েক মাসের মূল্যবৃদ্ধিও সাধারণ মানুষকে শাসক দলের প্রতি আরও বিরূপ মনোভাবাপন্ন করে তুলেছে। বিরোধী দলগুলোর আশা ছিল, এ সুযোগে স্থানীয় কাউন্সিল নির্বাচনে ভাল ফল করবে তারা।
তবে ফল ঘোষণার পর দেখা যাচ্ছে, যতটি আশা করেছিল লেবার পার্টি, ততটা ভাল ফল করতে পারেনি তারা। শুক্রবার সন্ধ্যে পর্যন্ত যেসব আসনের ফল প্রকাশিত হয়েছে তা থেকে ভোট-চিত্রটা আপাতত এ রকম- লেবার ও লিবারাল ডেমোক্র্যাট, দু’টি দল মিলিয়ে তাদের মোট আসন সংখ্যা প্রায় চারশো বেশি বাড়িয়েছে। অন্যদিকে, প্রায় চারশো আসন হারিয়েছে কনজারভেটিভ পার্টি। অন্যান্য ছোট দল, যেমন স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টি, গ্রিন পার্টি বা ওয়েলসের আঞ্চলিক দল পিসিও এবার বেশ কিছু আসন হারিয়েছে। ভাল ফল করতে পারেননি নির্দল প্রার্থীরাও। সেসব আসন মূলত গেছে লিবারাল ডেমোক্র্যাট পার্টির ঝুলিতে। লন্ডনের বাইরে খুব চমকপ্রদ ফল হয়নি লেবার পার্টির। তবে তাতে হতাশ নয় তারা। লেবার নেতা কায়ার স্টার্মারের কথায়, ‘২০১৯-এর সেই শোচনীয় ফলের পরে এটা দলের কাছে একটি বিশাল মোড়বদল। আমাদের দল এখন ঠিক পথে চলছে’। লন্ডনের তিনটি প্রধান বরো- ওয়েস্টমিনস্টার, ওয়ান্ডসওয়ার্থ এবং বার্নেট, এই তিনটিতেই জয়ী হয়েছে স্টার্মারের দল। সূত্র : হাফিংটন পোস্ট ও আনন্দবাজার পত্রিকা।



 

Show all comments
  • Mohmmed Dolilur ৮ মে, ২০২২, ৪:০২ এএম says : 0
    এই প্রধান মন্ত্রী বরিস জনসনের প্রধান মন্ত্রী থাকা উচিত নয়,একজন নেশা খোর প্রধান মন্ত্রী হওয়া উচিত নয়,যার উপর রাষ্ট্র অথবা জনগনের দায়িততো সে যদি নেশা কারি হয়,রাষ্ট্র কি করে পরিচালনা করবেন,এবং জনগণ সবাই নেশা খোর হওয়ার সম্ভাবনা,তার পর রাশিয়ার প্রেসিডেনট ও এর উপর নারাজ,একজন উগ্র মেজাজী লোক রাষ্ট্র প্রধান হতে পারে না,যেমন আপনারা দেখেন আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী কত দরয্য কত মানুষ কত কথা বলেন,অথচ উনি রাষ্ট্র কি ভাবে উন্নয়ন করবেন সে চিন্তা ভাবনায় আছেন,বাংলাদেশ কে কিভাবে বিশ্বের কাছে একটি শক্তি শালি দেশ হিসেবে পরিচিত করবেন সেই চিন্তায় থাকেন,জনগণ কি ভাবে দুই বেলা ভাত খেতে পারবে এই চিন্তা,বরিস জনসন আছে যুদ্ধ কি ভাবে লাগানে যায় সেই চিন্তা।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohmmed Dolilur ৮ মে, ২০২২, ৪:০১ এএম says : 0
    এই প্রধান মন্ত্রী বরিস জনসনের প্রধান মন্ত্রী থাকা উচিত নয়,একজন নেশা খোর প্রধান মন্ত্রী হওয়া উচিত নয়,যার উপর রাষ্ট্র অথবা জনগনের দায়িততো সে যদি নেশা কারি হয়,রাষ্ট্র কি করে পরিচালনা করবেন,এবং জনগণ সবাই নেশা খোর হওয়ার সম্ভাবনা,তার পর রাশিয়ার প্রেসিডেনট ও এর উপর নারাজ,একজন উগ্র মেজাজী লোক রাষ্ট্র প্রধান হতে পারে না,যেমন আপনারা দেখেন আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী কত দরয্য কত মানুষ কত কথা বলেন,অথচ উনি রাষ্ট্র কি ভাবে উন্নয়ন করবেন সে চিন্তা ভাবনায় আছেন,বাংলাদেশ কে কিভাবে বিশ্বের কাছে একটি শক্তি শালি দেশ হিসেবে পরিচিত করবেন সেই চিন্তায় থাকেন,জনগণ কি ভাবে দুই বেলা ভাত খেতে পারবে এই চিন্তা,বরিস জনসন আছে যুদ্ধ কি ভাবে লাগানে যায় সেই চিন্তা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিটেনের

২১ অক্টোবর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ