Inqilab Logo

বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯, ২৮ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

ভৌগোলিক বাস্তবতা : ইউক্রেনে রাশিয়া যে সাফল্য পেয়েছে

ইউক্রেনের ইন্টারনেট স্যাটেলাইন নামিয়ে দিয়েছে রাশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

প্রতিবেশী ইউক্রেনে প্রায় তিন মাস ধরে চলছে রাশিয়ার অভিযান। বিভিন্ন প্রতিকূলতা সত্ত্বেও ভৌগলিক বাস্তবতা হচ্ছে, রাশিয়া তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী দেশটির প্রধান প্রধান কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলো নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ও বন্দরগুলো দখলের মাধ্যমে ইউক্রেনকে সমুদ্রপথে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন দাবি করেছে, রাশিয়া ইউক্রেনের স্যাটেলাইট ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে একটি বিশাল সাইবার আক্রমণ চালিয়েছে যা ইউক্রেনে অভিযানের শুরুতেই হাজার হাজার মডেম অফলাইনে নিয়ে গিয়েছিল।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার বলেছে, পূর্ব ইউক্রেনের বাহিনী দোনেৎস্ক এবং লুহানস্কের মধ্যে সীমান্তে অগ্রসর হয়েছে। এ দুটি এলাকা হচ্ছে রুশ-ভাষী প্রদেশ যেখানে মস্কো-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা আট বছর ধরে ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর সাথে লড়াই করছে। মন্ত্রণালয়ের দাবি, নিশ্চিত হলে এ সম্ভাবনাকে শক্তিশালী করে যে, রাশিয়া শিগগিরই ডনবাস নামে পরিচিত এ অঞ্চলের ওপর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ অর্জন করতে পারে, ২৪ ফেব্রুয়ারি আক্রমণের আগে এর মাত্র এক তৃতীয়াংশের তুলনায়।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন সবসময় বলে এসেছেন, তাদের লক্ষ্য ইউক্রেন দখল নয় বরং, কিয়েভের অত্যাচার থেকে ডনবাস এলাকাকে মুক্ত করা। সেই লক্ষেই এগিয়ে চলেছে রুশ সেনা। ডনবাস দখল, ক্রিমিয়ান উপদ্বীপ সংলগ্ন দক্ষিণ ইউক্রেনের কিছু অংশ দখলে রাশিয়ার আক্রমণের প্রাথমিক সাফল্যের সাথে মিলিত, যেটিকে রাশিয়া নিজেদের এলাকা বলে মনে করে ও ২০১৪ সালে সংযুক্ত করেছিল, ক্রেমলিনকে বিরোধ থামাতে ভবিষ্যতের যেকোনো আলোচনায় প্রচুর সুবিধা দেয়।

এবং রাশিয়ানরা কৃষ্ণ সাগরে নৌ আধিপত্যের অতিরিক্ত সুবিধা উপভোগ করে, ইউক্রেনীয় বাণিজ্যের একমাত্র সামুদ্রিক রুট, যেটিকে তারা একটি নিষেধাজ্ঞার দ্বারা পঙ্গু করে দিয়েছে যা অবশেষে ইউক্রেনকে অর্থনৈতিকভাবেক্ষুধার্ত করতে পারে এবং ইতিমধ্যেই বিশ্বব্যাপী শস্য ঘাটতিতে অবদান রাখছে। মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে সেনেটের আর্মড সার্ভিসেস কমিটির সামনে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে, জাতীয় গোয়েন্দা বিভাগের পরিচালক এভ্রিল ডি হেইনস ইউক্রেনে একটি ‘দীর্ঘস্থায়ী সংঘাত’ সম্পর্কে সতর্ক করেছেন কারণ রাশিয়া ডনবাস অঞ্চলের বাইরে ইউক্রেনের কৃষ্ণ সাগর উপকূল জুড়ে বিস্তৃত আঞ্চলিক লাভের চেষ্টা করছে, যার মধ্যে একটি স্থল সেতু নির্মাণও রয়েছে।

ইউক্রেনীয় কর্মকর্তাদের মতে, রাশিয়ান বাহিনী এখন ডনবাসের প্রায় ৮০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে এবং তাদের কেন্দ্রে ক্রামতোর্স্ক সহ ইউক্রেনীয়-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলের পকেটে তাদের প্রচেষ্টাকে কেন্দ্রীভূত করেছে। রাশিয়ার ইউক্রেনের কৃষ্ণ সাগর অবরোধ ক্রেমলিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইউক্রেনীয় বন্দর ওডেসার নিয়ন্ত্রণ লাভের আকাক্সক্ষাকে হ্রাস করেনি, যা বেশ কয়েকটি বিমান হামলার শিকার হয়েছে। সর্বশেষে, রাশিয়ান বাহিনী সাতটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে, একটি শপিং মল এবং একটি ভোগ্যপণ্যের গুদামে আঘাত করেছে এবং কমপক্ষে একজনকে হত্যা করেছে এবং আরও কয়েকজন আহত হয়েছে, ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ইউরোপীয় কাউন্সিলের সভাপতি চার্লস মিশেল ওডেসা পরিদর্শন করার মাত্র কয়েক ঘন্টা পরে এই ধর্মঘটটি ঘটেছিল, যেখানে তিনি আরেকটি হামলার কারণে একটি বোমা আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে বাধ্য হন। তিনি ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ডেনিস শ্যামিহালের সাথে সাক্ষাত করেছিলেন, ইউক্রেনের শস্য রপ্তানি শ্বাসরোধ করার জন্য রাশিয়ার সমালোচনা করেছিলেন যা সারা বিশ্বের মানুষকে খাওয়ায়। ‘আমি শস্য, গম এবং ভুট্টায় ভরা সাইলো দেখেছি রপ্তানির জন্য প্রস্তুত,’ মিশেল একটি বিবৃতিতে বলেছেন, ‘রাশিয়ার যুদ্ধ এবং কৃষ্ণ সাগরের বন্দর অবরোধের কারণে এই খারাপভাবে প্রয়োজনীয় খাদ্য আটকা পড়েছে, যা দুর্বল দেশগুলির জন্য নাটকীয় পরিণতি ঘটাচ্ছে।’
ইউক্রেনের অর্থনীতি এই বছর ৩০ শতাংশ সঙ্কুচিত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে, পুনর্গঠন ও উন্নয়নের জন্য ইউরোপীয় ব্যাংক মঙ্গলবার বলেছে, মাত্র দুই মাস আগে থেকে তার পূর্বাভাস আরও খারাপ করেছে, যখন এটি ২০ শতাংশ সঙ্কুচিত হওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছে। যুদ্ধটি ‘অবকাঠামো এবং উৎপাদন ক্ষমতার ব্যাপক ধ্বংসের সাথে ইউক্রেনের অর্থনীতিকে প্রচুর চাপের মধ্যে ফেলেছে,’ ব্যাংকটি একটি অর্থনৈতিক আপডেটে বলেছে।

ইউক্রেনের ইন্টারনেট স্যাটেলাইট নামিয়ে দিয়েছে রাশিয়া
এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন দাবি করেছে, রাশিয়া ইউক্রেনের স্যাটেলাইট ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে একটি বিশাল সাইবার আক্রমণ চালিয়েছে যা ইউক্রেনে অভিযানের শুরুতেই হাজার হাজার মডেম অফলাইনে নিয়ে গিয়েছিল।

ইইউ কাউন্সিল মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেছে, রাশিয়া ইউক্রেনে আক্রমণ শুরু করার সাথে সাথে ভিয়াসাটের কেএ-স্যাট নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আক্রমণটি ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে পরিচালিত হয়েছিল। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘এই সাইবার আক্রমণটি ইউক্রেনের বেশ কয়েকটি পাবলিক কর্তৃপক্ষ, ব্যবসা এবং ব্যবহারকারীদের মধ্যে নির্বিচারে যোগাযোগ বিভ্রাট এবং ব্যাঘাত সৃষ্টির পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ইইউ সদস্য রাষ্ট্রকে প্রভাবিত করে একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলেছিল।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন যে, সাইবার আক্রমণের উদ্দেশ্য ছিল ‘আক্রমণের সময় ইউক্রেনীয় কমান্ড এবং নিয়ন্ত্রণ ব্যাহত করা এবং এই পদক্ষেপগুলি অন্যান্য ইউরোপীয় দেশগুলিতে ছড়িয়ে পড়ার প্রভাব ফেলেছিল।’ যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দফতরের এক বিবৃতিতে পররাষ্ট্র সচিব লিজ ট্রাসকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, সাইবার হামলাটি ছিল ‘ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রাশিয়ার ইচ্ছাকৃত এবং বিদ্বেষপূর্ণ আক্রমণ’।

ইউক্রেনের ন্যাশনাল সাইবার সিকিউরিটি সেন্টারের উদ্ধৃতি দিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রাশিয়ার প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী, কিন্তু এটি মধ্য ইউরোপের অনলাইন ব্যবসা এবং ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদেরও ব্যাহত করেছে। ইউক্রেনীয় সাইবার নিরাপত্তা কর্মকর্তা ভিক্টর ঝোরা মার্চ মাসে বলেছিলেন যে দূরবর্তী নাশকতার কারণে ‘যুদ্ধের শুরুতে যোগাযোগের বিশাল ক্ষতি হয়েছিল।’

রাশিয়া নিয়মিতভাবে অস্বীকার করে যে তারা আক্রমণাত্মক সাইবার অপারেশন চালায়। পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থাগুলি পূর্বে সম্ভাব্য সাইবার আক্রমণ সম্পর্কে সতর্ক করেছিল যা অন্যত্র ছড়িয়ে পড়ার এবং বিশ্বব্যাপী কম্পিউটার নেটওয়ার্কগুলিতে ‘স্পিলওভার’ ক্ষতির কারণ হতে পারে।

২৪ ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে, যখন রাশিয়ান বাহিনী পূর্ব ইউক্রেনে প্রবেশ করে, হ্যাকাররা ইউক্রেন এবং ইউরোপ জুড়ে কয়েক হাজার স্যাটেলাইট ইন্টারনেট মডেম বিকল করে দেয়। মডেমগুলো হাজার হাজার ইউক্রেনীয়কে ইন্টারনেট সরবরাহ করেছে। এটি সংঘাতের মধ্যে সংঘটিত হওয়া সর্বজনীনভাবে পরিচিত সাইবার আক্রমণগুলির মধ্যে একটি।

১ মার্চ, কিয়েভের টিভি টাওয়ারের বিরুদ্ধে একটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা কিয়েভ-ভিত্তিক মিডিয়াতে ব্যাপক ধ্বংসাত্মক সাইবার আক্রমণের সাথে মিলে যায়। কয়েকদিন পরে, মাইক্রোসফ্ট একটি নামহীন ইউক্রেনীয় পারমাণবিক শক্তি কোম্পানির নেটওয়ার্কে একটি রাশিয়ান গ্রুপ সনাক্ত করেছে, ঠিক যেমন রাশিয়ার সামরিক বাহিনী ইউরোপের বৃহত্তম জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র দখল করেছিল।

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেছেন, ইউক্রেনের যুদ্ধে মস্কো সাইবার ও সামরিক বাহিনীকে একত্রিত করছে। হোয়াইট হাউসের সাইবার সিকিউরিটি কর্মকর্তা অ্যান নিউবার্গার এক সম্মেলনে বলেন, ‘আমরা দেখেছি যে রাশিয়ানরা ইউক্রেনে তাদের উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য শারীরিক এবং সাইবার আক্রমণ ব্যবহার করার জন্য একটি সমন্বিত পদ্ধতির ব্যবহার করছে।’ সূত্র : নিউইয়র্স টাইমস ও আল-জাজিরা।



 

Show all comments
  • Jahidur Rahaman ১২ মে, ২০২২, ৭:৩৭ এএম says : 0
    পশ্চিমাদের আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে রাশিয়ার কুঠারাঘাত। তাই খুব উপভোগ করছি।
    Total Reply(0) Reply
  • Ramesh Chandra Mandol ১২ মে, ২০২২, ৭:৩৮ এএম says : 0
    ঠিক‌ই বলেছেন । যুদ্ধটা করছে বাইডেন। অস্ত্রশস্ত্র বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করছে আর সব দোষ রাশিয়ার উপর চাপাচ্ছে। ঐ ইউক্রেইনীয় ব্যাটার যদি জ্ঞান থাকতো, যে কি সর্বনাশটা হচ্ছে, তাইলে রাশিয়ার সাথে যুদ্ধই করতো না। এখন বুঝবে কয় হাজার বছরে এই ঘাটতি পূরণ হবে
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Juwel ১২ মে, ২০২২, ৭:৩৮ এএম says : 0
    I think putin is right.USA always provoke putin to fight with Ukraine sothat they can boost their armed business in Ukraine. It is a matter of sorrow that joker jelensky doesn't add up yet Ukraine is being made scapegoat in this war.It is high time for the people of Ukraine to boycott joker jelensky as well as USA and stand with Great Russia.
    Total Reply(0) Reply
  • Razib Ahmed ১২ মে, ২০২২, ৭:৩৯ এএম says : 0
    ন্যাটোজোট অনেক দেশের জন্য হুমকি সরূপ তা ইতিহাস দেখলে উপলব্ধি করা যায়। অনেক দেশের স্বস্তির কথা মাথায় রেখে জোট সম্প্রসারণ রূখতে রুশকে সমথর্ন জানানে ভূল কিছু নয়। জোট একঘেয়ামি শাসনতন্ত্র সম্প্রসারণ দূরীভূত হক।
    Total Reply(0) Reply
  • Halel Uddin ১২ মে, ২০২২, ৭:৩৯ এএম says : 0
    আমরা আসা করবো খুব দুরতম সময়ের মধ্যে এ যুদ্ধ বন্ধ হোক
    Total Reply(0) Reply
  • দুরন্ত পথিক ১২ মে, ২০২২, ৭:৪০ এএম says : 0
    ইউরোপীয়ার দেশগুলো আজ আমেরিকার হাতের পুতুল হয়ে গেছে,,,,,তারা ভারতকেও বলেছে ইউরোপের নীতি অনুসরন করতে অর্থাত আমেরিকার বশ্যতা স্বীকার করতে,,,,,আমেরিকার নীতি যে হিটলারের নীতি থেকেও ভয়ংকর তা বোঝার ক্ষমতা ইউ বা জাতিসংঘের নাই
    Total Reply(0) Reply
  • Md Ramjan Ali Palash ১২ মে, ২০২২, ৯:৫৫ পিএম says : 0
    বৃটিশের আড়াইশত বছর বিশ্ব শাসনামলে বাঘে মহিষে একঘাটে পানি খেতে বাধ্য হতো।আজকের আধুনিক বিশ্বে আমেরিকাও ঠিক সেই বৃটিশ রাজত্বের আদলেই বিশ্বকে নিয়ন্ত্রনে রাখতে চায়।তাই, আমি মনে করি আমেরিকার মতো আরো দু'চারটি দেশ সমশক্তিধর হয়ে আবির্ভূত হোক।যাতে কারোরই একাধিপত্য না থাকে।
    Total Reply(0) Reply
  • syed kabir m j ১৪ মে, ২০২২, ৯:২৫ এএম says : 0
    Md Jewel এর সাথে সহমত।
    Total Reply(0) Reply
  • Khondaker Shahjahan ১৬ মে, ২০২২, ৪:২৯ পিএম says : 0
    ইউক্রেনে যুদ্ধের সম্পূর্ণ দায় আমেরিকা ও তার ন্যাটাভুক্ত ইউরোপীয় দেশসমূহ। পৃথিবীতে বর্তমানে ন্যাটো ছাড়া আর কোন সামরিক জোটের অস্তিত্ব নেই। তাহলে আমেরিকার নেতৃত্বে ন্যাটো নামের এই সামরিক জোট থাকা এবং এর আরো সম্প্রসারণের প্রয়োজন কি? প্রয়োজন একটাই আর তা হচ্ছে আমেরিকা কতৃক সারা বিশ্বের অন্যান্য দেশসমূহকে ভয় দেখিয়ে তার ইচ্ছামতো পরিচালনা করা ও আমেরিকার অর্থনৈতিক শোষনের হাতিয়ার বানানো। আমেরিকা সাধারণ কোন দেশ দূরে থাক রাশিয়ার ও চায়নার মতো দেচকেও কোন মূল্য দিতে রাজি নয় এবং কথায় কথায় এদের বিরুদ্ধে নানাহ নিষেধাজ্ঞা জারি করে। পৃথিবীর কোন দেশেরই আমেরিকাকে জি হুজুর না মেনে আত্নসম্মানের সাথে সারভাইভ করা সম্ভব হচ্ছেনা। এর অবসান হওয়া একান্ত প্রয়োজন। ইউক্রেন - রাশিয়া যুদ্ধ আমেরিকার ষড়যন্ত্রের ফসল। আর বৃটিশ হচ্ছে আমেরিকার তল্পিবাহক একটি দেশ যে ইরাক, লিবিয়া ও আফগানিস্তান আক্রমণ ও ধ্বংসযজ্ঞ চালানোতে মদত দিয়েছে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেনে রাশিয়ার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ