Inqilab Logo

শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

চট্টগ্রামের সুবাস লঙ্কায় পৌঁছাতে চান করুনারত্নেরা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ মে, ২০২২, ১২:০১ এএম

অর্থনৈতিক সংকটে জেরবার শ্রীলঙ্কার রাজনৈতিক পরিস্থিতি ভীষণ উত্তপ্ত। বিক্ষোভের মুখে সরে যেতে হয়েছে প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসেকে। নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন রনিল বিক্রমাসিংহে। চলমান সংকটের কূল কিনারা তবু মেলেনি। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এখন প্রতিদিনই নেতিবাচক খবরে শিরোনামে দ্বীপদেশটি। বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে আসা শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে এই পরিস্থিতিতেও খুঁজছেন আশার আলো। তারমতে, ক্রিকেটপ্রিয় জাতি খেলা শুরু হলেই সব নজর নিয়ে আসবে টিভি পর্দায়। সাময়িকভাবে হলেও সরিয়ে রাখবে নিজেদের দুঃসময়।
গত বেশ কয়েকমাস ধরেই সংকট ঘনীভূত হয় শ্রীলঙ্কায়। অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে তৈরি হয় অচলাবস্থা। রাস্তায় নেমে তুমুল বিক্ষোভ শুরু করে সাধারণ মানুষ। সেই বিক্ষোভের তোড়েই পদ ছাড়তে বাধ্য হন রাজাপাকসে। সরকারের নীতির সমালোচনা আসে কুমার সাঙ্গাকারা, মহেলা জয়াবর্ধন, অর্জুনা রানাতুঙ্গার মতো সাবেক তারকাদের কাছ থেকেও। শ্রীলঙ্কা দল যেদিন বাংলাদেশে পা রাখে, তার আগের রাতেই সেদেশে জারি হয় জরুরি অবস্থা। লঙ্কান ক্রিকেটাররা বাংলাদেশে বসেই শুনেন প্রধানমন্ত্রীর বিদায়ের খবর।
গতকাল চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুশীলন সেরে গণমাধ্যমের সামনে হাজির হন করুনারত্নে। স্বাভাবিকভাবেই লঙ্কান অধিনায়ককে খেলার বাইরের এই পরিস্থিতি নিয়েও কথা বলতে হয়। এতে অবশ্য বেশ আশাবাদী শুনালো করুনারত্নের কণ্ঠ। চট্টগ্রামের সমুদ্র পাড় থেকে দেশের মানুষকে তারা দিয়ে চান স্বস্তির সুবাতাস, ‘ক্রিকেট শ্রীলঙ্কায় এক নম্বর খেলা। সবাই এখানে আমাদের সিরিজ জেতার দিকে তাকিয়ে আছে। দেশে যতরকম সমস্যাই হোক, যদি ক্রিকেট খেলা চলে সবাই ক্রিকেটের দিকে মনোযোগ দিয়ে দেয়। ব্যক্তিগতভাবে আমরা সবাই জানি দেশে কি হচ্ছে, আমরা সিরিজ জিতে মানুষকে কিছু আনন্দ দিতে চাই। আমরা এখানে ক্রিকেট খেলতে এসেছি। আমাদের পুরো মনোযোগ খেলাতে আছে। আমরা এই সময়ে ভালো ফল দেশবাসীকে দিতে চাই। এটা নিয়েই ভাবছি।’
টেস্টে বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কাই পরিস্কার ফেভারিট। মুমিনুল হকদের বিপক্ষে সিরিজ জয় তাই স্বাভাবিক প্রত্যাশা করুনারত্নেদের। এই সিরিজ জেতার সঙ্গে তাদের দেশের পরিস্থিতি বদলানোরও সেভাবে সম্পর্ক নেই। কিন্তু সংকটকালে থাকা মানুষকে সাময়িক একটু আনন্দে দিতে যেন বদ্ধ পরিকর লঙ্কান ক্রিকেটাররা। সেটিও জানিয়ে দিলেন করুনারত্নে।
২০১৮ সালে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার সবশেষ টেস্টে তিন ইনিংসেই পেরিয়ে গিয়েছিল পাঁচদিন। দুদল মিলিয়ে এসেছিল ১৫৩৩ রান! বোলারদের জন্য প্রাণহীন সে উইকেট পেয়েছিল ডিমেরিট পয়েন্ট। বছর চারেক পর আরেকটি টেস্টের সামনে তেমন ভিন্ন কিছু দেখছেন না শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। তার কাছে মনে হচ্ছে চট্টগ্রামের বাইশগজ এবারও বোলারদের দেবে কঠিন সময়।
ওই টেস্ট সিরিজের পর বাংলাদেশের মাটিতে আর টেস্ট সিরিজ খেলেনি লঙ্কানরা। এবারের সিরিজের আগেও উইকেট প্রসঙ্গে বারবার পেছনে ফিরছিলেন লঙ্কান অধিনায়ক। সেবার মুমিনুল হকের ১৭৬ রানে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ করেছিল ৫১৩ রান। জবাবে তিন সেঞ্চুরিতে ৭১৩ রান করে ফেলে লঙ্কানরা। দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ আরও ৩০৭ রান করার পর ড্র মেনে নেয় দুদল। গতকাল অনুশীলনে এসেই উইকেট দেখতে যান করুনারত্নে। এরপর সংবাদ সম্মেলনে এসে জানান উইকেটে আছে প্রচুর রান, ‘দেখে মনে হচ্ছে বোলারদের জন্য তেমন কিছু ছাড়া এটা ফ্লাট উইকেট, যেটা বললাম ২০ উইকেট পেতে হলে বোলারদের অনেক চতুর হতে হবে। উইকেট না এলেও চতুরভাবে ভাবতে হবে। আউট অব দ্য বক্স কিছু করতে হবে। এটা সহজ না। অনেক কঠিন পরিশ্রম করতে হবে। পিচ বোলারদের জন্য তেমন কিছু নেই। আপনি যদি অনেক চতুর হতে পারেন তাহলে উইকেট পাওয়া সম্ভব।’
তবে ফ্লাট উইকেটেও সাফল্য পেতে উপায় খুঁজছে লঙ্কানরা। কঠিন অবস্থা থেকে জয় বের করে ঢাকায় ফিরতে চায় তারা, ‘চট্টগ্রামে সাধারণত ফ্লাট উইকেট হয়। কাজেই অনেক রান করে তাদের চাপে রাখতে হবে। গত কয়েক টেস্ট ধরে যেটা হচ্ছে, মনে হচ্ছে এখানে হাজার রান আছে। এটা দেখে মনে হচ্ছে খুব ভাল ফ্লাট উইকেট। কিন্তু নিজেদের হোমওয়ার্ক করতে পারলে ভিন্ন কিছু সম্ভব। আমরা নিজেদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেললে ঢাকায় জয় নিয়ে যেতে পারব।’
সম্ভাব্য একাদশ
দিমুথ করুনারত্নে (অধিনায়ক), ওসাদা ফার্নান্দো, কুশল মেন্ডিস, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, দীনেশ চান্দিমাল/রমেশ মেন্ডিস, নিরোশান ডিকভেলা, লাসিথ এম্বুলদেনিয়া, কাসুন রাজিতা, প্রবিন জয়াবিক্রমা, বিশ্ব ফার্নেন্দো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চট্টগ্রামের সুবাস লঙ্কায় পৌঁছাতে চান করুনারত্নেরা
আরও পড়ুন