Inqilab Logo

শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

একাধিক ম্যাস শুটিংয়ে একই বর্ণবাদী বিশ্বাস

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ মে, ২০২২, ১২:০২ এএম

অনলাইনে পেটন এস গেন্ড্রন যে বিদ্বেষপূর্ণ লেখাটি পোস্ট করেছেন তার ১৮০ পৃষ্ঠার পুরোটাজুড়েই বারবার যা বোঝানো হয়েছে, সেটা হল- শ্বেতাঙ্গ মার্কিনিরা অন্য বর্ণের লোকজনদের দ্বারা প্রতিস্থাপিত হওয়ার ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিশ্বজুড়ে একাধিক ম্যাস শুটিং বা সহিংসতায় জড়িত বন্দুকধারীরা ‘রিপ্লেসমেন্ট থিওরি’ বা ‘প্রতিস্থাপন তত্ত্ব’ নামে পরিচিত এ বর্ণবাদী ধারণার উল্লেখ করেছেন। ধারণাটি একসময় কট্টর ডানপন্থি অংশের মধ্যে জনপ্রিয় ছিল, কিন্তু ক্রমেই এটি যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারায় চলে আসছে; রাজনীতিকদের কথোপকথন এমনকী জনপ্রিয় টেলিভিশন অনুষ্ঠানগুলোতেও এই বর্ণবাদী ধারণা এখন নিয়মিতই আলোচিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস। চরমপন্থি এই ধারণাটি থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই যুক্তরাষ্ট্র ও এর বাইরে একের পর এক হামলার ঘটনা ঘটছে। ২০১৯ সালে ক্যালিফোর্নিয়ায় ইহুদিদের প্রার্থনালয় থেকে একই বছর নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে ৫১ মুসল্লিকে হত্যায় এই ধারণার সংশ্লিষ্টতা মিলবে। টেক্সাসের এল পাসোতে ২০ জনের বেশি মানুষকে হত্যায় অভিযুক্ত এক ব্যক্তির একঘেঁয়ে, ক্লান্তিকর ৪ পৃষ্ঠার লেখায় বর্ণবাদী এই তত্ত্বের প্রসঙ্গ সরাসরি এসেছে। ওই লেখায় অভিযুক্ত তার হামলাকে ‘হিস্পানিকদের টেক্সাস দখলে নেওয়ার’ প্রতিক্রিয়া হিসেবে বর্ণনা করেছেন; হিস্পানিক বা স্পেনিশ ভাষাভাষী গোষ্ঠী যুক্তরাষ্ট্রে ক্রমেই ক্ষমতাশালী হয়ে উঠছে বলে ভয়ও দেখিয়েছেন তিনি। তার আগের বছর পিটসবার্গের ট্রি অব লাইফ সিনাগগে ১১ জনকে হত্যায় অভিযুক্ত বন্দুকধারীও একই বর্ণবাদী ধারণায় বিশ্বাসী, তার দৃষ্টিতে শরণার্থীদের সাহায্য করা একটি ইহুদি সংস্থার সহযোগিতাপ্রাপ্তরা হচ্ছে ‘দখলদার’। বর্ণবাদী এই তত্ত্ব আসে ২০১০ এর দিকে, ফরাসী লেখক রেনোঁ কামুর কাছ থেকে। ‘শ্বেতাঙ্গ বিলুপ্তির আশঙ্কা’ নিয়ে লেখালেখি করে আসা এই লেখকের যুক্তি হচ্ছে, ইউরোপে আসা শরণার্থীদের বেশি সন্তান শ্বেতাঙ্গদের হুমকিতে ফেলছে। কামু অবশ্য শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদীদের সহিংসতা থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন, তার ধারণার ওপর ভিত্তি করে হওয়া হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে সরবও হয়েছেন। তবে ২০১৯ সালে নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারেও তিনি ‘রিপ্লেসমেন্ট থিওরির’ পক্ষেই নিজের দৃঢ় অবস্থান ব্যক্ত করেছেন। অন্যরা শ্বেতাঙ্গদের জায়গা নিয়ে নিচ্ছে, এই ধারণা কট্টর ডানদের অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোতে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে, এমনকী শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীদের আলোচনার ধরনও বদলে দিচ্ছে বলে টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। নিউ ইয়র্ক টাইমস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: একাধিক ম্যাস শুটিংয়ে একই বর্ণবাদী বিশ্বাস
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ