Inqilab Logo

সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

২২০ কোটি টাকা ব্যয়ে সিসিকের ড্রেন, বৃষ্টির পানিতে ডুবছে সিলেট নগরী!

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৭ মে, ২০২২, ৪:০৩ পিএম

টানা কয়েক ঘণ্টা বৃষ্টি হলেই সিলেট নগরীর বিভিন্ন সড়ক ও অলি-গলি তলিয়ে যায়। রাস্তা মাড়িয়ে পানি ঢুকে বাসাবাড়ি, অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে মহানগরী এলাকায় ২০১২ সালে প্রায় ১১ শ কিলোমিটার ড্রেন সংস্কারের কাজ শুরু করে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক)। সিসিকের দাবি অনুযায়ী- ৩ শ কোটি টাকার এ প্রকল্পের কাজ প্রায় ৭৫ ভাগ শেষ হয়েছে। তবে ৯ বছরের বেশি সময় ধরে ড্রেনের সংস্কার কাজ চললেও নগরবাসী পাচ্ছেন না এর সুফল। অব্স্থা আগের মতোই। কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায় নগরীর রাস্তা-ঘাট, হাটু থেকে কোমর পানি জমে বিভিন্ন এলাকার বাসাবাড়ি- দোকানপাটে। চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় জলমগ্ন নগরবাসীকে। তবে সিসিকের দাবি, ড্রেনেজ সংস্কার কাজ শতভাগ শেষ হয়ে গেলে আর এমন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে না। উন্নয়নের সুফল পাবেন নগরবাসী। কিন্তু সচেতন মহল মনে করছেন প্রকল্পবাজী করেই ড্রেনেজের টাকা লোপাট করা হয়েছে সিসিকের। এর সাথে জড়িত একটি ঠিকাদারী সিন্ডিকেট সহ সিসিক সংশ্লিষ্টরা।

সিলেটে গত সপ্তাহের মঙ্গলবার রাতে শুরু হয় ভারি বৃষ্টিপাত। সে বৃষ্টি এখন পর্যন্ত চলমান। বুধবার থেকেই নগরীর বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে পানিবদ্ধতা। আজ (১৭ মে) দিন পর্যন্ত নামেনি সেই পানি নামেনি। গত তিনদিন ধরে সিলেটে বৃষ্টি অনেকটা কম হলেও উন্নতি হয়নি পরিস্থিতির। বরং আজ নগরীর নিচু এলাকাগুলোতে পানি বেড়েছে বলে ভুক্তভোগিদের দাবি। তারা বলছেন- সুরমা নদীর পার উপচে পানি ঢুকছে নগরীর বিভিন্ন এলাকায়। বাসাবাড়ি, ব্যবসা প্রতষ্ঠিান ও অনেক অফিসে পানি ঢুকে পড়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন নগরবাসী।

নগরবাসী বলছেন- গত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর পানিবদ্ধতা বেশি হচ্ছে সিলেট নগরীতের। সেই সাথে ড্রেনেজ ্ও পানি নিষ্পাষনের কাজ্ও বেশি হচ্ছে সিলেটে। মনে হবে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে সিলেট নগরী। বাস্তবে ভারী বৃষ্টিতে ভোগান্তিতেই পড়ছে নগরবাসী। এ পরিস্থিতির জন্য সুরমা নদীর নাব্যতা হারানো, নগরীর পানি নিষ্কাশনের বিভিন্ন রাস্তার মুখে মাটি ভরাট এবং সর্বোপরি সিসিকের অপরিকল্পিত উন্নয়নকে দায়ী করছেন ভুক্তভোগী ও সচেতন নগরবাসী। পানিবদ্ধতায় আটকা পড়া নগরীর এলাকাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- শাহজালাল উপশহর, সোবহানিঘাট, কালীঘাট, ছড়ারপাড়, শেখঘাট, তালতলা, মাছিমপুর, পাঠানটুলা, লন্ডনি রোড, সাগরদিঘির পাড়, সুবিদবাজার, শিবগঞ্জ, মেজরটিলা, মদিনা মার্কেট, দক্ষিণ সুরমার বঙ্গবীর রোড, মোমিনখলা, কুশিয়াঘাট।
সিলেটের জকিগঞ্জে ভারত থেকে নেমে আসা বরাক মোহনা থেকে সুরমা নদীর উৎপত্তি। বর্ষায় বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সহজেই টইটুম্বুর হয় নদীটি। দুকোল উপচে পানি গড়ায় তীরবর্তী জমি ও জনবসতিতে। একই কারণে সিলেট নগরীতে ঢুকে সুরমা উপচানো পানি। সুরমার প্রকট নাব্য সংকট চোখে পড়ে শীত মৌসুমে। যে নদী দিয়ে একসময় জাহাজ চলতো। সেই সুরমার বুকে শুষ্ক মৌসুমে বাচ্চারা খেলাধুলা করে। একাধিক জায়গায় সুরমার বুকে জেগে বালুচার। সবুজ ঘাসে গরু চরান রাখালরা। আবার কোথাও ছেলেরা হাত দিয়ে পানি সেচে মাছ ধরে। সুরমা খননে ২০১২ সালে পানি উন্নয়ন বোর্ড, সিলেট থেকে একটি প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। এরপর নদী খননে সমীক্ষা চালানো হয়। সমীক্ষার পর নদী খননে উদ্যোগ নেয়ার কথা সে সময় মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল। এরপর এ ব্যাপারে আর উদ্যোগ নেয়া হয়নি। ২০১৭ সালে ফের সুরমা নদী খননের জন্য সমীক্ষা চালানো হয়। তবে এখন পর্যন্ত এ সমীক্ষা প্রতিবেদনও আলোর মুখ দেখেনি। অবশ্য ২০১৮ সালে সিলেট সদর উপজেলার কানিশাইলে ৬০০ মিটার সুরমা নদী খনন করা হয়। এ সময় সিলেট সদর উপজেলা এবং কানাইঘাট উপজেলার কয়েকটি অংশে নদী খননের জন্য প্রস্তাবনা পেশ করা হয়। কিন্তু তা এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে নদীটির উৎসমুখের ৩২ কিলোমিটারে ৩৫টি জায়গাসহ বিভিন্ন স্থানে পলি জমে ভরাট হয়ে পড়েছে তলদেশ। এ অবস্থায় এ নদীর খনন ছাড়া সিলেট নগরীর সুরমা তীরবর্তী এলাকাগুলোতে বর্ষা মৌসুমে পানিবদ্ধতার স্থায়ী সমাধান হবে না বলে সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য।
নগরীর পানি নিষ্কাশনের বিভিন্ন রাস্তার মুখে মাটি ভরাট করে বাসাবাড়ি ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। যার ফলে বৃষ্টির পানি দ্রুত ড্রেনে গিয়ে পড়লে ড্রেন থেকে সুরমা বা বিভিন্ন খাল-ছড়ায় গিয়ে পড়ে না। ফলে বৃষ্টির পর নগরীর বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতা দীর্ঘস্থায়ী হয়।
সিলেটের সিনিয়র আইনজীবী মোহাম্মদ তাজ উদ্দিন বলেন, ‘নগরীতের জলাবদ্ধতা সিসিকের অপরিকল্পিত উন্নয়নেরই বহিপ্রকাশ। নগরীর ২৫ ও ২৬ নং ওয়ার্ডের মোমিনখলা ও আশপাশের এলাকা যদি দেখেন- ফেঞ্চুগঞ্জ রোড ও রেললাইনের মধ্যবর্তী এলাকায় একটি মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ মাটি ভরাট করায় অল্প বৃষ্টিতেই জলমগ্ন হয়ে ওই এলাকা। বাইপাস সড়কের উত্তরদিকে মাটি ভরাট করায় জলমগ্ন রেল লাইনের পশ্চিম দিক। একইভাবে, পশ্চিম মোমিনখলা সড়কে হাটুপানি। বঙ্গবীর রোডের দিকে ড্রেইনের সংযোগ না থাকায় পানিতে নিমজ্জিত হয় কায়েস্থরাইল এলাকার ৩টি পোস্ট অফিস। গত বছর সিসিক মেয়র মহোদয় সরেজমিন পরিদর্শন করে এখানে ড্রেন নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর অপরিকল্পিত উন্নয়নের ফলে ওই এলাকায় চরম ভোগান্তির জলাবদ্ধতার সমাধান আর হয় না। দুর্ভাগ্য আমাদের, হোল্ডিং ট্যাক্স না দিলে অভিযান হয়। কিন্তু পানিতে হাবুডুবু খেলেও নগর কর্তৃপক্ষ দেখতে আসে না।’

তিনি বলেন, একই অবস্থা নদীর উত্তর পারবর্তী শাহজালাল উপহশরের। পুরো উপশহরের পানি বিভিন্ন ছড়া-খাল দিয়ে প্রবাহিত হয়ে শাহপরাণ এলাকায় গিয়ে পড়তো। কিন্তু পানি নিষ্কাশনের পথিমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় মাটি ভরাট করে বাসাবাড়িসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে। বিষয়টি দেখার দায়িত্ব সিসিকের। কিন্তু এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করে না সিসিক।
সিসিক সূত্রে জানা গেছে, মহানগরী এলাকায় প্রায় ১১ শ কিলোমিটার ড্রেনের মধ্যে নগরীর প্রধান প্রধান সড়কের পাশের ড্রেন হচ্ছে ৫৫০ কিলোমিটার। ইতোমধ্যে যার ৭০-৭৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে ২২০ কোটি টাকা। বাকি কাজ শেষ করতে আরো ৯০ কোটি টাকা বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। গত বছরের জুন মাসে এসব কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও চলতি বছরের জুন পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে।

পানিবদ্ধতা নিরসনে স্থায়ী সমাধানের জন্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ দরকার মন্তব্য করে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘সিটি করপোরেশন বক্স কালভার্ট নির্মাণ করছে আর বিশেষজ্ঞরা এতে মানা করছেন। তা হলে তারা কার পরামর্শে কাজ করেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘এখন প্রশ্ন হলো, ৫২৩ কোটি টাকা ব্যয়ের পরও আমরা সুফল পাচ্ছি না কেন? জনগণের টাকার অপচয় না করে স্থায়ী সমাধানের জন্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী সুরমা নদীর তলদেশ খননের ব্যবস্থা নেওয়া হোক।’ এ বিষয়ে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান বলেন, ‘চলমান ড্রেনের সংস্কার কাজ ৭০-৭৫ ভাগ শেষ হয়েছে। শতভাগ কাজ সম্পন্ন হলে আর এ সমস্যা থাকবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্যা পরিস্থিতি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ