Inqilab Logo

রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

সৈয়দপুরে শর্ত মেনে কিনতে হচ্ছে সয়াবিন তেল

সৈয়দপুর (নীলফামারী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৮ মে, ২০২২, ১০:২০ এএম

নীলফামারী সৈয়দপুরে প্রতি লিটার বোতলজাত তেলের সঙ্গে প্রয়োজন না হলেও ১ থেকে ২ কেজি অন্য পণ্য নিতে বাধ্য করছে দোকানিরা। কোথাও আবার সরিষার তেল কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে। বাড়তি পণ্য কেনার শর্তে বিক্রেতা উচ্চ মূল্যে সয়াবিন তেল বিক্রি করছেন। ক্রেতার অন্য পণ্য প্রয়োজন না থাকা সত্তেও বাধ্যতামূলক কিনতে হচ্ছে। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে দাবী উঠেছে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার।

আজ বুধবার (১৮ মে) সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়,বেশ কিছু দোকানে পর্যাপ্ত তেল মজুদ থাকলেও তেলের সঙ্গে অন্য পণ্য কেনার শর্ত জুড়ে দিচ্ছেন দোকানিরা। অন্যথায় তেল না বিক্রি করার কথা সাফ জানিয়ে দেন। এমনটি জানান বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের ক্রেতা রশিদ। শহরের বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেছে একই চিত্র। তাই জন সাধারনের দাবী সারা দেশের মত সৈয়দপুরেও তেলের গোডাউনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হোক।
এ বিষয়ে খুচরা বিক্রেতারা বলেন, কিছুদিন ধরে বাজারজাতকারী কোম্পানিগুলো চাহিদা অনুযায়ী তেল সরবরাহ না করায় সয়াবিন তেলের এ সংকট তৈরি হয়েছে। অধিকাংশ দোকানে সয়াবিন তেল নেই। ক্রেতারা তেলের জন্য এক দোকান থেকে আরেক দোকানে ঘুরছেন।

বিক্রেতারা জানান, সয়াবিন তেল বাজারজাতকারী কোম্পানিগুলো গত এক সপ্তাহ দোকানে তেল সরবরাহ করেনি। এ জন্য দোকানে তেল ফুরিয়ে গেছে। বিক্রয় প্রতিনিধিদের অনেক অনুরোধের পর মাত্র পাঁচ কার্টুন তেল দিয়ে গেছে। তাও শর্ত সাপেক্ষে।বিক্রেতারা বলেন, শর্তমতে একটি কোম্পানির তেলের সঙ্গে মরিচের গুঁড়ার প্যাকেট নিতে হয়েছে। আরেকটি কোম্পানির তেলের সঙ্গে বাধ্যতামূলক চা পাতার প্যাকেট নিতে হয়েছে।
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের নীলফামারীর উপ-সহকারী পরিচালক শফিউল আলম জানান, বাজারে অভিযান পরিচালনা করা হবে। যারা সয়াবিন তেল গুদামজাত করে রেখে কৃত্রিম সংকটের সৃষ্টি করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ