Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

সনদনির্ভর নয়, নৌপরিবহন সেক্টরে প্রশিক্ষণনির্ভর শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে : প্রতিমন্ত্রী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০২২, ৯:২৩ পিএম

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, নৌপরিবহন সেক্টরে সার্টিফিকেট নির্ভর শিক্ষা চলে না, প্রশিক্ষণ নির্ভর শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। বিনা প্রশিক্ষণে ভুয়া সার্টিফিকেট নিয়ে নৌ পরিবহন সেক্টরে কেউ যুক্ত হলে তার খেসারত দিতে হয় হাজার মানুষকে। আজ বৃহস্পতিবার (১৯ মে) বিকেলে ঢাকায় সদরঘাট নৌবন্দরে এমভি সুন্দরবন-১০ লঞ্চে নৌ নিরাপত্তা সপ্তাহ-২০২২ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নৌ পরিবহন সেক্টরে বাজেট বৃদ্ধির দাবি বিবেচনা করা হবে। তবে বাজেটের অর্থ ব্যবহারের সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। ২০২৩ সালের মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরে বে-টার্মিনালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হবে। ২০২৩ সালের মধ্যে মোংলা ও চট্টগ্রাম বন্দরের মত সমান সক্ষমতা নিয়ে পায়রা সমুদ্র বন্দর উদ্বোধন করা হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশের সমুদ্র, নদ-নদী, নৌপথ এবং নৌপরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের প্রথম পথপ্রদর্শক। নৌপরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের কঠিন কাজে প্রধানমন্ত্রী নিজেই নেতৃত্ব দিচ্ছেন। হারিয়ে যাওয়া নৌপথ উদ্ধার ড্রেজার সংগ্রহের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। নৌপথের নাব্যতা বজায় রাখার লক্ষ্যে স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সাতটি ড্রেজার সংগ্রহ করেছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আর কোনো ড্রেজার সংগ্রহের উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকার এ পর্যন্ত ৪০টি ড্রেজার সংগ্রহ করেছে। আরও ৩৫টি ড্রেজার সংগ্রহের কাজ চলমান রয়েছে।

উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় নৌ-শিল্পের বিকাশে বর্তমান সরকার বাজেটে যথেষ্ট অর্থ বরাদ্দ দিয়েছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, নিরাপদ নৌযান নির্মাণ ও নৌযানে আধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজন করে নৌপথের যাত্রীদের মধ্যে আমরা আস্থা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। মানসম্মত নৌযান নির্মাণ এবং মেরামতের জন্য যথাযথ ডকইয়ার্ড বা শিপইয়ার্ড নিশ্চিতকরণ ও অভ্যন্তরীণ জাহাজে রিভারসিবল গিয়ার সংযোজন করে দুর্ঘটনা অনেকাংশে হ্রাস করা হয়েছে। বিভিন্ন সমস্যা এবং সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও আগের চেয়ে নৌপথ এখন অনেক বেশি নিরাপদ এবং পরিবেশবান্ধব। নৌযান মালিক ও শ্রমিকদের সর্বাত্মক সহযোগিতা, বিআইডব্লিউটিএ, নৌপরিবহন অধিদপ্তর, নৌ পুলিশ ও কোস্টগার্ড কর্মকর্তাদের পদক্ষেপ এবং জনসাধারণের সচেতনতা ও সহযোগিতা বৃদ্ধির ফলে যাত্রীবাহী নৌযানের দুর্ঘটনা অনেক কমে এসেছে।

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর এ জেড এম আলাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান আহমেদ শামীম আল রাজী, বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল (যাপ) সংস্থার সাবেক প্রধান উপদেষ্টা গোলাম কিবরিয়া টিপু, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ট্যাংকার ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি খন্দকার মশিউজ্জামান (রোমেল), বাংলাদেশ কার্গো ভেসেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল হক।

‘প্রশিক্ষিত জনবল ও নিরাপদ জলযান, নৌ নিরাপত্তায় রাখবে অবদান’ -এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে আজ থেকে দেশব্যাপী নৌ নিরাপত্তা সপ্তাহ-২০২২ শুরু হয়েছে। নৌপথে চলাচলরত নৌযান ও নৌযানে চলাচলকারী যাত্রীসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে এবং নৌপথকে দূষণমুক্ত রাখার উদ্দেশ্যে সংশ্লিষ্ট সবাইকে উদ্বুদ্ধকরণের জন্য প্রতিবছর নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে নৌপরিবহন অধিদপ্তরের উদ্যোগে নৌ নিরাপত্তা সপ্তাহ পালন করা হয়ে থাকে। ১০টি জাহাজ দিয়ে সদরঘাট থেকে মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত নৌ শোভাযাত্রা পরিচালনা করা হয় এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ