Inqilab Logo

রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

ডনবাসে ভয়ঙ্কর ‘টার্মিনেটর’ যান মোতায়েন রাশিয়ার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ মে, ২০২২, ১২:০২ এএম | আপডেট : ১২:২১ এএম, ২০ মে, ২০২২

রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট পুতিন ইউক্রেন অভিযানে তার বিখ্যাত বিএমপিটি ট্যাঙ্ক সাপোর্ট ভেহিকেল মোতয়েন করলেন। এটির অবিনশ্বরতার কারণে এটিকে ‘টার্মিনেটর’ নামে ডাকা হয়। এটি ডনবাসের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রুশ সেনাদের সাহায্য করবে।

চারটি অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল লঞ্চার, দুটি ৩০ মিলিমিটার কামান, দুটি গ্রেনেড লঞ্চার, একটি মেশিনগান দিয়ে সজ্জিত এই গাড়িটির সর্বোচ্চ গতি ঘন্টায় ৩৬ কিলোমিটার। এর অস্ত্রের বিভিন্ন বিন্যাস টার্মিনেটরকে ট্যাঙ্ক, পদাতিক বাহিনী, সেইসাথে হেলিকপ্টার এবং কম উড়ন্ত বিমান পর্যন্ত লক্ষ্যবস্তু ধ্বংস করতে দেয়। এটি ট্যাঙ্কের মতোই দূর্ভেদ্য, আবার একটি সম্প‚র্ণ-ট্র্যাকের মতোই গতিশীল। রাশিয়ার যুদ্ধ-পন্থী প্রতীক ‘ভি’ অক্ষরটি ধারণ করা যানবাহনগুলো ডনবাস আক্রমণের প্রথম সারির শহর সেভেরোডোনেটস্কে মস্কোর ৯০ তম ট্যাঙ্ক বিভাগ দ্বারা চালিত হয়েছিল।

কেন এটি এখন পর্যন্ত মোতায়েন করা হয়নি তা স্পষ্ট নয়, তবে মনে করা হয় যে, রাশিয়া ইউক্রেন অভিযানে নিজেদের শক্তিমত্তা পুরোপুরি প্রকাশ করতে রাজি নয়। এছাড়া তারা ইউক্রেনীয় সেনাদের কাছে নিজেদের মূল্যবান কোন অস্ত্র হারানোর ঝুঁকি নিতেও চাচ্ছে না। যার ফলে এখন অবধি রাশিয়া তাদের অত্যাধুনিক বিমান কিংবা শক্তিশালী ও আধুনিক ট্যাঙ্ক বহর নিয়োগ করেনি। তার বদলে রাশিয়া ইউক্রেন অভিযানে তাদের দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আমলের অস্ত্র ও ট্যাঙ্কই ব্যবহার করেছে, যেগুলো তারা কিছুদিন পরে এমনিতেই বাতিল করে দিত।
তবে মারিউপোল জয়ের মাধ্যমে পুরো ডনবাস এলাকা পদানত হওয়ার পর রাশিয়া এখন সেখানকার নিরাপত্তার জন্য তাদের সর্বাধুনিক ও শক্তিশালী কিছু অস্ত্র সেখানে মোতায়েন করছে। সম্প্রতি মস্কো একটি নতুন লেজার অস্ত্র উন্মোচন করেছে যেটি পাঁচ সেকেন্ডের মধ্যে পৃথিবীর ১ হাজার ৫০০০ কিলোমিটার উপরে উপগ্রহ ধ্বংস করতে পারে। পেরেসভেট লেজার সিস্টেমটি ক্রেমলিনের ‘প্রকাশিত’ অস্ত্রের একটি দীর্ঘ লাইনের মধ্যে সাম্প্রতিকতম, যার অনেকগুলি গবেষণা পরীক্ষাগারের বাইরে আর কখনও দেখা যায় না।

ড্রোন এবং অন্যান্য বিমান ধ্বংস করার জন্য ডিজাইন করা সিস্টেমটি, ভøাদিমির পুতিন ২০১৮ সালে প্রথম ঘোষণা করেছিলেন কিন্তু সামরিক ইউনিটগুলিতে কখনও জারি করা হয়নি। যাইহোক, বুধবার ইউরি বোরিসভ, রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী এবং সামরিক উন্নয়নের দায়িত্বে থাকা ক্রেমলিনের কর্মকর্তা, মস্কোতে একটি সম্মেলনে বলেছেন যে, পেরেসভেট ব্যাপকভাবে মোতায়েন করা হচ্ছে এবং এটি ১,৫০০ কিলোমিটার উচ্চতা পর্যন্ত স্যাটেলাইট বিকল করতে পারে।

রাশিয়া সামরিক প্রযুক্তি সম্পর্কে দুর্দান্ত ঘোষণা করার জন্য পরিচিত টি-১৪ আরমাটা ট্যাঙ্ক, ২০১৫ সালে মস্কোর বিজয় দিবসের কুচকাওয়াজে প্রথম দেখা গিয়েছিল এবং একে বিশ্বের সেরা বলে মনে করা হয়। তবে এটি কখনই ইউক্রেনে মোতায়েন করা হয়নি। সূত্র : দ্য টেলিগ্রাফ।

 

 

 



 

Show all comments
  • আলিফ ২০ মে, ২০২২, ৪:৪৮ এএম says : 0
    রাশিয়া ইউক্রেন অভিযানে নিজেদের শক্তিমত্তা পুরোপুরি প্রকাশ করতে রাজি নয়। কারণ তারা জানে এমনিতেই তারা জয়ী হয়ে যাবে
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২০ মে, ২০২২, ৪:৫০ এএম says : 0
    রাশিয়া সামরিক প্রযুক্তি সম্পর্কে দুর্দান্ত ঘোষণা করার জন্য পরিচিত টি-১৪ আরমাটা ট্যাঙ্ক, ২০১৫ সালে মস্কোর বিজয় দিবসের কুচকাওয়াজে প্রথম দেখা গিয়েছিল এবং একে বিশ্বের সেরা বলে মনে করা হয়। তবে এটি কখনই ইউক্রেনে মোতায়েন করা হয়নি। কারণ তার ইউক্রেনকে শক্রিশালী মনে করছে না। রাশিয়া মনে করে স্বাভাবিক যে মাত্রাই তারা যুদ্ধ চালাইতেছে, এতেই তারা জয়ী হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • আহমদ ২০ মে, ২০২২, ৪:৫৩ এএম says : 0
    রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট পুতিন ইউক্রেন অভিযানে তার বিখ্যাত বিএমপিটি ট্যাঙ্ক সাপোর্ট ভেহিকেল মোতয়েন করলেন। এটির অবিনশ্বরতার কারণে এটিকে ‘টার্মিনেটর’ নামে ডাকা হয়। এটি ডনবাসের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রুশ সেনাদের সাহায্য করবে। ফলে এর কারণে রুশ সেনাদের আরো মনোবল জোগাবে। তারা এটাও জানে এ যুদ্ধে তারাই জয়ী হবে। তবে, যুদ্ধ থামালে সারা বিশ্বের জন্য লাভ হবে। কারণ ইতোমধ্যেই বিশ্বের অর্থনীতি খারাপ যাচ্ছে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ