Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯, ২৯ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

নিষেধাজ্ঞা তুললে বিশ্বে খাবারের চাহিদা মেটাতে পারে রাশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ মে, ২০২২, ৩:২২ পিএম

রাশিয়া নভোরোসিয়েস্ক বন্দরের মাধ্যমে ১ আগস্ট থেকে শুরু করে এবং এই বছরের শেষ পর্যন্ত ২৫ মিলিয়ন বা আড়াই কোটি টন শস্য রপ্তানি করার সক্ষমতা পারে। বৃহস্পতিবার দ্বন্দ্ব এবং খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া এ তথ্য জানিয়েছেন।

জাতিসংঘ সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযানের কারণে সামনের মাসগুলোতে বৈশ্বিক খাদ্য সঙ্কট তৈরি হতে পারে। সংস্থাটির মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, এই যুদ্ধের কারণে দাম বৃদ্ধি পাওয়াতে দরিদ্র দেশগুলোতে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গেছে। তার আশঙ্কা, শেষ পর্যন্ত ইউক্রেন থেকে রপ্তানি স্বাভাবিক না হলে বিশ্ব দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হতে পারে। এর কারণে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞাকে দায়ি করেছে রাশিয়া।

নেবেনজিয়ার মতে, রাশিয়া ‘খাদ্য এবং জ্বালানির একটি দায়িত্বশীল সরবরাহকারী হিসাবে অবিরত রয়েছে।’ ‘এ বছর, আমরা রেকর্ড উচ্চ গমের ফলন আশা করছি। এই বিষয়ে, আমরা ২৫ মিলিয়ন টন শস্য রপ্তানির জন্য অফার করতে পারি নোভোরোসিস্ক বন্দর থেকে ১ আগস্ট থেকে শুরু করে এবং এই বছরের শেষ পর্যন্ত," দূত বলেন।

‘আমরা অন্যান্য ক্রয় নিয়েও আলোচনা করতে পারি, যার মধ্যে বিবেচনা করা যেতে পারে যে, জুন থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে সম্ভাব্য সার রপ্তানি কমপক্ষে ২২ মিলিয়ন টন দাঁড়াবে। কিন্তু, যদি আপনার নিজের উদ্যোগে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলি প্রত্যাহার করার কোন ইচ্ছা না থাকে, তাহলে কেন আপনি আমাদের দোষারোপ করছেন? কেন আপনার দায়িত্বজ্ঞানহীন ভূ-রাজনৈতিক খেলার কারণে দরিদ্রতম দেশ এবং অঞ্চলগুলিকে ক্ষতিগ্রস্থ হতে হবে?’ পশ্চিমা রাষ্ট্রগুলোর প্রতিনিধিদের উদ্দেশে কূটনীতিক বলেন।

নেবেনজিয়া বলেছিলেন যে ইউক্রেনের বন্দরগুলি থেকে শস্য রপ্তানি বন্ধ করা হয়েছে ইউক্রেনের পদক্ষেপের কারণে, রাশিয়া নয়। ‘আপনি দাবি করছেন যে আমরা ইউক্রেন থেকে সমুদ্রপথে কৃষি পণ্য রপ্তানির সম্ভাবনাকে বাধা দিচ্ছি,’ তিনি জাতিসংঘের খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বলেছিলেন, ‘তবে, সত্য হল যে এটি ইউক্রেন, রাশিয়া নয়, যারা নিকোলায়েভ, খেরসন, চেরনোমর্স্ক, মারিউপোল, ওচাকভ, ওডেসা এবং ইউঝনি বন্দরে ১৭ দেশের ৭৫টি বিদেশী জাহাজ অবরুদ্ধ করেছে এবং সমুদ্রপথে মাইল ছড়িয়ে রেখেছে।’

রপ্তানিকৃত ইউক্রেনীয় শস্য প্রয়োজনীয় দেশগুলিতে যায় না, তবে ইইউ স্টোরে লোড করা হচ্ছে - সম্ভবত অস্ত্র চালানের জন্য অর্থপ্রদান হিসাবে, নেবেনজিয়া বলেছেন। ‘একটি যৌক্তিক প্রশ্ন উঠেছে, এই চালানগুলি (ইউক্রেনীয় শস্যের) কোথায় যায়? বিশ্বে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার সাথে তাদের কী করার আছে?’ তিনি বলেন, ‘আমরা এই সন্দেহের ন্যায্যতা প্রকাশ করেছি যে শস্য বিশ্বব্যাপী দক্ষিণে সাহায্য করতে যাচ্ছে না, তবে ইউরোপীয় দেশগুলির শস্য ভাণ্ডারে লোড করা হচ্ছে। যেমন আমরা বুঝতে পারি, এইভাবে ইউক্রেন পশ্চিমাদের দ্বারা পাঠানো অস্ত্রের জন্য অর্থ প্রদান করে।’ সূত্র: তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন