Inqilab Logo

সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ফের পাকিস্তানের মুখে কাশ্মীর, ক্ষুব্ধ দিল্লি

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০২২, ৮:৩৯ পিএম | আপডেট : ৮:৫৯ পিএম, ২১ মে, ২০২২

তিন দিন আগেই জম্মু ও কাশ্মীরের সীমানা পুনর্বিন্যাস করার বিরুদ্ধে পাকিস্তানের সংসদে গৃহীত প্রস্তাব নিয়ে নয়াদিল্লিতে ক্ষোভ জানিয়েছে ভারত। শাহবাজ শরিফের ইনিংস শুরু হওয়ার পরেই এটা স্পষ্ট যে, কাশ্মীরকে আবার আলোচনার টেবলে নিয়ে আসতে চাইছে ইসলামাবাদ। আর পাকিস্তান সেই প্রয়াস শুরু করলে ভারত প্রতিক্রিয়া জানাতে বাধ্য।

সেই ধারাবাহিকতা রেখেই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের একটি আলোচনাতেও কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে ভারত-পাকিস্তানের বাগ্‌যুদ্ধ দেখা গেল। শুক্রবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি জাতিসংঘে ফের জম্মু-কাশ্মীর, ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার এবং উপত্যকার সীমান্ত পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত ভারতীয় উদ্যোগ নিয়ে সরব হয়েছেন। পাল্টা তোপ দেগে জানিয়ে ভারত বলেছে, পাকিস্তানের এই আচরণ, ‘পাভলভের’ বিখ্যাত সেই সারমেয়র উপরে করা পরীক্ষায় পাওয়া প্রতিক্রিয়ার মতোই!

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদে দায়িত্ব নিয়েই ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বের বার্তা দিয়েছিলেন শাহবাজ। কিন্তু কিছু দিনের মধ্যেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে, নেতৃত্বে যেই থাকুন, ইসলামাবাদের সঙ্গে সম্পর্কে বিন্দুমাত্র বদল হওয়ার কোনও সম্ভাবনাই নেই। পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচীর বক্তব্য, “এটি দুঃখজনক, নিজেদের ঘর সামলানোর বদলে পাকিস্তান ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে চলেছে। ভিত্তিহীন এবং উস্কানিমূলক ভারত-বিরোধী প্রচারে তারা লিপ্ত।”

অন্য দিকে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার প্রথম আমেরিকা সফরে এসেই কাশ্মীর নিয়ে সরব হয়েছেন। নিউ ইয়র্কে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বিলাওয়াল বলেছেন, “ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিষয়টি অনেকটাই জটিল। প্রথমে ২০১৯ সালের অগস্ট মাসে ৩৭০ ধারার প্রত্যাহার, তার পরে জম্মু ও কাশ্মীরের সীমানা পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত রিপোর্ট তৈরি করা, কাশ্মীর নিয়ে তাদের সাম্প্রতিক পদক্ষেপগুলি জটিলতা আরও বাড়িয়েছে।” সূত্র: টাইমস নাউ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ক্ষুব্ধ দিল্লি
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ