Inqilab Logo

রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

ইউক্রেন অভিযানে মূখ্য ভূমিকা পালনকারী রাশিয়ান হেলিকপ্টার উন্মোচন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

রাশিয়ার অত্যাধুনিক কামোভ কেএ-৫২ ‘অ্যালিগেটর’ স্কাউট/অ্যাটাক হেলিকপ্টারগুলো ইউক্রেনে মস্কোর বিশেষ অভিযানে মুখ্য ভূমিকা পালন করছে। হেলিরুশিয়া-২০২২ প্রদর্শনীতে রোসোবোরোন এক্সপোর্ট রাজ্যের অস্ত্র বিক্রেতা প্রধান আলেকজান্ডার মিখিয়েভের গত শুক্রবার একথা বলেছেন।

প্রধান নির্বাহী বলেছেন, ‘আমরা ইউক্রেনের বিশেষ সামরিক অভিযানে আমাদের যুদ্ধের হার্ডওয়্যার ব্যবহারের ওপর ঘনিষ্ঠ নজর রাখছি। কেএ-৫২ এবং এমআই-২৮এন সামরিক হেলিকপ্টার এবং এমআই-৮এএমটিএসএইচ রোটারক্রাফ্টের এমআই-১৭১এসএইচ রফতানি সংস্করণ সফলভাবে নিযুক্ত করা হচ্ছে। আর্মি এভিয়েশন টাস্কফোর্সে নেতৃস্থানীয় ভূমিকা কেএ-৫২ কমব্যাট রিকনেসান্স/স্ট্রাইক হেলিকপ্টারে পরিচালিত হয় যেগুলো যুদ্ধ এবং যুদ্ধযান পরিবাহী হেলিকপ্টারগুলোর কৌশলগত গ্রুপের অগ্রগামী’।

রাশিয়ার কেএ-৫২ গানশিপগুলো তাদের বর্ধিত পাওয়ার-টু-ওজন অনুপাত, চালচলন, কর্মক্ষমতা এবং অপারেশনাল বৈশিষ্ট্য, অনবোর্ড রেডিও-ইলেক্ট্রনিক সরঞ্জাম, শক্তিশালী অস্ত্র, একটি প্রতিরক্ষামূলক সহায়ক স্যুট এবং শক্তিশালী আর্মার সুরক্ষার জন্য দুর্দান্ত দক্ষতা অর্জন করেছে, তিনি বিশদভাবে বলেছেন।

কেএ-৫২ ‘অ্যালিগেটর’ রিকনাইস্যান্স/অ্যাটাক হেলিকপ্টারটি যেকোনো আবহাওয়ার পরিস্থিতিতে এবং দিন বা রাতের যে কোনো সময়ে ট্যাঙ্ক, সাঁজোয়া এবং নিরস্ত্র যান, জনশক্তি, রোটারক্রাফ্ট এবং অন্যান্য শত্রু বিমানকে ফ্রন্টলাইনে এবং কৌশলগত গভীরতায় ধ্বংস করার জন্য মনোনীত করা হয়েছে।

‘অ্যালিগেটর’ আধুনিক এভিওনিক্স এবং শক্তিশালী অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে সজ্জিত যেখানে এর সমাক্ষীয় রটার সিস্টেম এবং বর্ধিত অনুদৈর্ঘ্য নিয়ন্ত্রণ এটিকে কার্যকরভাবে চালচলন এবং জটিল অ্যারোবেটিক অপারেশন করতে সক্ষম করে। কেএ-৫২ তার ক্রুদের জন্য উচ্চ মাত্রার সুরক্ষা প্রদান করে, সহজে পাইলটিং করার জন্য উন্নত স্বয়ংক্রিয় সিস্টেম এবং স্থলে পরিষেবা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা সহজ।

কেএ-৫২ ক্ষেপণাস্ত্র এবং রকেট দিয়ে সজ্জিত, যার মধ্যে স্ট্যার্ম-ভিইউ অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক সিস্টেম রয়েছে যা আতাকা লেজার-নিশানাযুক্ত ক্ষেপণাস্ত্র এবং ভিখর ক্ষেপণাস্ত্রে সজ্জিত। গানশিপ এয়ার বোমা এবং কামান অস্ত্রসহ কন্টেইনার বহন করে। সূত্র : তাস।



 

Show all comments
  • Habib ২২ মে, ২০২২, ৫:১৩ এএম says : 0
    রাশিয়া ধ্বংস হয়ে গেলে পুরো বিশ্বে রাজত্ব কায়েম করবে আমেরিকা তা তাদের চিন্তাভাবনা ইরাক ফিলিস্তিন সিরিয়া লিবিয়ার রাষ্ট্র প্রধান আমেরিকা পন্তি না হওয়ার কারণে তাদের কাছে পরমাণু অস্ত্র আছে বলে সামরিক অভিযান চালিয়ে হাজার হাজার মানব সম্পদ ধ্বংস করেছে তারা আজ মানবতার কথা বলছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Jaker ali ২২ মে, ২০২২, ৫:১৪ এএম says : 0
    I support Russia
    Total Reply(0) Reply
  • Kader sheikh ২২ মে, ২০২২, ৫:১৫ এএম says : 0
    We want something from Russia that’s why we don’t wanna stop the WAR… USA
    Total Reply(0) Reply
  • Ijak miltan ২২ মে, ২০২২, ৫:১৬ এএম says : 0
    এই পর্যন্ত ইউক্রেনের যত সামরিক ক্ষতি হয়েছে পশ্চিমা সংবাদ মাধ্যমগুলি প্রকাশ করছে না। তারা শুধু সাধারণ মানুষ, হাসপাতাল, শিশু ও গর্ভবতী মহিলা এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের গুটিকয়েক ছবি প্রচার করছে। যেলেনেস্কি এদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে এবং কান্নাকাটির ছবি তুলে ধরছে। ইউক্রেনের এই পর্যন্ত যত সেনা, ড্রোন, সামরিক বিমান, গোলাবারুদ ও পশ্চিমাদের পাঠানো অস্ত্র ধ্বংস ও জব্দ করেছে তা প্রকাশ করছে না। তারা শুধু শিশু,বৃদ্ধ ও সাধারণ মানুষের মৃত্যুর খবর প্রচার করছে সহানুভূতি পাওয়ার জন্য।
    Total Reply(0) Reply
  • Neamat Ullah ২২ মে, ২০২২, ৫:১৭ এএম says : 0
    যদিও পারমাণবিক যুদ্ধ শুরু করে তাহলে এর দায় কে নিবে। ইউক্রেন নাকি রাশিয়া?
    Total Reply(0) Reply
  • শীতল গিরি ২২ মে, ২০২২, ৮:০০ এএম says : 0
    আমেরিকা শান্তিপূর্ণ পৃথিবী বাসীর প্রতি অন্যতম শক্তিশালী অভিশাপ । পৃথিবীকে সম্পূর্ণভাবে অভিশাপমুক্ত করার উদ্দেশ্যে পৃথিবীর বাকি শক্তিগুলোকে রাশিয়ার সঙ্গে একত্রিত হয়ে কাজ করা উচিত । এটি একটি মঙ্গলকামী পৃথিবী বাসীর জন্য সফল এবং সুচিন্তিত পদক্ষেপ হিসেবে নির্ণীত হবে ।
    Total Reply(0) Reply
  • শীতল গিরি ২২ মে, ২০২২, ৮:০০ এএম says : 0
    আমেরিকা শান্তিপূর্ণ পৃথিবী বাসীর প্রতি অন্যতম শক্তিশালী অভিশাপ । পৃথিবীকে সম্পূর্ণভাবে অভিশাপমুক্ত করার উদ্দেশ্যে পৃথিবীর বাকি শক্তিগুলোকে রাশিয়ার সঙ্গে একত্রিত হয়ে কাজ করা উচিত । এটি একটি মঙ্গলকামী পৃথিবী বাসীর জন্য সফল এবং সুচিন্তিত পদক্ষেপ হিসেবে নির্ণীত হবে ।
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Atikur Rahman ২২ মে, ২০২২, ১১:৫০ এএম says : 0
    ইসরায়েল প্রতিদিন লাবননের ওপর হামলা চালায় এবং মানুষকে হত্যা করে। যা ইইউ, আমেরিকা এবং মানবাধিকার দেখতে পায় না
    Total Reply(0) Reply
  • md alif Hossain ২৩ মে, ২০২২, ২:৫১ পিএম says : 0
    আসসালামু আলাইকুম। ইয়াহুদী জাতি ইসরায়েল দিন কতবার আক্রমণ করছে লেবানন সিরিয়া ফিলিস্তিনিদের উপর। আমেরিকা ধ্বংস করছে ইরাক আফগানিস্থান সিরিয়াকে।তখন মন হয় জাতিসংঘ মায়ের কোলে শুয়ে মাতৃদুগ্ধ পান করছিলো। আজ কারা এত শান্তির কথা বলে।আমেরিকা তার নিজের হাত তো আমার মুসলিম ভাইদের রক্তে রঞ্জিত। ইউরোপ ওরা নিজেরাই তো এই যুদ্ধের জন্য দায়ী
    Total Reply(0) Reply
  • নূর সালাম ২৪ মে, ২০২২, ১:০১ পিএম says : 0
    আজ পৃথিবীতে যারা শান্তির কথা বলে। একটু গভীরে চিন্তা করে দেখলে দেখা যায়, তারা মুলতঃ মূখে শান্তির কথা বলে, অন্তরে নয়। উদারহণ ঃ আমেরীকা, যুক্তরাজ্য, েইসরাইল। এ তিনটি রাস্ট্র যদি বিশৃংখলা সৃষ্টি না করে তবে পৃথিবীটা হবে মানুষের শান্তির জায়গা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ