Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

পেট্রোলের ঘাটতিতে অচল ইউক্রেন

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ মে, ২০২২, ৪:০০ পিএম

গত তিন সপ্তাহ ধরে ইউক্রেন তীব্র জ্বালানির ঘাটতির মধ্যে রয়েছে। দেশব্যাপী কয়েকটি মুষ্টিমেয় পাম্প বাদে বাকিগুলো জনসাধারণের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

১৯ মে লভিভ থেকে কিয়েভ পর্যন্ত ৫৫০ কিলোমিটার সড়কে মাত্র দুটি কর্মরত পেট্রোল স্টেশন ছিল। প্রত্যেকটিতেই গাড়ির কয়েকশো মিটার দীর্ঘ সারি ছিল। রাজধানীর অভিমুখে একটি স্টেশন বন্ধ থাকলেও সেখানে ৫০টিরও বেশি যানবাহন উপস্থিত ছিল। একটি গুজব ছড়িয়ে পড়েছিল যে, কয়েক ঘন্টার মধ্যেই সেখানে তেল ডেলিভারি হতে পারে৷

যুদ্ধ ইউক্রেনের জ্বালানি পরিকল্পনাকারীদের জন্য জীবনকে অসম্ভব করে তুলেছে, গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোর ক্ষতি করেছে এবং বেশিরভাগ সরবরাহ শৃঙ্খল ভেঙে দিয়েছে। ২৪ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে, দেশের জ্বালানীর ৮০ শতাংশ আমদানি করা হয়েছিল। এর বেশিরভাগই বেলারুশ থেকে রেলপথে এসেছিল, যারা এখন শত্রু এবং যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী।

একটি ছোট অংশ সমুদ্রপথে এসেছিল, কৃষ্ণ সাগর বন্দর দিয়ে, যা এখন রাশিয়ান নৌ-অবরোধ দ্বারা বন্ধ হয়ে গেছে। একমাত্র উল্লেখযোগ্য স্থানীয় উৎপাদক, ক্রেমেনচুক তেল শোধনাগার, ধারাবাহিক রকেট হামলার পর এপ্রিলে বন্ধ হয়ে গিয়েছে। রাশিয়ান রকেটগুলো এক ডজন জ্বালানী-সঞ্চয়স্থানের সুবিধাও ধ্বংস করেছে এবং রেলপথকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, কখনও কখনও সেভাবে যা বহন করা যেতে পারে তা সীমাবদ্ধ করে।

ইতিমধ্যে, সামরিক এবং জরুরী যানবাহনের জ্বালানী চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। একই অবস্থা কৃষির ক্ষেত্রেও, এখন বীজ বপনের মৌসুমের মাঝামাঝি। ইউক্রেনের প্রতি মাসে প্রায় ৫ লাখ ৪০ হাজার টন পেট্রোল পণ্যের প্রয়োজন। অথচ তেল আমদানির সব উৎসই বন্ধ। যার ফলে প্রবল সঙ্কটে পড়েছে ইউক্রেন। সূত্র: দ্য ইকোনমিস্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ