Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

নিউইয়র্কে শানে রাহমাতুল্লিল আলামিন কনফারেন্স অনুষ্ঠিত

যুক্তরাষ্ট্র সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৬ মে, ২০২২, ৮:২৮ এএম

নিউইয়র্কে রাহমাতুল্লিল আলামিন কনফারেন্সে আন্তর্জাতিক ইসলামিক স্কলার সিরিকোট শরীফ পীর সৈয়দ মুহাম্মদ সাবির শাহ (মাদ্দাজিল্লুহুল আলী) বলেছেন, আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কে মহান আল্লাহ সমগ্র সৃষ্টিজগতের জন্য রহমত স্বরূপ প্রেরণ করেছেন। রাসুল (সা.) এর দেখানো পথ অনুসরনেই রয়েছে মুক্তি। আর সিলসিলায়ে কাদেরীয়া হল রাসুল (সা.) এর সান্নিধ্যে পৌঁছানের অন্যতম পথ। গত ২১ মে শনিবার রাতে নর্থ ব্রঙ্কস ইসলামিক সেন্টারে অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

গাউসিয়া কমিটি নিউইয়র্ক শাখা, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ইউএসএ সেন্ট্রাল কমিটি ও নর্থ ব্রঙ্কস ইসলামিক সেন্টার এর উদ্যোগে শানে রাহমাতুল্লীল আলামীন কনফারেন্স শনিবার বাদ মাগরীব থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত আওলাদে রাসুল (দঃ) রাহনুমায়ে শরীয়ত ও তরিকত নায়েবে সাজ্জাদনশীন সিলসিলায়ে আলীয়া কাদেরীয়া সিরিকোট শরীফ পীর সৈয়দ মুহাম্মদ সাবির শাহ (মাদ্দাজিল্লুহুল আলী) এর ছদারতে অনুষ্ঠিত হয়।

নিউইয়র্ক, কানাডা সহ আমেরিকার বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে বিপুল সংখ্যক ভক্ত ও মুরব্বীদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত কনফারেন্স তিনি গুরুত্বপূর্ণ তাকরীর করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন নর্থ ব্রঙ্কস ইসলামিক সেন্টারের ইমাম ও খতিব হাফেজ মোসাদ্দেক আহম্মেদ। নাতে মোস্তাফা (সাঃ) তেলাওয়াত করেন হাফেজ মৌলানা মুহাম্মদ ইদ্রিস এবং মৌলানা ফয়সাল নেওয়াজ।
পীর সৈয়দ মুহাম্মদ সাবির শাহ (মাদ্দাজিল্লুহুল আলী) বলেন, মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন শান্তি, নিরাপত্তা ও কল্যাণের মূর্ত প্রতীক ‘রাহমাতুল্লিল আলামিন’। তিনি ধর্মকে মানব জাতির কল্যাণে প্রয়োগ করতে শিখিয়েছেন। মহানবীর আদর্শ মেনে চলার মধ্যেই রয়েছে ইহকালীন কল্যাণ ও পরকালীন মুক্তি।

পীর সৈয়দ মুহাম্মদ সাবির শাহ (মাদ্দাজিল্লুহুল আলী) আরও বলেন, বর্তমান বিশ্বের নাজুক পরিস্থিতিতে সিলসিলায়ে কাদেরীয়ার মত হক্ব সিলসিলায় অন্তর্ভূক্ত হয়ে ইমান আক্বিদা রক্ষা করা অত্যন্ত জরুরী। তিনি বলেন, গাউসিয়া কমিটি মানবতার সেবায় অনন্য নজির স্থাপন করেছে। বিশেষ করে করোনাকালীন গাউসিয়া কমিটি সেবার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি প্রত্যেককে গাউসিয়া কমিটিতে যোগদান করে মানবতার সেবায় নিজেকে সম্পৃক্ত করার আহ্বান জানান।
পরে তিনি সিলসিলায়ে কাদেরীয়ায় মুরীদ হতে আগ্রহীদের বায়াত করান এবং ছবক প্রদান করেন।
আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ইউএসএ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মাওলানা সৈয়দ জুবায়ের আহমদ মিলাদ-কিয়াম পরিচালনা করেন।

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ইউএসএ কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ সভাপতি মাওলানা আতাউর রহমান, গাউসিয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মাহাবুবুর রহমান, সহ সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মাওলানা ওয়াসিম সিদ্দিকী ও সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা মোস্তাফা কামালের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত এ কনফারেন্সে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গাউসিয়া কমিটি নিউইয়র্ক শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মো: ইকবাল হোসাইন, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত ইউএসএর মহাসচিব আলহাজ্ব মো: সেলিম উদ্দিন, গাউসিয়া কমিটি নিউইয়র্ক শাখার উপদেষ্টা হাফেজ মাওলানা আব্দুর রহিম মাহমুদ, আনোয়ার হোসেন আল কাদেরী, আঞ্জুমানে রাহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের বিশেষ প্রতিনিধি আলহাজ্ব মো: ইসমাঈল শাহ, নর্থ ব্রঙ্কস ইসলামিক সেন্টারের সভাপতি সৈয়দ জামিন আলী, গাউসিয়া কমিটির সিনিয়ার সহ সভাপতি মাওলানা আইয়ুব আনসারী, অর্থ সম্পাদক মো. মনিরুল হক চৌধুরী, ফ্লোরিডা প্রতিনিধি মো: আবুল কাশেম, বোস্টন প্রতিনিধি মো: আলম, কানেকটিকাট প্রতিনিধি মো: জাফর, মহিউদ্দিন ও মোস্তাক, আহলে সুন্নাত ইউএসএ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মুরাদুল আলম চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক মো: আরিফ চৌধুরী, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক ওসমান গনি তালুকদার শামীম, মো: শাহ আলম, নর্থ ব্রঙ্কস ইসলামিক সেন্টারের সহ সাধারণ সম্পাদক শাহ জাকারিয়া, ক্যাশিয়ার মাহাবুব হোসাইন, সদস্য সৈয়দ ইসাক আলী, সৈয়দ রাহুল ইসলাম, ইমাদ উদ্দিন চৌধুরী, আব্দুল গফুর, আলহাজ্ব আব্দুল মোসাব্বির, গাউসিয়া কমিটি নিউইয়র্ক শাখার সহ সভাপতি মো: নাদের, উপদেষ্টা মো: হারুন, জাহাঙ্গীর হোসাইন, আকতারুল আজম, আক্তার হোসাইন, প্রচার সম্পাদক মো: ইউসুফ আলী, মো: ইয়াহিয়া, মো: ওমর ফারুক, মো: নাজিম উদ্দিন প্রমুখ।

গাউসিয়া কমিটি নিউইয়র্ক শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মো: ইকবাল হোসাইন বলেন, কুতুবুল আউলিয়া আল্লামা সৈয়দ আহমদ শাহ সিরিকোটি (রাহঃ) সিলসিলায়ে কাদেরীয়া মিশনকে সমগ্র দুনিয়াতে ছড়িয়ে দিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন। বাংলাদেশে আঞ্জুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠা, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলীয়া, চট্টগ্রাম, মুহাম্মদপুর কাদেরীয়া আলীয়া, ঢাকা সহ দুই শতাধিক মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ইসলামের খেদমতে অসামান্য অবদান রেখেছেন। আল্লামা সৈয়দ মুহাম্মদ তৈয়ব শাহ (রাহঃ) জশনে জুলুসে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (সা.) ও গাউসিয়া কমিটি প্রতিষ্ঠা করেন। আজ এই জুলুস পৃথিবীর বৃহত্তম জুলুসের স্বীকৃতি হিসেবে গিনেস বুকে স্থান পেয়েছে।
মাহফিলে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন পীর সৈয়দ মুহাম্মদ সাবির শাহ (মাদ্দাজিল্লুহুল আলী)। মোনাজাতে দেশ, প্রবাস, মুসলিম উম্মাহ সহ বিশ্ব মানবতার কল্যাণ ও শান্তি কামনা করা হয়।
পর্দা সহকারে মহিলাদের যোগদান সহ বিপুল সংখ্যক মুসল্লীর অংশগ্রহনে ধর্মীয় উৎসবমুখর পরিবেশে কনফারেন্সটি সম্পন্ন হয়।

প্রবাস জীবন বিভাগে সংবাদ পাঠানোর ঠিকানা
[email protected]



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ