Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ইউক্রেনেকে দূরপাল্লার রকেট সিস্টেম দিতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ মে, ২০২২, ৪:৩৫ পিএম

ডনবাসে রাশিয়ার আক্রমণের সামনে কোন প্রতিরোধই গড়তে পারছে না ইউক্রেনের সেনারা। পশ্চিমাদের সরবরাহ করা সর্বাধুনিক অস্ত্র-শস্ত্রও দিয়েও তারা টিকতে পারছে না। এ প্রেক্ষিতে বাইডেন প্রশাসন ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহ আরও বাড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের অনুরোধের ভিত্তিতে সর্বাধুনিক দূরপাল্লার রকেট সিস্টেম পাঠানোর চিন্তা-ভাবনা চলছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

মার্কিন প্রশাসন ইউক্রেনে সামরিক ও নিরাপত্তা সহায়তার একটি বৃহত্তর প্যাকেজের অংশ হিসাবে সিস্টেমগুলি পাঠানোর দিকে ঝুঁকছে, যা পরের সপ্তাহের মধ্যেই ঘোষণা করা হতে পারে। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সহ সিনিয়র ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের কাছে মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেম, বা এমএলআরএস সরবরাহ করার জন্য অনুরোধ করেছেন।

মার্কিন-তৈরি এ অস্ত্র ব্যবস্থা শত শত কিলোমিটার দূর থেকে রকেটের ব্যারেজ নিক্ষেপ করতে পারে – যা ইউক্রেনের ইতিমধ্যে সরবরাহ করা যে কোনও সিস্টেমের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। ইউক্রেনীয়রা যুক্তি দেয় যে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে এ অস্ত্র তাদের যুদ্ধে গেম চেঞ্জার হতে পারে। যদিও এর আগে এম-৭৭৭ হাউইটজার কামান নিয়েও তারা এ কথা বলেছিল, যা যুদ্ধক্ষেত্রে তেমন কোন প্রভাব ফেলতে পারেনি। ইউক্রেন আরেকটি সিস্টেম যা চেয়েছে তা হল হাই মোবিলিটি আর্টিলারি রকেট সিস্টেম, যা ‘এইচআইএমএআরএস’ নামে পরিচিত, একটি লাইটার চাকার সিস্টেম যা ‘এমএলআরএস’ এর মতো একই ধরনের অনেকগুলি গোলাবারুদ নিক্ষেপ করতে সক্ষম।

সূত্র জানিয়েছে, এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় উদ্বেগের বিষয় হলো রকেট সিস্টেমের বিস্তৃত পাল্লা। এমএলআরএস এবং এর হালকা-ওজন সংস্করণ, এইচআইএমএআরএস, যুদ্ধাস্ত্রের ধরণের উপর নির্ভর করে ৩০০কিমি বা ১৮৬ মাইল পর্যন্ত হামলা করতে পারে। তারা স্থল-ভিত্তিক লক্ষ্যবস্তুতে একটি মোবাইল গাড়ি থেকে গুলি চালানো হয়, যার ফলে ইউক্রেনীয়দের রাশিয়ার অভ্যন্তরে আরও সহজে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে পারবে।

ইউক্রেন ইতিমধ্যে রাশিয়ার অভ্যন্তরে অসংখ্য আন্তঃসীমান্ত হামলা চালিয়েছে বলে মনে করা হয়, যা ইউক্রেনের কর্মকর্তারা নিশ্চিত বা অস্বীকার করে না। রাশিয়ান কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে বলেছেন যে, তাদের স্বদেশের জন্য যে কোনও হুমকি উত্তেজনা বৃদ্ধির একটি বড় কারণ হবে এবং বলেছে যে, পশ্চিমা দেশগুলি ইউক্রেনীয়দের অস্ত্র দিয়ে যুদ্ধে নিজেদেরকে বৈধ লক্ষ্যে পরিণত করছে।

হোয়াইট হাউসে গত সপ্তাহের দুটি বৈঠকে বিষয়টি আলোচ্যসূচির শীর্ষে ছিল যেখানে ডেপুটি ক্যাবিনেট সদস্যরা জাতীয় নিরাপত্তা নীতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য আহ্বান করেছিলেন, কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বিষয়টির কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল যুদ্ধ শুরুর পর থেকে প্রশাসন একই উদ্বেগের সাথে ঝাঁপিয়ে পড়েছে-- ইউক্রেনে ক্রমবর্ধমান ভারী অস্ত্র পাঠানোকে রাশিয়া একটি উসকানি হিসেবে দেখবে যার ফলে তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে একধরনের প্রতিশোধ নিতে পারে।

রাশিয়া সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে ডনবাস এলাকায় অভিযান জোরদার করেছে, যেখানে ইউক্রেনের সেনারা সংখ্যা ও গোলাবারুদ সঙ্কটে ভুগছে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ এর আগে সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে, রাশিয়ার ভূখণ্ডে পৌঁছাতে পারে এমন অস্ত্রের সরবরাহ ‘অগ্রহণযোতাগ্য বৃদ্ধির দিকে একটি গুরুতর পদক্ষেপ’ হবে। সূত্র: সিএনএন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন