Inqilab Logo

সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

পটুয়াখালীর দুমকিতে পেট্রোল দিয়ে স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারলেন স্বামী!

পটুয়াখালী জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৭ মে, ২০২২, ৬:৩২ পিএম

স্বামীর নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা পেতে ডিভোর্স দেওয়ায় শ্বশুর বাড়িতে এসে রাতের আধারে স্ত্রী ইতি আক্তার (২৬)কে পুড়িয়ে মাড়লেন পাষন্ড স্বামী আঃ জলিল। বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে জেলার দুমকি উপজেলার পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড এলাকায় এ অমানুষিক ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে শুক্রবার সকালে পটুয়াখালী সদর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মাইনুল ইসলাম ও দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবদুস সালাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছন।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, উপজেলার পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আব্দুল মান্নান খানের মেয়ে ইতি আক্তার (২৬)এর সাথে ৭ বছর আগে কুষ্টিয়ার মিরপুর থানার সামন্ত এলাকার বাসিন্দা নূর আলীর ছেলে আঃ জলিলের সাথে ঢাকায় প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই ইতির উপর আঃ জলিল অমানুষিক নির্যাতন চালাতেন। একপর্যায়ে ইতি নির্যাতন অত্যাচার সইতে না পেরে বাবার বাড়িতে চলে আসেন এবং স্বামী আঃ জলিলকে ডিভোর্স দিয়ে দেন। ডিভোর্সের খবর শুনে আঃ জলিল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শ্বশুরের ঘরে ঢুকে ঘুমন্ত অবস্থায় ইতির শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেন। ইতির ডাক চিৎকার শুনে পরিবারের লোকজন সজাগ হলে কৌশলে আঃ জলিল পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ইতির শরীরের আগুন নেভাতে নেভাতে ইতি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। ইতি ও আঃ জলিলের ঘরে ৫ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।
ইতির বাবা আব্দুল মান্নান জানান, আমরা সবাই ঘুমের ঘোরে ছিলাম গভীর রাতে হঠাৎ মেয়ের ডাক চিৎকার শুনে সজাগ হয়ে দেখি মেয়ের শরীরে আগুন এবং আঃ জলিল আমাদের দেখে দৌড়ে পালিয়ে যায়। আমি আঃ জলিলের দৃষ্টান্ত মূলক বিচার চাই।
দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবদুস সালাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন , ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ