Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

আকস্মিক বন্যায় মানবিক বিপর্যয়ের মুখে ১০লাখের বেশি মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ মে, ২০২২, ৭:২৩ পিএম

আকস্মিক মৌসুমী বন্যায় চরম মানবিক সংকট দেখা দিয়েছে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলায়। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে হাজার হাজার ঘরবাড়ি আর কয়েকশ একর ফসলি জমি। বাংলাদেশে নিডস অ্যাসেসমেন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ (এনএডব্লিউজি) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আকস্মিক বন্যার কারণে এই অঞ্চলের পাঁচটি জেলায় ক্ষতির শিকার হয়েছেন অন্তত সোয়া ৪ লাখেরও বেশি মানুষ। এরমধ্যে চরমে আছেন ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমান্তবর্তী সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার নিচু এলাকায় বসবাসকারী মানুষেরা।

বন্যা পরিস্থিতি ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে বিশুদ্ধ পানি, পয়ঃনিষ্কাশন, খাদ্য, বাসস্থান এবং স্বাস্থ্যসেবার তীব্র সংকট যেমন তৈরি করেছে, তেমনি চরম প্রভাব ফেলেছে অনেকের জীবিকাতেও। এছাড়া বন্যার পানির কারণে বিদ্যুতহীন আর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছেন এই এলাকায় কয়েক লাখ মানুষ। সবশেষ তথ্য অনুযায়ী বন্যার পানি কিছুটা কমতে শুরু করলেও, নতুন চ্যালেঞ্জ দেখা দিয়েছে বন্যা পরবর্তী পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাবের।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব কাজী শফিকুল আজম বলেন, “দেশের সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলায় ভয়াবহ আকস্মিক বন্যা লক্ষাধিক মানুষের জীবন বিপর্যস্ত করছে এবং এই মুহুর্তে তাদের মানবিক সহায়তার ভীষণ প্রয়োজন।”তবে এমন পরিস্থিতিতে সকল ধরনের প্রয়োজনীয় সহায়তা নিয়ে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সদা প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

এদিকে, বন্যা দুর্গত এলাকায় সকল সহায়তার জন্য জরুরি তহবিল থেকে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে প্রায় ৪ কোটি সহায়তা দিয়েছে আইএফআরসি। যা বন্যায় চরম ক্ষতিগ্রস্থ সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যয় করা হবে। এ প্রসঙ্গে আইএফআরসি বাংলাদেশের কান্ট্রি ডেলিগেশনের প্রধান সঞ্জীব কাফলে বলেছেন, “বাংলাদেশে বর্ষা মৌসুমের শুরুমাত্র, আর ভয়াবহ এই প্রারম্ভিক বন্যা এরইমধ্যে লক্ষ লক্ষ মানুষকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে। আমাদের অভিজ্ঞতা বলে আগামী দিনগুলোতে আরও বন্যার সম্ভাবনা রয়েছে।” তিনি আরো জানান, “খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির মতো মৌলিক বিষয়গুলো ছাড়াও যে কোন ধরনের সহায়তার জন্য আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি। তবে এই মুহুর্তে সবচে দরকার পানি কমতে শুরু করার সাথে সাথে রোগের প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণ করা।”



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন