Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

বাংলাদেশ ও ভারতের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্প্রসারণে যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নের আহ্বান

পশ্চিমবঙ্গের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রীর সাথে ঢাকা চেম্বারের প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ মে, ২০২২, ৫:২০ পিএম

 (সাবহেড)স্টাফ রিপোর্টার
ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সফররত ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)-এর প্রতিনিধিদলের সদস্যবৃন্দ গত ২৭ মে, ২০২২ তারিখে পশ্চিমবঙ্গের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী পার্থ চট্রোপাধ্যায়ের সাথে কলকাতায় তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎকালে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেন, দুদেশের স্থলবন্দর গুলোতে অপর্যাপ্ত অবকাঠামোর কারণে পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে সময় বেশি লাগছে, যার ফলে ব্যবসা-বাণিজ্যে ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে, এ অবস্থা নিরসনে উন্নত অবকাঠামো নিশ্চিতকরণে উদ্যোগী হওয়ার আহŸান জানান। ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, ভারতীয় উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে ইতোমধ্যে প্রায় ৩.৫৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিয়োগ করেছে এবং বিশেষকরে কলকাতার উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে বিনিয়োগে এগিয়ে আসার জোরারোপ করেন। বাংলাদেশে ভারতীয় বিনিয়োগ আরো বাড়াতে নন-ট্যারিফ প্রতিবন্ধকতা, রুলস অব অরিজিন’র সহজীকরণ এবং দুদেশের মধ্যকার ‘কমপ্রিহেনসিভ ইকোনোমিক পার্টনারশীপ এগ্রিমেন্ট’ স্বাক্ষরের বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বলে, ঢাকা চেম্বারের সভাপতি মত প্রকাশ করেন।

পশ্চিমবঙ্গের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী পার্থ চট্রোপাধ্যায় বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্যের কার্যক্রমকে গতিশীল রাখতে উন্নত অবকাঠামোর কোন বিকল্প নেই। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের বিদ্যমান প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিকার খুঁজে বের করার লক্ষ্যে তিনি ঢাকা চেম্বার এবং ইন্ডিয়ান চেম্বার অব কমার্স যৌথভাবে গবেষণা পরিচালনার প্রস্তাব করেন। পার্থ চট্রোপাধ্যায় বলেন, পাট পণ্য উৎপাদনে বাংলাদেশের দক্ষতা বেশ ভালো এবং বস্ত্র ও টেক্সটাইল খাতে দুদেশের উদ্যোক্তাদের যৌথ বিনিয়োগের যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। এছাড়াও দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের আরো সম্প্রসারণে দুদেশের ভৌগোলিক অবস্থানগত সুবিধা কাজে লাগানোর উপর তিনি মত প্রকাশ করেন।

এছাড়াও ঢাকা চেম্বারের প্রতিনিধিদলের সদস্যবৃন্দ ওয়েস্ট বেঙ্গল ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন-এর চেয়ারম্যান রাজীব সিনহা-এর সাথে তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন। দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে তিনি যোগাযোগ অবকাঠামো, প্রয়োজনীয় নীতি সহায়তা এবং বাণিজ্য সংগঠনের প্রতিনিধিবৃন্দের মিথস্ক্রিয়া আরো বাড়ানোর আহŸান জানান। বিশেষকরে দুদেশের রেল যোগাযোগ ব্যবসায়িক কার্যক্রমে আরো বেশি মাত্রায় গতি আনতে বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।

প্রতিনিধিদলের সদস্যবৃন্দ বেঙ্গল চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত বিটুবি ম্যাচ-মেকিং-এ যোগদান করেন। অনুষ্ঠানে বেঙ্গল চেম্বারের সভাপতি সুবীর চক্রবর্তী জানান, ভারতের উত্তর-পূর্ব অঞ্চল এবং বাংলাদেশের মধ্যকার যোগাযোগ অবকাঠামোর উন্নয়নে ভারতের আগ্রহ রয়েছে।

উল্লেখ্য, ঢাকা চেম্বারের প্রতিনিধিদলের সদস্যবৃন্দ পশ্চিমবঙ্গের পর্যটন বিভাগের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি নন্দীনী চক্রবর্তী এবং কলকাতা পোর্ট ট্রাষ্ট-এর প্রতিনিধির সাথে সাক্ষাৎ করেন, যেখানে যোগাযোগ সহজীকরণ, নীতি সহায়তা, বিদ্যমান প্রতিবন্ধকতাসমূহ নিরসন প্রভৃতি বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ