Inqilab Logo

সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

যাত্রাপুরের জনগণের হয়রানি

দেবিদ্বার (কুমিল্লা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৯ মে, ২০২২, ১২:০২ এএম

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর ইউপি সচিব জোসনা বেগমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে সকল কাজকর্মে অচলাবস্থা বিরাজ করছে। যথাসময়ে কাগজপত্র না পেয়ে জনগণ হয়রাণির শিকার হচ্ছেন। এতে ভোগান্তিতে পড়ছে সাধারণ জনগণ।
সরেজমিনে জানা যায়, ল্যাপটব, প্রিন্টার, স্ক্যানার ও কম্পিউটার থাকা সত্বেও অনলাইনে কাজ না জানা ইউপি সচিব জোসনা বেগম বিভিন্ন দোকান থেকে অফিসিয়াল কাজ করেন। অফিস চলাকালে কোন কাগজপত্র নিতে আসলে তিনি লিখে রাখেন। সার্ভার ও নেট সমস্যার অজুহাত দেখিয়ে গ্রাহকদের হয়রানি করছে। অতিরিক্ত সুবিধা নিয়ে অনেককে ৭ দিন পর যোগাযোগ করতে বলে। এ সুযোগে তার বাড়ি ও দোকান থেকে কাগজপত্র প্রিন্ট করে রাখেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিতর্কিত ইউপি সচিব জোসনা বেগম নতুন জন্ম নিবন্ধন ও সংশোধনসহ বিভিন্ন সনদে তিনি ৫শ’ টাকা ফি আদায় করেন। এ ছাড়া ও অধিক টাকার বিনিময়ে নাবালিকা মেয়েদের বয়স বাড়িয়ে বাল্য বিবাহকে সহযোগিতা করেন। বিভিন্নভাবে প্রতিদিন ১০/১২ হাজার টাকা অবৈধভাবে হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে লোকজনের সাথে অশোভন আচরণ করেন। যাত্রাপুর গ্রামের পাপিয়া আক্তার বলেন, আমার স্বামীর জন্ম সনদের ভুল সংশোধনের জন্য আবেদন করলে ইউপি সচিব জোসনা বেগম ৫শ’ টাকা দাবি করে। জরুরি প্রয়োজনে ৫শ’ টাকা দিয়ে জন্মসনদ সংগ্রহ করি। মোচাগড়া গ্রামের জুলেখা বেগম জানান, সন্তানের জন্মনিবন্ধন নিতে সচিবকে ৫শ’ টাকার মধ্যে ৪০ টাকা দিতে দেরি হওয়ায় আমাকে ১৫ দিন ঘুরিয়েছেন। এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইউপি সচিব জোসনা বেগম তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সার্ভার ও নেট সমস্যার কারণে আমি অফিসে কাজ করতে পারি না। অফিসের কাজগুলো আমি বাসায় নিয়ে প্রিন্ট করে পরবর্তীতে সেবা গ্রহিতাদের কাছে পৌঁেছ দেই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন