Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯, ১২ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

জ্বালানি ক্ষেত্রকে আমরা নিরবচ্ছিন্ন করতে চাই: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ জুন, ২০২২, ৮:১২ পিএম
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, যখন আমাদের বিদ্যুতের ঘাটতি ছিল, তখন প্রধানমন্ত্রী ক্যাপটিভ পাওয়ার দিয়েছিলেন। এখন আমাদের বিদ্যুতের ঘাটতি নেই। সরকার একদিকে ভর্তুকি দিচ্ছে, অন্যদিকে দাম কমানোর চেষ্টা করছে। বিদেশে জ্বালানির দাম বাড়ছে, আমাদের উপায় নেই।  
 
তিনি বলেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দামের বিষয়টি এখন এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের হাতে। আমি এতটুকু বলতে পারি, প্রধানমন্ত্রী এমন কিছু করবেন না, যাতে তা সাধারণ মানুষের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়ায়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জ্বালানি ক্ষেত্রকে আমরা নিরবচ্ছিন্ন করতে চাই, সাশ্রয়ী মূল্য রাখতে চাই, ভবিষ্যতে এটিকে আধুনিক একটা সেক্টর বানাতে চাই। সেজন্য আগামী ৬-৭ বছরে প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলার ইনভেস্টমেন্ট লাগবে।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) আয়োজিত বিদ্যুৎ ও গ্যাস খাতের আর্থিক ঘাটতি সমন্বয়ের বিকল্প প্রস্তাব উপস্থাপন সংক্রান্ত নাগরিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধি না করে আর্থিক ঘাটতি মোকাবিলায় বিকল্প প্রস্তাব উত্থাপন করেন ক্যাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি ড. শামসুল আলম। সভায় ক্যাব কর্তৃক ‘বাংলাদেশ জ্বালানি রূপান্তর নীতি (প্রস্তাবিত)’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

সভায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, যুদ্ধ (রাশিয়া-ইউক্রেন) পরবর্তী সময়ে জ্বালানি ও বিদ্যুতের দাম ঠিক রাখতে অনেক দেশই হিমশিম খাচ্ছে। তবে, আমাদের লক্ষ্য নির্ধারিত, কাদের জন্য ভর্তুকি দিতে চাই, কত দর রাখতে চাই। আমাদের একটি বৃহৎ জনগোষ্ঠীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানির যে মূল্য আসে, তা দেওয়ার সক্ষমতা নেই। তাই সরকার ভর্তুকি দেয়। তবে আমি ভর্তুকি বলি না, বলি বিনিয়োগ। কারণ তারা এ টাকা যেন নিজের উন্নয়নে কাজে লাগাতে পারে। ছেলে-মেয়েদের শিক্ষার কাজে, পুষ্টিকর খাদ্যের কাজে যেন এটা খরচ করতে পারে। সারে ব্যাপক ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে। তাই কোভিডকালেও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ আমরা।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সৃষ্টির ৫০ বছর এবং জাতির জনকের শতবর্ষে আমরা বলেছিলাম, সারা দেশকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনব। ২০২১ সালের ডিসেম্বরে আমরা শতভাগ গ্রিড লাইন করে ফেলেছি। এমন কোনো অঞ্চল নেই, যেখানে এখন বিদ্যুৎ নেই। অ-গ্রিড এলাকায় আমরা সোলার ও সাবমেরিন কেবল দিয়েছি। এলএনজিতে ৩০ হাজার কোটি টাকা কর দিচ্ছি, এ কর না দিলেই তো হয়ে যায়। বিদ্যুতেও ২০ থেকে ২৫ হাজার কোটি টাকার মতো হবে। আমরা নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি।

সমুদ্রে গেলেই গ্যাস পাওয়া যাবে, এমন ধারণার বিষয়ে তিনি বলেন, সার্ভে করার পরও অনেক সময় ড্রিল করে গ্যাস পাওয়া যায় না। অনেকে মনে করেন সমুদ্রে গেলে কালই গ্যাস পাওয়া যাবে। এমন ধারণা সঠিক নয়, গ্যাস পেলেও আনতে ১০ বছর সময় লাগবে। সাগরে মাল্টি ক্লেইন সার্ভে হচ্ছে, তারপর দেখব এটা আনা সাশ্রয়ী হবে কি না। ২০০৯ সালে ১১০০ এমএমসি গ্যাস ছিল, এখন ২৫০০ এমএমসি গ্যাস। তারপরও কেন গ্যাসের অভাব! আমরা গ্যাস দিচ্ছি, চাহিদা আরও বেড়ে যাচ্ছে। নতুন নতুন শিল্প কারখানা হচ্ছে। এখনো ৫৫০ থেকে ৬০০ শিল্প সংযোগের আবেদন পড়ে রয়েছে। গ্যাস আমদানি করতে খরচ পড়ছে ৫৯ টাকা। গ্যাস বিক্রি করছি ৭ টাকায়।
 
নসরুল হামিদ বলেন, আমরা স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা নিয়েছিলাম। প্রথম পরিকল্পনা ছিল দ্রুত বিদ্যুৎ দেব। তেল দিয়ে উৎপাদনে গেছি, সেখানে সফল হয়েছি। শিল্পের উৎপাদন বেড়েছে, মানুষের জীবনমান বেড়েছে। শিল্প মালিকরা গ্রামে যেখানে কম দামে জমি পেয়েছে, সেখানে কারখানা করেছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ক্যাবের উদ্যোগটা ভালো, আমি কিছু অংশ দেখেছি। তবে আরও গঠনমূলক পরামর্শ দিতে পারেন যাতে কাজে আসে। আরও একটু আধুনিক করা যায় কি না ভেবে দেখা দরকার।

তিনি বলেন, জমি নিয়ে যদি কয়লা উৎপাদন করি তাহলে কী হবে, ফসল উৎপাদন কমে যাবে। যে কারণে কয়লা উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। সামান্য পরিমাণে উত্তোলন করা হচ্ছে।


 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ