Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ০১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

আমাদের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য বিকাশে ঔপনিবেশিক শক্তির দায়

আফতাব চৌধুরী | প্রকাশের সময় : ৫ জুন, ২০২২, ১২:০৪ এএম

অ্যান্টার্কটিকার জনমানবহীন মহাদেশ ছাড়া পৃথিবীতে যে ক’টি মহাদেশ আছে তার প্রায় সবগুলো স্পর্শ করার সুযোগ ও সৌভাগ্য আমার হয়েছে। প্রায় ১৫টি দেশে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক সপ্তাহ অবস্থান করার সুযোগও আমি পেয়েছি। এ সুযোগ অনেকেরই হয়, তবে আমার ক্ষেত্রে কিছুটা ব্যতিক্রম। নানা প্রয়োজনে বহু লোক নানা দেশে যায়। তারা সাধারণত বড় বড় শহরে বেশি সময় কাটায়, সভা-সমিতি করে। বন্যপ্রাণী ও পরিবেশ বিষয়ক নানা সেমিনার, সিম্পোসিয়াম, সম্মেলনে আমরা যারা যাই, তারা বড়ো শহরে বিলাসবহুল হোটেলে অনুষ্ঠান করে, বক্তৃতা বিবৃতি দিয়ে চলে আসি। আমি বিভিন্ন কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গিয়েছি। বড় বড় শহর ছাড়াও যেসব দেশে গিয়েছি সেগুলোর শহরের মতো গ্রামাঞ্চলও দেখার সুযোগ আমার হয়েছে। ব্রিটেনসহ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশের বনজঙ্গল, আমেরিকা, চীন, জাপান, থাইল্যান্ড, ভারত, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের অনেক গভীরে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছি। আফ্রিকার কিছু অংশে দেখেছি। আমার সাধ্যমতো নানা জায়গায় গিয়েছি। সুতরাং আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে এবং অন্যদের কাছে যা শুনেছি তার ভিত্তিতে কিছু অভিমত ব্যক্ত করছি। প্রাকৃতিক পরিবেশের কথাই বলতে যাচ্ছি। অনেক বক্তৃতা শুনি বা পোস্টার দেখি, যাতে লেখা থাকে, ‘গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান’। শুনতে ভালোই লাগে। যে কোনো গাছ লাগালেই পরিবেশ বাঁচে না। আমাদের বলতে হবে, দেশি গাছ লাগান ও প্রাকৃতিক পরিবেশ বাঁচান। প্রাকৃতিক পরিবেশ বলতে গেলে অপ্রাকৃতিক পরিবেশের কথা এসে যায়। পার্থক্য আমাদের অত্যন্ত গভীরভাবে বুঝতে হবে। যে কোনো গাছ লাগালে যদি প্রাকৃতিক পরিবেশ বেঁচে যেত তা হলে কথা ছিল না। কিন্তু বাস্তবে তা নয়।

ভৌগোলিক অবস্থান ও আবহাওয়ার প্রভাবে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের পরিবেশ বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। কোনো একটি স্থানের বায়ু, পানি, তাপ, মাটির ধরন ও গুণাগুণের ভিত্তিতে সে স্থানে উদ্ভিদ জন্মে। এটি নিয়ম এবং এ নিয়ম প্রাকৃতিক। একইভাবে উদ্ভিদের ধরনের ওপর ভিত্তি করে সেখানে প্রাণীর আবির্ভাব ঘটে। আলো, বায়ু, আবহাওয়া, পানি ও মাটির সমন্বয়ে সে স্থানে অজৈব পরিবেশ গড়ে উঠে। আবার তার ওপর নির্ভর করে যে উদ্ভিদ ও প্রাণীর আবির্ভাব হয় তাকে বলা হয় জৈব পরিবেশ। অজৈব ও জৈব পরিবেশ মুক্তভাবে সে স্থানের প্রাকৃতিক পরিবেশ গড়ে তোলে। পরিবেশ বিদ্যায় পরিবেশগত পরামর্শ বলে একটি কথা আছে। সংক্ষেপে বলা যায়, উদ্ভিদহীন একটি স্থানে যখন কোনো উদ্ভিদ জন্মায়, তখন পরিবেশে পরিবর্তন ঘটে। অর্থাৎ ওই গাছের কারণে পরিবেশ ভিন্ন রূপ নেয়। যেখানে আগের গাছ টিকতে পারে না সেখানে ভিন্ন এক গাছ জন্মায়। একইভাবে ভিন্ন এক প্রাণীর উদ্ভব হয়। এ ধরনের পরিবর্তন কয়েকবার ঘটার পর শেষ পর্যায়ে যে উদ্ভিদ ও প্রাণী দেখা যায়, তাকে বলা হয় ‘ক্লাইমেটিক ক্লাইমেক্স’ বা চূড়ান্ত পর্যায়। অজৈব পরিবেশগত কোনো বিপর্যয় দেখা না দিলে একটি স্থানের জৈব পরিবেশ সঠিকভাবে পরিবর্তিত হয়ে সে স্থানে স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠিত হবে। অজৈব পরিবেশগত কোনো বিপর্যয় দেখা না দিলে একটি স্থানের জৈব পরিবেশ সঠিকভাবে পরিবর্তন না ঘটিয়ে সেখানে কৃত্রিমভাবে যদি অজৈব পরিবেশের পরিবর্তন করে ফেলা হয়, তবে সব ওলটপালট এবং বিলীন হয়ে যায়।

বিভিন্ন সেমিনার-সিম্পোসিয়াম উপলক্ষে বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন এলাকায় বেড়াতে যেতে চান। এটি স্বাভাবিক। এবার একটু প্রসঙ্গান্তরে গিয়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার আগেকার কথা বলছি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ যদি না হতো তবে তৃতীয় বিশ্বের তথা আফ্রো-এশিয় এবং দক্ষিণ আমেরিকার কোটি কোটি মানুষকে আজো হয়তো পরাধীনতার শৃঙ্খলে জীবন কাটাতে হতো। তবে এ দেশগুলো স্বাধীনতা ঔপনিবেশিক দেশগুলোর দয়ার দান নয়। আবার এটা শুধু স্বাধীনতা আন্দোলনের ফসল, এটি পুরোপুরি মানতে রাজি নই। যারা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কিছুটা হলে স্বচক্ষে দেখেছেন, তারা স্বীকার করবেন, পরাধীন দেশগুলোর স্বাধীনতা এসেছে ঐ দু’টি কারণের সফল সমন্বয় হিসেবে। এ মহাযুদ্ধের ফলে সমগ্র বিশ্বের পানিতে-স্থলে যে ভয়ঙ্কর দুর্যোগ নেমে এসেছিল তার ফলে এসব দেশকে শাসন করার ক্ষমতা পরাশক্তিগুলো হারিয়ে ফেলেছিলো। জাপানের বাইরে এ যুদ্ধ আরো কয়েক বছর চলেছিল, কিন্তু জার্মানিতে অ্যাটম বোমা ফেলার সাহস মিত্রশক্তির হলো না কেন? জার্মানিতে বোমাটি ফাটলে যুদ্ধ দুই বছর আগে থেমে যেত।

যুদ্ধ বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, আসলে দুনিয়ার সর্বত্র ভয়ঙ্কর ধ্বংসযজ্ঞ হয়েছে। এতে লক্ষ লক্ষ মানুষ বোমার আগুনে এবং ক্ষুধার জ্বালায় মরেছে। ফলে ইউরোপ-ব্রিটেন-আমেরিকা-অস্ট্রেলিয়া জোটশক্তির কোমর ভেঙে গিয়েছিল। সোজা হয়ে উঠে দাঁড়ানোর জন্য হাতের কাছে এমন কিছু ছিল না, যাকে লাঠি হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। তবে লক্ষণীয় ব্যাপার হচ্ছে, সে যুদ্ধ ছিল সেয়ানে সেয়ানে। ঔপনিবেশিক শক্তিগুলো দুই দলে ভাগ হয়ে সে যুদ্ধ করেছিল। তৃতীয় বিশ্বের কোনো অংশগ্রহণ ছিল না এতে। শেষ পর্যন্ত দেখা গেছে, এসব যুদ্ধবাজ দেশের মানুষ মরেছে শুধু বোমার আঘাতে। এ যুদ্ধে যাদের কোনো অংশগ্রহণ ছিল না তারা মরেছে একইসাথে বোমার আঘাতে এবং ব্যাপক দুর্ভিক্ষে। বলেছিলেন, দুর্ভিক্ষের কারণে বাংলায় যত মানুষ মরেছে, ব্রিটেনে যদি তার অর্ধেক মাছিও মারা যেত তবে চার্চিলের মন্ত্রিসভার পতন ঘটত। ভেবে দেখুন, যুদ্ধ করল কারা আর দুর্ভিক্ষে মরল কারা। দুর্ভিক্ষে ব্রিটেনে একটি মানুষও মারা গেছে এমন কথা ইতিহাসে আছে কি?

উপমহাদেশের অনেক রাজনৈতিক দল ও ব্যক্তি স্বাধীনতার জন্য অনেক অবদান রেখেছেন। আমি তাদের শ্রদ্ধা করি ও কৃতজ্ঞতা জানাই। কিন্তু শুধু তাদের আন্দোলনের ফলে যে কিছুটা দ্রুত এ উপমহাদেশ বা অন্য দেশের মানুষ স্বাধীনতা পেয়ে থাকেন, তেমনটি ভাবা ঠিক হবে না। ঔপনিবেশিক শক্তিগুলোর কোমর ভেঙে গিয়েছিল বলে শেষ পর্যন্ত তারা ‘ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি’ বলতে বলতে উপনিবেশগুলো ছেড়ে পালিয়েছে, এটাই সত্য।

কোনো কোনো দেশের ঔপনিবেশিক শক্তি শত শত বছর ধরে তৃতীয় বিশ্বের কোনো কোনো দেশের রক্ত কীভাবে শোষণ করে খেয়েছে তার ইতিহাস আছে। ঔপনিবেশিক শক্তিগুলো উপনিবেশের অশ্বেতাঙ্গ মানুষকে সাধারণভাবে কীটপতঙ্গ ছাড়া বেশি কিছু মনে করত না। আফ্রিকা, আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়ার আদি মানুষকে কী নিষ্ঠুরভাবে ঘরছাড়া হতে বাধ্য করেছিল সেসব করুণ কাহিনী এসব মহাদেশ সংক্রান্ত বই পড়লে পাওয়া যাবে।

ঔপনিবেশিক শক্তিগুলো আমাদের উপমহাদেশের মানুষকে কিছুটা ভিন্ন চোখে দেখত। দেখবেই না কেন? অন্যরা সব মহাদেশে গিয়ে তাজমহলের মতো কিছু দেখতে পায়নি। আমাদের প্রাণী জগৎ ও প্রাকৃতিক পরিবেশকে ব্রিটেন কীভাবে প্রায় নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে তা নিয়ে কাউকে কথা বলতে শুনি না। আসলে ব্যাপারটি কী? উদ্ভিদ বিজ্ঞানীদের অনেকে বোধকরি এ নিয়ে মাথা ঘামান না। অনেক উদ্ভিদবিজ্ঞানী অর্থকরী যেকোন গাছ হলে তাকে মেনে নিতে পারেন। কিন্তু আমরা তা পারি না। সবাই জানি, এক স্থানের প্রাণী স্থানীয় উদ্ভিদের সাথে ওতপ্রোতভাবে সম্পৃক্ত। কিন্তু স্থানীয় প্রাণী স্থানীয় উদ্ভিদের সাথে হাজার হাজার বছর ধরে বিবর্তনের ফলে উদ্ভিদের ওপর একান্ত নির্ভরশীল। তাই যে উদ্ভিদের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে যেসব প্রাণীর আবির্ভাব ঘটেছে, সে উদ্ভিদ না হলে সেসব প্রাণী টিকে থাকতে পারে না। সুতরাং আমগাছটি কেটে ফেলে সেখানে বহু মূল্যবান মেহগনি গাছ লাগালে চমৎকার কাঠ হয়তো পাওয়া যাবে কিন্তু সে আমগাছকে আশ্রয় করে যেসব কীটপতঙ্গ পাখি ও পশু বেঁচে ছিল সেগুলো ঐ অচেনা গাছ থেকে বেঁচে থাকার জন্য কোনো খাবার বা সাহায্য পাবে না। যদি বাড়িতে দু’চারটি মেহগনি, ইউক্যলিপটাস ইত্যাদি বিদেশি গাছ লাগান এবং সারাদেশে যদি এসব গাছ দিয়ে চমৎকার বনাঞ্চল গড়ে তোলেন, তবে সুন্দর বাগান পাবেন। কিন্তু প্রাণীরা ধীরে ধীরে বিলীন হয়ে যাবে। এখন সেটি হচ্ছে। অনেক গাছ আছে, যার পরাগায়ন কীটপতঙ্গ ও পশুপাখি দিয়ে হয়; সেসব গাছ উৎপাদন করলে আপনার বাগানটি কেমন দেখাবে?


আম-জাম-কাঁঠালের মতো বহু গাছ আছে যেগুলো ফল দেয়, কাঠ ও ছায়া দেয় এবং প্রাণীজগৎকে বাঁচায়। মেহগনি লাগালে একের ভিতর এক অর্থাৎ শুধু কাঠ পাবেন আর আম-কাঁঠাল লাগালে ফল, কাঠ পাবেন এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা পাবে। অর্থাৎ একের ভিতর তিন। ১৭৮১ সালের ইম্পেরিয়াল ফরেস্ট সার্ভিসের অধীনে সমগ্র উপমহাদেশের প্রাকৃতিক বন উজাড় করে সে জায়গায় মেহগনি, ইউক্যালিপটাস, অ্যাকাশিয়া, মিনজিটি, রেইন ট্রি ইত্যাদি কত না বিদেশি গাছ এনে কৃত্রিম বনায়ন শুরু হয়েছিল। বনায়নে কিছু দেশি গাছ ব্যবহার করা হয় যেমন শাল, গর্জন ইত্যাদি। চিন্তা করুন, একটি দেশি গাছ বড়ো গাছ হোক বা তৃণলতা হোক, তার লতাপাতা-ফুল-ফল খেয়ে কত প্রাণীর প্রজাতি বাস করে। প্রাকৃতিক পরিবেশে একটি স্থানে ছোটো-বড়ো যদি ১০ প্রজাতির গাছ থাকে এবং প্রতিটি গাছকে কেন্দ্র করে যদি ১০ প্রজাতির প্রাণী বাঁচে, তাহলে সেখানে অন্তত ১০০ প্রজাতির প্রাণী পাওয়া যাবে। বনে যদি দেশি গাছ থাকে তবে অন্তত ১০-১২ প্রজাতির প্রাণী পাওয়া যাবে। বিদেশি প্রজাতির গাছ হলে একটি প্রাণী দেখা যাবে কিনা সন্দেহ। অর্থাৎ ঔপনিবেশিক শক্তি কোনো চিন্তা না করে প্রাকৃতিক পরিবেশ ধ্বংস করতে শুরু করেছিল। সবচেয়ে মর্মান্তিক ব্যাপার হল, উপনিবেশবাদীরা আমাদের মঙ্গলের জন্য বনায়ন করেনি। তাদের লক্ষ্য ছিল এদেশে গাছ লাগাবে আর সে গাছ কেটে কাঠ নিয়ে যাবে নিজেদের দেশে।

আজ প্রাকৃতিক পরিবেশ ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের জন্য এসব পশ্চিমা দেশের মানুষ বেশি চিৎকার করছে। শুনতে ভালো লাগে। কিন্তু যে পর্যন্ত আমাদের প্রাকৃতিক বনাঞ্চল ও পরিবেশ ধ্বংস করার অপরাধ স্বীকার করে তারা তৃতীয় বিশ্বের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা না চাইবে, সে পর্যন্ত তাদের গলাবাজি অন্তত আমাদের কাছে হাস্যকর মনে হবে। জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেলকে বিষয়টি বুঝে নেয়া উচিত। তৃতীয় বিশ্বের প্রাকৃতিক বনাঞ্চল ধ্বংস এবং বন্যপ্রাণী নিধনের ৮০ শতাংশ দায় যে তাদের, তা তারা বুঝলেও প্রকাশ্যে স্বীকার করতে চাইবে না। কারণ তৃতীয় বিশ্বকে তারা থোড়াই পরোয়া করে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তৃতীয় বিশ্বের যে ক্ষতি হয়েছে, দেরিতে হলেও জাপানের সম্রাট এবং জাপান সরকার সে জন্য বারবার ক্ষমা চেয়েছেন। যুদ্ধবাজ পশ্চিমা দেশগুলোর হাতে অসহায় লক্ষ লক্ষ মানুষ বোমার আঘাতে এবং দুর্ভিক্ষের কারণে প্রাণ হারিয়েছে। কিন্তু পশ্চিমা দেশগুলোর কাউকে সেজন্য দুঃখ প্রকাশ করতে আজ পর্যন্ত শুনিনি। ক্ষমা-দুঃখ ইত্যাদি তাদের অভিধানে মনে হয় নেইই!

লেখক: বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট। বৃক্ষরোপণে জাতীয় পুরষ্কার (১ম স্বর্ণপদক) প্রাপ্ত।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য বিকাশে ঔপনিবেশিক শক্তির দায়
আরও পড়ুন