Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ০৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মুহাররম ১৪৪৪

শত্রুর অস্ত্র ‘বাদামের মতো’ ভাঙছে ও প্রযুক্তি নিচ্ছে রাশিয়া : পুতিন

ইউক্রেনের অস্ত্র-সরঞ্জামবাহী বিমান ভূপাতিত করল রাশিয়া রাশিয়া আজভস্টালে সমস্ত সামরিক কাজ সম্পন্ন করেছে: ল্যাভরভ ডনবাসে এই প্রথম ইলেকট্রনিক জ্যামিং সিস্টেম মোতায়েন রাশিয়া ইস্যুতে ম

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

শনিবার প্রচারিত একটি সাক্ষাৎকারের একটি সংক্ষিপ্ত অংশে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, রাশিয়ান বিমান বিধ্বংসী বাহিনী ইউক্রেনকে দেয়া পশ্চিমাদের কয়েক ডজন অস্ত্র গুলি করেছে এবং ‘এগুলোকে বাদামের মতো ভেঙে ফেলছে’। গতকাল ইউক্রেনের জন্য পশ্চিমা সামরিক সরবরাহ লক্ষ্য করে কিয়েভে বিমান হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। তারা বলেছে যে, বিদেশ থেকে দান করা ট্যাঙ্কগুলো ধ্বংস করা হয়েছে, কারণ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সতর্ক করেন যে, ইউক্রেনে দূরপাল্লার রকেট সিস্টেমের যে কোনো পশ্চিমা সরবরাহ মস্কোকে ‘বস্তুগুলোকে আঘাত করতে প্ররোচিত করবে।’
আরআইএ নিউজ এজেন্সি, যেটি প্রথমে মন্তব্যগুলোকে উদ্ধৃত করেছিল, পুতিনকে উদ্ধৃত করে মার্কিন-সরবরাহকৃত অস্ত্র সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে বলেছে, রাশিয়া সহজেই মোকাবিলা করছে এবং ইতোমধ্যেই ডজন ডজন অস্ত্র ধ্বংস করেছে। তবে গতকাল প্রচারিত একটি সাক্ষাৎকারের ক্লিপটি স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, পুতিন আসলে একটি ভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলেন, যা দেখানো হয়নি। পুতিন বলেন, ‘আমাদের বিমান বিধ্বংসী ব্যবস্থা এগুলোকে বাদামের মতো কুঁচকে দিচ্ছে। ডজন ডজন ধ্বংস হয়ে গেছে।’ অস্ত্রের সঠিক ধরন স্পষ্ট করলেও রাশিয়া বলেছে যে, তারা ইউক্রেনের বিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র উভয়ই ধ্বংস করেছে।
প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্র অস্ত্র বিক্রি করলেও প্রযুক্তি কখনও শেয়ার করে না। শত্রুর হাতে প্রযুক্তি যাতে না পড়ে, সেজন্য ইরাক-আফগানিস্তানেও তারা নিজেদের অনেক অস্ত্র নিজেরাই ধ্বংস করেছে। কিন্তু ইউক্রেনকে তারা যে অস্ত্র দিয়েছে তা রাশিয়ার হাতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে সহজেই তারা সেই প্রযুক্তি গ্রহণ করতে পারবে।
ইউক্রেনের অস্ত্র-সরঞ্জামবাহী বিমান ভূপাতিত করল রাশিয়া : প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মেজর-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ গতকাল বলেছেন, রাশিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী ওডেসার কাছে একটি ইউক্রেনীয় অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম পরিবাহী অ্যাএন-২৬ বিমান আকাশসীমায় গুলি করে ভূপাতিত করেছে। তিনি বলেন, ‘রাশিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ওডেসা শহরের কাছে ইউক্রেনীয় বিমান বাহিনীর একটি অ্যাএন-২৬ পরিবহন বিমানকে গুলি করে ভূপাতিত করেছে। বিমানটি অস্ত্র ও সামরিক হার্ডওয়্যার পরিবহন করছিল’।
পশ্চিমা চালান লক্ষ্য করে কিয়েভে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ : রাশিয়ান নেতার কাছ থেকে সামরিক বৃদ্ধির রহস্যজনক হুমকি নতুন লক্ষ্যগুলি কী হতে পারে তা নির্দিষ্ট করেনি, তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনের জন্য ৭০০ মিলিয়ন ডলারের নিরাপত্তা সহায়তা প্রদানের পরিকল্পনা ঘোষণা করার কয়েকদিন পরে আসে যার মধ্যে চারটি নির্ভুল-নির্দেশিত, মাঝারি- রেঞ্জ রকেট সিস্টেম, হেলিকপ্টার, জ্যাভলিন অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক অস্ত্র সিস্টেম, রাডার, কৌশলগত যান, খুচরা যন্ত্রাংশ এবং আরও অনেক কিছু রয়েছে। সামরিক বিশ্লেষকেরা বলছেন যে, যে কোনো অস্ত্র আসার আগে রাশিয়া বিরোধপূর্ণ পূর্ব ডনবাসের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার আশা করছে, যেখানে রাশিয়া-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা বছরের পর বছর ধরে ইউক্রেনের সরকারের সাথে লড়াই করেছে। পেন্টাগন এ সপ্তাহের শুরুতে বলেছিল যে, যুদ্ধক্ষেত্রে মার্কিন অস্ত্র এবং প্রশিক্ষিত সেনাদের নির্ভুলতা পেতে কমপক্ষে তিন সপ্তাহ সময় লাগবে।
রাশিয়ান বাহিনী রোববারের প্রথম দিকে কিয়েভে রেলওয়ে সুবিধা এবং অন্যান্য অবকাঠামোতে আঘাত করে। তবে রাশিয়ার বিমান হামলায় ট্যাংক ধ্বংস হয়েছে বলে ইউক্রেন থেকে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো নিশ্চিতকরণ পাওয়া যায়নি। ২৮ এপ্রিল জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সফরের পর থেকে কিয়েভ এমন কোনো হামলার সম্মুখীন হয়নি। ভোরবেলা আক্রমণটি বিমান হামলার অ্যালার্মের সূত্রপাত করে এবং দেখায় যে, রাশিয়ার এখনও পূর্ব দিকে তার প্রচেষ্টাকে কেন্দ্রীভূত করার জন্য দেশ জুড়ে বিস্তৃত আক্রমণ পরিত্যাগ করার পর থেকে ইউক্রেনের হৃদয়ে আঘাত করার ক্ষমতা এবং ইচ্ছা রয়েছে।
রাশিয়া আজভস্টালে সমস্ত সামরিক কাজ সম্পন্ন করেছে : মারিউপোলের আজভস্টাল প্ল্যান্টে রাশিয়ার বিশেষ অপারেশনের সমস্ত কাজ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের আদেশ অনুসারে ন্যূনতম ক্ষতির সাথে সম্পন্ন হয়েছিল। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বসনিয়ান-সার্ব টেলিভিশন এবং রেডিও সংস্থার সাথে একটি সাক্ষাতকারে বলেছেন।
‘মারিউপোল, আজভস্টাল - সমস্ত কাজ সমাধান করা হয়েছিল, এবং ন্যূনতম ক্ষতিসহ। আপনি জানেন যে, প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আজভস্টালের কোনো ক্ষয়ক্ষতি না করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। অবরোধের ফলে, আজভ ব্যাটালিয়নের কুখ্যাত ঠগরা যারা সেখানে ছিল তারা কেবল আত্মসমর্পণ করেছিল,’ তিনি বলেন। ল্যাভরভের মতে, আত্মসমর্পণকারী নাৎসিরা এখন প্রমাণ দিচ্ছে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ‘আমি মনে করি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির অধীনে তারা কীভাবে এই নব্য-নাৎসি তত্ত্ব গ্রহণ ও অনুশীলন করেছে এবং দৈনন্দিন জীবনে তা কাজে লাগিয়েছে সে সম্পর্কে অনেক আকর্ষণীয় তথ্য বলবে।’
ডনবাসে এই প্রথম ইলেকট্রনিক জ্যামিং সিস্টেম মোতায়েন : ইউক্রেনের ডনবাস এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাশিয়া সেখানে প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক জ্যামিং সিস্টেম স্থাপন করেছে। পাশাপাশি সেখানে, রুশ যুদ্ধ বিমানের টহলও বেড়েছে।
লুহানস্ক প্রদেশে কিয়েভ নিযুক্ত গভর্নর সের্হি গাইদাই বলেছেন যে, সেভেরোডোনেৎস্কের মূল শহরের জন্য লড়াইয়ে স্থল ইউনিটগুলি ‘বিশাল ক্ষতির’ সম্মুখীন হওয়ায় অগ্রগতির জন্য রাশিয়াকে বিমান হামলার উপর নির্ভর করতে হয়েছিল। সেভেরোডোনেৎস্কের পতন হলে, লাইসিচানস্ক হবে শেষ শহর যেটি লুহানস্ক প্রদেশের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের জন্য রাশিয়াকে দখল করতে হবে, যেটি ডোনেৎস্ক প্রদেশের সাথে ডনবাস নিয়ে গঠিত। একটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনে, পূর্ব ইউক্রেনে ইলেকট্রনিক যুদ্ধ অনেক বেশি একটি ফ্যাক্টর হয়ে উঠেছে, যেখানে সংক্ষিপ্ত সরবরাহ লাইন রাশিয়াকে আরও সহজে সরঞ্জামাদি সরানোর সুযোগ দিচ্ছে। বৈদ্যুতিন যুদ্ধের তিনটি মৌলিক উপাদান রয়েছে: অনুসন্ধান, আক্রমণ এবং সুরক্ষা। প্রথমত, শত্রু ইলেকট্রনিক সংকেত সনাক্ত করে বুদ্ধিমত্তা সংগ্রহ করা হয়। আক্রমণে, জ্যামিং রেডিও এবং টেলিফোন যোগাযোগ, বিমান প্রতিরক্ষা এবং আর্টিলারি রাডার সহ শত্রু সিস্টেমগুলিকে অক্ষম ও অবনমিত করে। তারপর আছে স্পুফিং, যা বিভ্রান্ত করে এবং প্রতারণা করে। যখন এটি কাজ করে, যুদ্ধাস্ত্রগুলো তাদের লক্ষ্য মিস করে।
ইউক্রেনের একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা রাশিয়ান হুমকিকে ‘বেশ গুরুতর’ বলে অভিহিত করেছেন যখন এটি সেনাদের সাথে পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টা এবং কমান্ডারদের যোগাযোগ ব্যাহত করার কথা আসে। ইউক্রেন শত্রুদের সনাক্ত করার জন্য যে ড্রোন ব্যবহার করে ও আক্রমণের জন্য যেসব আর্টিলারি ব্যবহার করে, রাশিয়া সেগুলোকে জ্যামিং সিস্টেমের মাধ্যমে অকেজো করে দিচ্ছে। ‘তারা তাদের সিস্টেমে পৌঁছাতে পারে এমন সবকিছুই জ্যাম করছে,’ ইউক্রেনীয় মানববিহীন আকাশযান পুনরুদ্ধার দলের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যিনি নিরাপত্তার উদ্বেগের কারণে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কথা বলেছেন, ‘আমরা বলতে পারি না যে তারা আধিপত্য বিস্তার করে, কিন্তু তারা আমাদের ব্যাপকভাবে বাধা দেয়।’
রাশিয়ার মোতয়েন করা সিস্টেমের মধ্যে রয়েছে ক্রাসুখা-৪, যেটিকে ইউএস আর্মি ডাটাবেস বলেছে যে, ১০০ মাইলেরও বেশি দূর থেকে স্যাটেলাইট সিগন্যালের পাশাপাশি নজরদারি রাডার এবং রাডার-নির্দেশিত অস্ত্রগুলি জ্যাম করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। অন্যটি ছিল আরও উন্নত বোরিসোগলেবস্ক-২, যা ড্রোন গাইডেন্স সিস্টেম এবং রেডিও-নিয়ন্ত্রিত ল্যান্ড মাইন জ্যাম করতে পারে। ক্রেমলিন আরও দাবি করে যে, তারা ১ হাজারেরও বেশি ছোট, বহুমুখী ওরল্যান-১০ মনুষ্যবিহীন ড্রোন মোতয়েন করেছে যেটি হামলা চালাতে পারে ও লক্ষ্যবস্তু জ্যামিং এবং টেলিফোন নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দিতে পারে।
শনিবার একটি গোয়েন্দা আপডেটে, যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘অপারেশনাল ফোকাস ডনবাসে স্যুইচ করার সাথে সাথে, রাশিয়া তার ক্রমবর্ধমান অগ্রগতিকে সমর্থন করার জন্য কৌশলগত বিমান ও ড্রোনের কর্মসংস্থান বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। তারা বিমান এবং আর্টিলারি হামলাকে একত্রিত করতে সক্ষম হয়েছে। যা তাদেরকে অপ্রতিরোধ্য করে তুলেছে।’ মন্ত্রণালয় আরও বলেছে, ‘এ অঞ্চলে রাশিয়ার সাম্প্রতিক কৌশলগত সাফল্যের ক্ষেত্রে বিমান এবং কামান হামলার সম্মিলিত ব্যবহার একটি মূল কারণ।’
রাশিয়া ইস্যুতে ম্যাখোঁর মন্তব্যে ক্ষুব্ধ ইউক্রেন : ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন ‘ঐতিহাসিক’ ভুল করেছেন, কিন্তু এজন্য রাশিয়াকে অপমান করা উচিত হবে না বলে সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে উল্লেখ করেছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। তার এই মন্তব্য যে কিয়েভ একেবারেই সমর্থন করেনি, শনিবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে তা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্র কুলেবা।
শনিবারের টুইটবার্তায় কুলেবা বলেন, রাশিয়া নিয়ে সাম্প্রতিক মন্তব্যের মাধ্যমে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট আসলে ফ্রান্স ও অন্যান্য দেশ, যারা এ যুদ্ধের বিপক্ষে- তাদের অপমান করেছেন। রাশিয়াকে আলাদা করে অপমান করার কিছু নেই, কারণ রাশিয়া নিজেই নিজেকে অপমান করেছে। এখন আমাদের মনযোগ দেয়া উচিত- কীভাবে রাশিয়াকে তার নিজের জায়গায় ফিরিয়ে নেয়া যায়।
সম্প্রতি ফ্রান্সের একটি সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাতকার দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। সেখানে ইউক্রেনে অভিযান শুরুর আগে পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের র্স্মতিচারণের পাশাপাশি রাশিয়া ইস্যুতে ইউরোপের নীতি কেমন হওয়া উচিত, সে বিষয়ে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন তিনি। ম্যাখোঁ বলেন, (বৈঠকে) আমি তাকে বলেছিলাম, যদি তিনি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর নির্দেশ দেন— তাহলে সেটি হবে তার জনগণের জন্য, তার নিজের জন্য ও ইতিহাসের জন্য একটি ঐতিহাসিক ভুল। আমি এখনও তা মনে করি। তবে আমি এটাও মনে করি যে, পুতিনের ঐতিহাসিক এই ভুলের জন্য রাশিয়াকে অপমান করা আমাদের কখনও উচিত হবে না। কারণ, যুদ্ধ একদিন শেষ হবে এবং আমাদের সবাইকে আবার কূটনৈতিক সম্পর্কের মধ্যে যেতে হবে।
ইউক্রেনে পশ্চিমাদের আর্টিলারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে হামলা : রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ শনিবার বলেছেন যে, রাশিয়ার উচ্চ-নির্ভুল বিমানচালিত ক্ষেপণাস্ত্রগুলি সুমির বাইরে বিদেশী প্রশিক্ষক, ২৭ জন সৈন্য ও গোলাবারুদ এবং দুটি কমান্ড পোস্ট সহ ইউক্রেনের একটি আর্টিলারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে আঘাত করেছে।
‘সুমি অঞ্চলের স্টেটসোভকা বন্দোবস্ত এলাকায় বিদেশী প্রশিক্ষকদের সাথে একটি ইউক্রেনীয় আর্টিলারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে উচ্চ-নির্ভুলতা থেকে চালানো ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত করেছে,’ তিনি বলেছিলেন। মুখপাত্র বলেছেন যে, বিদেশী প্রশিক্ষকরা অপারেটিং ১৫৫-মিমি এম৭৭৭ হাউইটজার ব্যবহার করার জন্য ইউক্রেনীয়দের তরান্বিত করতে কেন্দ্রটি ব্যবহার করেছিলেন। কোনাশেনকভ বলেছেন যে, ওডেসা অঞ্চলের ডাচনয়ে জেলায় একটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় একটি বিদেশী ভাড়াটে বাহিনী ধ্বংস হয়েছে। ‘এছাড়া, ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনীর ২৭ জন্য সৈন্যসহ একটি সামরিক গুদামে হামলা করা হয়েছে এবং ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনীর দুটি কমান্ড পোস্ট, ভেসিওলোয়ের বসতিগুলির এলাকায় ক্ষেপণাস্ত্র এবং আর্টিলারি অস্ত্র, গোলাবারুদ এবং জ্বালানির ছয়টি ডিপো ধ্বংস করা হযেছে,’ তিনি বলেছিলেন
পালানোর সময় মঠে আগুন দেয় ইউক্রেনের সেনারা : রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় শনিবার বলেছে যে, ইউক্রেনের জাতীয়তাবাদীরা স্ব্যাটোগোর্স্ক থেকে পিছু হটার সময় একটি কাঠের মঠে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। রুশ সেনার দুর্নাম করতে তারা এ কাজ করে বলে মনে করা হচ্ছে। মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘ইউক্রেনের জাতীয়তাবাদীরা ৪ জুন স্ব্যাটোগোর্স্ক ডরমিশন লরা-এর একটি কাঠের মঠে আগুন লাগিয়ে দেয়, কারণ ইউক্রেনের ৭৯তম বিমান হামলা ব্রিগেড ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের স্ব্যাটোগোর্স্ক শহর থেকে পিছু হটেছিল।’ মন্ত্রণালয় বলেছে, অগ্নিসংযোগ সম্পূর্ণ করে ইউক্রেনীয় জাতীয়তাবাদীরা দক্ষিণে ইউক্রেনীয়-নিয়ন্ত্রিত সিডোরোভোর বসতির দিকে পালিয়ে যায়।
প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে মুখপাত্র মেজর-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ গতকাল বলেছেন, পূর্ব ইউরোপীয় দেশগুলো থেকে ইউক্রেনে সরবরাহ করা টি-৭২ ট্যাঙ্কগুলিকে নিশ্চিহ্ন করতে কিয়েভের উপকণ্ঠে রেল-গাড়ি মেরামতের প্ল্যান্টের বিরুদ্ধে রাশিয়ান এরোস্পেস বাহিনী নির্ভুল ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা হামলা চালিয়েছে। কোনাশেনকভ বলেছেন, রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র ও আর্টিলারি সৈন্যরা গত ২৪ ঘন্টায় ৪৬টি ইউক্রেনীয় কমান্ড পোস্ট, ১২৩টি আর্টিলারি এবং মর্টার ইউনিট ফায়ারিং পজিশনে নিশ্চিহ্ন করেছে। ‘মিসাইল এবং আর্টিলারি সৈন্যরা নিম্নলিখিত লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করেছে: ৪৬টি কমান্ড পোস্ট, ১২৩টি আর্টিলারি এবং মর্টার ইউনিট ফায়ারিং পজিশনে এবং এছাড়াও ৪৯৮টি ইউক্রেনীয় জনশক্তি এবং সামরিক হার্ডওয়্যার সংগ্রহ করা এলাকা,’ মুখপাত্র বলেছেন।
রাশিয়ান মহাকাশ বাহিনী ইউক্রেনের ৮১তম এবং ৯৫তম এয়ার অ্যাসল্ট ব্রিগেড এবং ইউক্রেনীয় সামরিক হার্ডওয়্যার মেরামতের ওয়ার্কশপের কমান্ড পোস্টগুলিকে নিশ্চিহ্ন করতে নির্ভুল ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা হামলা চালিয়েছে, কোনাশেনকভ বলেছেন। সূত্র : তাস, বিবিসি নিউজ, দ্য টেলিগ্রাফ, এপি, ইউএস নিউজ।



 

Show all comments
  • আহমদ ৬ জুন, ২০২২, ১:২৭ এএম says : 0
    ইউক্রেন ও রাশিয়ার সংঘাতে শেষ পর্যন্ত রাশিয়ার জয় হবে
    Total Reply(0) Reply
  • আহমদ ৬ জুন, ২০২২, ১:৩১ এএম says : 0
    রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের মূল কারণ পশ্চিমা বিশ্বের ইন্ধন। পম্চিমা বিশ্বের নেতারা এখনো চাইলে এ সংঘাত শেষ হয়ে যাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ৬ জুন, ২০২২, ১:৩১ এএম says : 0
    আমরা পৃথিবীতে শান্তি চায়
    Total Reply(0) Reply
  • Mohiuddin molla ৬ জুন, ২০২২, ৭:০২ এএম says : 0
    পশ্চিমারা নিপাত যাক।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন