Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

সংঘাত নিয়ে আতঙ্কিত ইউরোপ : এরদোগান

শুধু রুশ যুদ্ধজাহাজ বন্দরে ফেরত নেয়া যাবে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ জুন, ২০২২, ১২:১৪ এএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজপ তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন, ইউক্রেনের সংঘাতে ইউরোপ আতঙ্কে রয়েছে। রোববার ক্ষমতাসীন জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির কংগ্রেসে এরদোগান বলেন, ‘আমরা এমন সময়ে রাশিয়া-ইউক্রেনীয় সঙ্কট নিয়ে ইউরোপে আতঙ্ক লক্ষ্য করছি, যখন আমাদের দেশ এগারো বছর ধরে সিরিয়া থেকে অবৈধ অভিবাসনের সাথে সফলভাবে মোকাবিলা করেছে। আমরা বিশ্বের এই সঙ্কট ময় সময় থেকে দ্রুত বেরিয়ে আসার জন্য প্রার্থনা করছি।’ গত ২৪ ফেব্রুয়ারী, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সাহায্যের জন্য দুটি ডনবাস প্রজাতন্ত্রের নেতাদের অনুরোধের প্রতিক্রিয়ায় একটি বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করেছিলেন। তিনি জোর দিয়েছিলেন যে, মস্কোর পরিকল্পনার মধ্যে ইউক্রেনীয় অঞ্চলগুলি দখল করা অন্তর্ভুক্ত নয়, এর একমাত্র লক্ষ্য হচ্ছে দেশটির নিরস্ত্রীকরণ এবং ডিনাজিফিকেশন। অপর এক খবরে বলা হয়, তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু বলেছেন, আঙ্কারা বসফরাস এবং দারদানেলেস প্রণালি দিয়ে যুদ্ধজাহাজ চলাচল বন্ধ করে দিতে পারে। তবে রাশিয়া তাদের নৌবহরকে নিজেদের ঘাঁটিতে ফেরত নেয়ার জন্য প্রণালি দুইট ব্যবহার করতে পারবে। ‘ইউক্রেন আমাদেরকে একটি আনুষ্ঠানিক অনুরোধ পাঠিয়েছে (রাশিয়ান যুদ্ধজাহাজের জন্য প্রণালি বন্ধ করে দেয়ার জন্য)। মন্ট্রেক্স কনভেনশনের বিধানগুলি খুবই স্পষ্ট এবং সুনির্দিষ্ট। আজ অবধি, তুরস্ক নিঃসঙ্কোচে মন্ট্রেক্স কনভেনশন মেনে চলছে। ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব। যে যুদ্ধে তুরস্ক জড়িত নয় তার পক্ষের প্রতি। তুরস্ক প্রণালী দিয়ে যুদ্ধজাহাজ চলাচল সীমিত করতে পারে। তবে মন্ট্রেক্স কনভেনশন এও বলে যে যুদ্ধে জড়িত দেশগুলির জাহাজের তাদের ঘাঁটিতে ফিরে যাওয়ার অধিকার রয়েছে এবং করা উচিত। এটি করার অনুমতি দেয়া হবে,’ হুরিয়েত সংবাদপত্র কাভুসোগলুকে উদ্ধৃত করে বলেছে। শীর্ষ কূটনীতিকের মতে, তুর্কি বিশেষজ্ঞরা বিষয়টি অধ্যয়ন করছেন এবং ‘যদি একটি যুদ্ধকালীন তুরস্কে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি বোডনার বৃহস্পতিবার আঙ্কারায় তুর্কি-নিয়ন্ত্রিত প্রণালী দিয়ে রুশ যুদ্ধজাহাজ চলাচল সীমিত করার আহ্বান জানিয়েছেন। পরিস্থিতি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয় তবে প্রক্রিয়া শুরু হবে।’ ‘স্পষ্টতই, রাশিয়ার আক্রমণকে যুদ্ধ হিসাবে বর্ণনা করতে তুরস্কের এগুলো প্রয়োজন,’ কাভুসোলগু ব্যাখ্যা করেছেন। উল্লেখ্য, গত মার্চে রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ডনবাস প্রজাতন্ত্রের প্রধানদের অনুরোধের ভিত্তিতে একটি বিশেষ সামরিক অভিযান ঘোষণা করেছেন। রাশিয়ান নেতা জোর দিয়েছিলেন যে, মস্কোর ইউক্রেনীয় অঞ্চল দখল করার কোন পরিকল্পনা নেই। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরে জানিয়েছে যে, রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনী ইউক্রেনের শহরগুলিতে হামলা চালাচ্ছে না। মন্ত্রণালয় জোর দিয়েছিল যে, ইউক্রেনের সামরিক অবকাঠামো নির্ভুল অস্ত্র দ্বারা ধ্বংস করা হচ্ছে এবং বেসামরিক নাগরিকদের জন্য কোন হুমকি নেই। তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সংঘাত নিয়ে আতঙ্কিত ইউরোপ : এরদোগান
আরও পড়ুন