Inqilab Logo

শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ০৫ রজব ১৪৪৪ হিজিরী
শিরোনাম

ইউক্রেন সঙ্কটের কারণে মন্দার মুখে বহু দেশ: বিশ্বব্যাংক

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ জুন, ২০২২, ৬:৩৭ পিএম

করোনাভাইরাস মহামারীতে বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আরেক দফা সঙ্কটে পড়ায় অনেক দেশ মন্দার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব ব্যাংক। এ যুদ্ধের কারণে জি-৭ সহ পূর্ব এশিয়ার স্বল্পোন্নত দেশগুলোর অনেকেই ‘বড় ধরনের মন্দা’র কবলে পড়েছে বলেও জানাচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক।

এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপাস বলছেন, মুদ্রাস্ফীতির উচ্চহার এবং প্রবৃদ্ধি হ্রাস বা তথাকথিত ‘স্ট্যাগফ্লেশন’-এর ঝুঁকিও বাড়ছে। এ ছাড়া বাড়ছে বিশ্বজুড়ে জ্বালানি ও খাদ্যদ্রব্যের দাম। উচ্চ মূল্যস্ফীতির সঙ্গে প্রবৃদ্ধির নিম্নগতি অর্থনীতিকে স্থবির করে ফেলছে। আর তাতে ইউরোপ ও পূর্ব এশিয়ার স্বল্পোন্নত দেশগুলো অর্থনৈতিক মন্দার বড় ধরনের ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।

তিনি বলেন, ইউক্রেনে যুদ্ধ, চীনে লকডাউন, সরবরাহ-শৃঙ্খলা বা ‘সাপ্লাই চেইনে’ বিঘ্ন, এবং অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার ঝুঁকি প্রবৃদ্ধির ওপর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। ফলে অনেক দেশের জন্য মন্দা এড়ানো কঠিন হবে। বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট এরই মধ্যে জুনের বিশ্বব্যাংকের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পূর্বাভাস প্রতিবেদনে স্ট্যাগফ্লেশনের আসন্ন বিপদ নিয়ে সতর্ক করেছেন।

ডেভিড ম্যালপাস আরও বলেন, ‘বিশ্বের বেশির ভাগ অঞ্চলে দুর্বল বিনিয়োগের কারণে প্রবৃদ্ধির নিম্নহার পুরো দশকজুড়ে অব্যাহত থাকতে পারে। এ ছাড়া বহু দেশে মুদ্রাস্ফীতি এখন বহু-দশকের মধ্যে সর্বাধিক হারে চলমান। এবং সরবরাহের গতি মন্থর থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যে কারণে মুদ্রাস্ফীতি দীর্ঘদিন জারি থাকার ঝুঁকি রয়েছে।’

বিশ্বের সব দেশকে ইতোমধ্যে একটি মহামারী মোকাবেলা করতে হয়েছে। তাদের সেই সম্মিলিত চেষ্টায় এবার ঢিল পড়লে বিশ্ব আরও দীর্ঘ সঙ্কটে পড়বে বলে বিশ্ব ব্যাংক সতর্ক করেছে। এখনকার এই কঠিন পরিস্থিতি যে কেবল দুঃখ এবং সামাজিক অস্থিরতা ডেকে আনবে, তা নয়; বছরের পর বছর এ সঙ্কট মানুষকে দুর্দশায় ডুবিয়ে রাখতে পারে। সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিশ্বব্যাংক


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ