Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫, ১২ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌
শিরোনাম

ট্রাম্প কি বিশ^বাসীর জন্য অশনি সংকেত?

ডা. রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ | প্রকাশের সময় : ২৩ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই মার্কিনিরা বিক্ষোভ শুরু করেছে। দেশটির বিভিন্ন রাজ্যে এই ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে কেউই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে মেনে নিতে পারছেন না। অনেকেই মনে করছেন, আইনি প্রক্রিয়াই হলেও ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে অপসারণ করা হোক, তাদেরই একজন আইন বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ক্রিস্টোফার পিটারসন তার মতে, ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। এর দুটি এমন অপরাধ যাতে তাকে অভিশংসন করা যেতে পারে।
জানা গেছে, ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রায় ৭৫টি মামলা রয়েছে এর মধ্যে একটি বিশ^বিদ্যালয়ের হাজার হাজার অভিভাবকের কাছ থেকে বড় অংকের ফান্ড সংগ্রহ করেন। কিন্তু ২০১০ সালে তিনি বিশ^বিদ্যালয়টি বন্ধ করে দেন। এছাড়া ২০১৩ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্প তার অনিবন্ধিত একটি বিশ^বিদ্যালয়ের জন্য বেআইনিভাবে চার কোটি ডলার অনুদান তোলেন এ অভিযোগেও তার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে, নিউইয়র্কের সিনেট অ্যাটর্নি জেনারেলের কর্মকর্তা অ্যামি স্পিটালনিক এ মামলাটি করেন। চলতি বছরের মার্চ মাসে এ মামলাটির বিচার চলবে বলে রায় দেন আদালত। অবশ্য এর বিরুদ্ধে আপিল করেছেন ট্রাম্প। তবে সর্বশেষ খবরে বলা হয়েছে, তিনি এখন জরিমানা দিয়ে বিষয়টি আদালতের বাইরে নিষ্পত্তি করার উদ্যোগ নিয়েছেন।
অন্যদিকে প্রফেসর পিটারসন দাবি করেন, ট্রাম্প দুর্নীতি ও অপরাধমূলক কর্মকা-ের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে মিথ্যা বিবৃতি দিয়ে ব্যবসা করা সম্পূর্ণ বেআইনি কিন্তু ট্রাম্প এমন কাজটিই করেছেন এক্ষেত্রে বিস্তর প্রমাণও রয়েছে। এমনিতেই মার্কিন রাষ্ট্রজুড়ে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ চলছে। এর মধ্যে অরিগান অঙ্গরাজ্যের পোর্টল্যান্ডে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভকালে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়েছে স্থানীয় মেয়র ও পুলিশপ্রধান বিক্ষোভকারীদের প্রশমিত হওয়ার আহ্বান জানালেও তারা থামেনি। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। পরে তা ক্রমশ তীব্র হয়ে সহিংসতায় রূপ নিচ্ছে।
পোর্র্টল্যান্ডে ছাড়াও ডেনভার মিনিয়াপলিস মিলওয়ার্ডকি ওকল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ হয়েছে। শতাধিক বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটেছে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুরের ঘটনা। এমনকি তারা পুলিশ কর্মকর্তাদের হত্যার হুমকি দেয় পুলিশের দিকে ইটপাথর নিক্ষেপ করার সময় কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়। মার্কিন ইতিহাসে সম্প্রতি নজিরবিহীন বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। মার্কিন প্রশাসনের কেন্দ্র হোয়াইট হাউসের সামনেও বিক্ষোভ করেন ট্রাম্পবিরোধীরা। মেক্সিকোর রাজধানীতেও ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে। ওয়াশিংটন ডিসিসহ ওয়েস্টকোস্ট, নিউইয়র্ক বোস্টান, অস্টিন, সিয়টল, গুকল্যান্ড, কালিনসহ অন্তত ২৫টি শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। আয়োজকরা দেশজুড়ে আরো বিক্ষোভের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। নিউইর্য়কের ইউনিয়ন স্কয়ারে বিক্ষোভের জন্য ইতোমধ্যে হাজার হাজার মানুষ নিবন্ধন করেছেন সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল যাবে ট্রাম্পের বাড়ি ও তার কর্পোরেট অফিসেও। নিউইয়র্কের বিক্ষোভের প্রচারণার আয়োজকরা তাদের ফেইসবুকে পোস্টে আহ্বান জানিয়েছেন রাস্তায় আমাদের সাথে যোগ দিন ট্রাম্প এবং তার গোড়ামি এজেন্ডা রুখে দাঁড়ান আগামী ২০ জানুয়ারি ট্রাম্প হোয়াইট হাউসের আনুষ্ঠানিক ক্ষমতা গ্রহণ করবেন।
বিক্ষোভকারীরা ঐ সময় ওয়াশিংটনের রাস্তায় ১০ লাখ নারী বিক্ষোভ করবেন বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন। বামপন্থী ও অ্যানর্কিস্ট গ্রুফগুলোও ট্রাম্পের শপথগ্রহণের সময় রাজধানীতে বিক্ষোভের প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা অনলাইনে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছেন। ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার-এর প্রতিষ্ঠাতা প্যাট্রিসকুলার জানিয়েছেন তারা নির্বাচনের ফলাফলে হতাশ হয়েছেন, তারা শপথগ্রহণের সময়ও বিক্ষোভের পরিকল্পনা নিয়েছেন। তাহলে ট্রাম্পের ক্ষমতায় টিকে থাকাও তার মেয়াদকাল কী এক আজব বিশে^ পরিণত হবে? ট্রাম্প তার মত পরিবর্তনের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে তিনি সিদ্ধান্ত পাল্টান যদি লাভের নতুন ক্ষেত্র দেখতে পান। তিনি সবসময় অন্য কোনো কথা বলার কথা অস্বীকার করেন।
প্রফেসর অ্যালিসন ট্রাম্পের মধ্যে অ্যান্ডুজ্যাকসনের ১৮২৮ সালের নির্বাচনী বিপ্লবের স্মৃতির পুনরাবৃত্তি দেখেছেন। অ্যালিসন ট্রাম্পের অনুকূলে ভোটের ফলাফল দেখে বলেন, আমরা এক অদ্ভূত নতুন দেশে আছি। এ কথাই ফরাসি জ্যোতিষীর ভবিষ্যদ্বাণী স্মরণ করিয়ে দেয়। যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্পের মতো এক বদ প্রেসিডেন্ট ক্ষমতাসীন হওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছিলেন ১৬ শতকের এক বিখ্যাত ফরাসি জ্যোতিষী ও দার্শনিক যার নাম নস্ট্রাডামাস। তিনি ১৬ শতকেই পূর্বাভাস দিয়েছিলেন এ বিষয়ে তিনি বলেছেন, আমেরিকায় এক প্রেসিডেন্ট এসে মারাত্মক যুদ্ধ বাঁধাবেন এবং পৃথিবীকে ধ্বংস করবেন এর আগে হিটলারের সম্পর্কেও তার ভবিষ্যদ্বাণী রয়েছে বলে জানা গেছে।
এছাড়াও নাইন ইলেভেনের ঘটনাও অনেকেই তার ভবিষ্যদ্বাণীতে খুঁজে পান। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে মিরর। তার এ ভবিষ্যদ্বাণীতেই রয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথা, বিশে^র অনেক উল্লেখযোগ্য ঘটনার ভবিষ্যদ্বাণীর জন্য তিনি বিখ্যাত। ট্রাম্পের ভবিষ্যদ্বাণী সম্পর্কে নস্ট্রাডামাসের ভবিষ্যদ্বাণীতে ট্রাম্পের সঙ্গে মিল রয়েছে এমন একজন মার্কিন প্রেসিডেন্টের কথা আছে বলেই মনে করছেন অনেক বিশ্লেষক। তারা এই জ্যোতিষীর দেয়া পূর্বাভাস বিশ্লেষণ করে বলেছেন ট্রাম্প এসে মারাত্মক যুদ্ধ বাঁধাবেন এবং পৃথিবীকে ধ্বংস করবেন। নস্ট্রাডামাস তার বর্ণনায় ট্রাম্পকে দারুণ লজ্জাহীন এবং উদ্ধত্য ঝগড়াটে ব্যক্তি হিসেবে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন, সে লজ্জাহীন ব্যক্তি সরকারপ্রধান নির্বাচিত হবেন তিনি স্থূল তর্ক করবেন তাতে সেতুবন্ধন ভেঙ্গে যাবে, শহরে ভীতি ছড়িয়ে পড়বে। এছাড়া নস্ট্রাডামাসের পূর্বাভাসে রয়েছে মারাত্মক সংঘাতের কথা যা তৃতীয় বিশ^যুদ্ধকেই ইঙ্গিত বলে মনে করছেন অনেকে।
এদিকে ডোনাল্ড ট্রাম্প তার সম্ভাব্য প্রশাসনের কর্ণধার হিসেবে বেছে বেছে যুদ্ধবাজদেরই মনোনয়ন দিচ্ছেন। এটা থেকেও নতুন আশঙ্কা সৃষ্টি হচ্ছে যে, এই ট্রাম্পই হয়তো নস্ট্রাডামাসের ইঙ্গিত করা সেই যুদ্ধবাজ প্রেসিডেন্ট।
ষ লেখক : কলামিস্ট ও রাজনীতিবিদ



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।