Inqilab Logo

শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে ইসিকে আইন সংস্কারের প্রস্তাব দেয়ার পরামর্শ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) প্রয়োজনে সরকার বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আইন সংস্কারের প্রস্তাব দেয়ার পরামর্শ দিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। বাংলাদেশে আসন্ন নির্বাচনে সবার জন্য সমান ক্ষেত্র নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে টিআইবি নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারের চরিত্র, আচরণ, আকার এবং গঠন কি হবে তা নিয়ে দেশবাসীর প্রত্যাশা এবং উদ্বেগ রয়েছে। তাই নির্বাচনকালীন সরকারের আচরণ কেমন হওয়া উচিত তা নিয়ে সরকার কিংবা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্বাচন কমিশন তার সুচিন্তিত পরামর্শ দিতে পারে। একইভাবে প্রয়োজনীয় আইনের সংস্কার করার প্রস্তাবও দিতে পারে নির্বাচন কমিশন। গতকাল সোমবার আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে কমিশনের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের কাছে একথা বলেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।
তিনি বলেন, নাগরিক সমাজের সাথে কমিশনের যে বৈঠক হয়েছিল তার ফলোআপ হিসেবে নির্বাচনের সাথে বৈঠক করেছি। আমরা, আপনারা, দেশবাসী সবাই চায়, আসন্ন নির্বাচন যেনো অবাধ, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হয় এবং লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড যেনো হয়। সেই বিষয়ে আমরা কতগুলো প্রস্তাবনা করেছি। ড. জামান বলেন, নির্বাচন কমিশনের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। এটি করার জন্য তাদের নিজস্ব বিশ্লেষণে তারা যদি মনে করেন কোনো আইন সংস্কারের প্রয়োজন, তাহলে তা প্রস্তাব করতে পারেন। কোনো আইন কিন্তু পাথরে খোদাই করে লেখা না, সংবিধানও পাথরে খোদাই করে লেখা নয়। সংবিধান এবং আইন এখন পর্যন্ত যে অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছে, তা পরিবর্তনের মাধ্যমেই হয়েছে। কাজেই এই বাস্তবতাকে মেনে নিয়ে যদি নির্বাচন কমিশন মনে করে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য এবং অংশগ্রহণমূলক করার স্বার্থে কোনো ক্ষেত্রে সাংবিধানিক বা আইন সংস্কারের প্রয়োজন রয়েছে, তাহলে তারা সেই প্রস্তাব করবেন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করবেন কি-না তা পরে বিবেচনার বিষয়।
ইফতেখারুজ্জামান বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার, তার চরিত্র কেমন হবে, তার আচরণ কেমন হবে, গঠন কেমন হবে, এই ধরণের বিষয়গুলো সম্পর্কে আমরা কোনো সুনির্দিষ্ট কথা নির্বাচন কমিশনকে তুলে দেইনি। এই বিষয়টি যেহেতু সকল দেশবাসীরই একটা প্রত্যাশা, উদ্বেগেরে জায়গা। কাজেই সেই দৃষ্টিভঙ্গি থেকে নির্বাচন কমিশন যেভাবে মনে করেন যে, একটা নির্বাচনকালীন সরকারের আচরণ কি রকম হওয়া উচিত, সেটি সম্পর্কে তারা পরামর্শ, তাদের চিন্তাভাবনা প্রসূত পরামর্শ সরকারকে বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দিতে পারেন। প্রয়োজনে আইন সংস্কার করার জন্য প্রস্তাব করতে পারেন। পাশাপাশি আমরা যেটি প্রস্তাব করেছি- প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে আমরা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করতে হবে।
তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন মন্ত্রী ও এমপিগণ পদত্যাগ না করেই নির্বাচনে যাওয়ার সুযোগ গ্রহণ করলে অন্যান্য প্রার্থীদের সাথে তাদের প্রতিযোগিতার সমান ক্ষেত্র নিশ্চিতে আইন সংস্কারের প্রস্তাব রাখতে পারে নির্বাচন কমিশন। এছাড়া আমাদের সুপারিশ হলো- নির্বাচনকালে তথ্য প্রকাশ যেন কোনোভাবেই বাধাগ্রস্ত না হয়। গণমাধ্যমসহ দেশি বিদেশি পর্যবেক্ষকগণ যাতে অবাধ ও বাধাহীন পরিবেশে কার্যক্রম চালাতে পারে। নির্বাচনের সময় ইন্টারনেট ও মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ না রাখার নিশ্চয়তা দিতে হবে। ইভিএম যেন কারিগরিভাবে নির্ভুল হয় এবং সকল অংশীজনের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়, তা নিশ্চিত করেই নির্বাচন কমিশন এটিকে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত করবে- আমাদের এই প্রত্যাশার কথাও নির্বাচন কমিশনকে জানানো হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, আমরা প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনারদের কাছে প্রস্তাব করেছি যে, এখন যে নিয়মটা আছে এমপি এবং মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত থেকে নির্বাচন করতে পারেন। এই বিষয়টি তারা বিবেচনায় করে দেখতে পারেন। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নষ্ট হয় বলেই অনেকের ধারণা এবং সেটাই বাস্তবসম্মত। এটাকে পরিবর্তন করার সুযোগ তারা নিবেন কিনা, প্রস্তাব করবেন কিনা, সেই বিষয়টি তারা বিবেচনা করে দেখতে পারেন।
টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, আমরা নির্বাচন কমিশনকে পরামর্শ দিয়েছি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনার পূর্বে মনস্থির করা, সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা, তাদের একটা প্রস্তাবনা নিশ্চিত করা যে, কি ধরণের নির্বাচনকালীন সরকারের প্রকৃতি এবং আচরণ হবে সেটা সম্পর্কে তারা যদি সুনির্দিষ্ট অবস্থান নিতে পারেন, তাহলে এটি ইতিবাচক হবে বলে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচেনার ক্ষেত্রে।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালসহ কমিশনের স‡ঙ্গ ˆবঠ‡ক ড. ইফ‡তখারুজ্জামান এবং উপ‡দষ্টা-নির্বাহী ব্যব¯’াপনা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খা‡য়রসহ ছয় সদ‡স্যর প্রতিনিধিদল ˆবঠ‡ক অংশগ্রহণ ক‡রন।
টিআইবি’র সুপারিশ: নির্বাচনকালীন সময়ে সরকারের নিরপেক্ষ ও স্বার্থের দ্বন্দ্বমুক্ত ভূমিকা নিশ্চিতে সংশ্লিষ্ট আইনের সংস্কার করা। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির প্রয়োজনীয় আইনি সংস্কারের উদ্যোগ এবং নির্বাচনকালীন সরকারের এখতিয়ার, দায়িত্ব, গঠন ও আচরণ সম্পর্কে সকল অংশীজনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইন সংশোধনের উদ্যোগ গ্রহণ করা। রাজনৈতিক দলসহ সংশ্লিষ্ট সকলের, বিশেষ করে ভোটারদের আস্থা অর্জন করার জন্য নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার জন্য সক্রিয় উদ্যোগ নেওয়া; এক্ষেত্রে নির্বাচনকালীন সরকারের নিরপেক্ষতা সম্পর্কে আলোচনায় অংশগ্রহণের সুনির্দিষ্ট এজেন্ডাসহ আলোচনার উদ্যোগ গ্রহণ করা। নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা সংশোধনের মাধ্যমে সবার জন্য সমান ক্ষেত্র নিশ্চিত করা। আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ, প্রতিবছর এমপিদের আর্থিক তথ্য প্রকাশ, রাজনৈতিক দলের আর্থিক তথ্য প্রকাশ ইত্যাদি



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: টিআইবি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ