Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

পাকিস্তানে ২০ দিনে ৩ দফা বাড়ল জ্বালানির দাম

হাই-স্পিড ডিজেল প্রতি লিটার ২৬৩.৩১ টাকা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

পাকিস্তান সরকার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকে সমালোচনামূলক সমর্থন সুরক্ষিত করার প্রয়াসে জ্বালানি ভর্তুকি অপসারণ এবং আর্থিক ঘাটতি কাটছাঁট করার প্রয়াসে তেলের দাম ২৯ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়েছে। এটি প্রায় ২০ দিনের মধ্যে তৃতীয় দফা জ্বালানি ভর্তুকি হ্রাস। হাই-স্পিড ডিজেল (এইচএসডি), পেট্রোল, কেরোসিন এবং লাইট ডিজেল তেলের (এলডিও) দাম গত ২৬ মে থেকে যথাক্রমে ৮৩ শতাংশ, ৫৬ শতাংশ, ৭৩ শতাংশ এবং ৬৮.৪ শতাংশ বেড়েছে।
পেট্রোলের এক্স-ডিপো মূল্য এখন লিটার প্রতি ২৩৩.৮৯ টাকা, এইচএসডি ২৬৩.৩১ টাকা, কেরোসিন ২১১.৪৩ টাকা এবং এলডিও ২০৭.৪৭ টাকা। পেট্রোলিয়াম প্রতিমন্ত্রী মুসাদ্দিক মালিকের সাথে একটি অনির্ধারিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতাকালে অর্থমন্ত্রী মিফতাহ ইসমাইল বলেছেন, ‘দেশকে খেলাপির হাত থেকে বাঁচাতে’ মূল্যবৃদ্ধি অনিবার্য। সিদ্ধান্তটি সহজ ছিল না, কারণ এটি মুদ্রাস্ফীতি বাড়াবে এবং এর ফলে জনগণের দুর্দশা বাড়বে, মিঃ ইসমাইল বলেন, তবে জোর দিয়ে বলেন যে, আগের সরকার এবং চ্যালেঞ্জিং বিশ্ব বাজার পরিস্থিতি অন্য কোনো বিকল্প রেখে যায়নি।
তিনি বলেন, সব পণ্যের দাম এখন তাদের ক্রয়মূল্যে আনা হয়েছে এবং ভর্তুকি বা মূল্যের পার্থক্য দাবির উপাদানটি বাদ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘পেট্রোলিয়াম পণ্য বিক্রিতে সরকারের আর কোনো ক্ষতি নেই’ ঋণ সহায়তা পুনরুজ্জীবিত করার জন্য আইএমএফের সাথে একটি চুক্তির প্রত্যাশী।
আইএমএফ চায় পাকিস্তান তার রাজস্ব ঘাটতি নিয়ন্ত্রণে একটি ভারসাম্য-অফ-পেমেন্ট সঙ্কটের মুখে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করুক।
অর্থমন্ত্রীর ঘোষণা অনুসারে, এইচএসডি-এর প্রাক্তন ডিপো মূল্য ২০৪.১৫ টাকার পরিবর্তে প্রতি লিটারে ২৬৩.৩১ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে, যা ২৯ শতাংশ (বা ৫৯.১৬ রুপি) বৃদ্ধি পেয়েছে। জ্বালানির দাম ২৬ মে থেকে প্রতি লিটার ১৪৪.১৫ টাকা থেকে ৮৩ শতাংশ বেড়েছে।
পেট্রোলের (মোটর স্পিরিট) দামও প্রতি লিটারে ১১.৪ শতাংশ বা ২৪.০৩ টাকা বেড়ে ২০৯.৮৬ টাকা থেকে ২৩৩.৭৯ টাকা হয়েছে। ২৭ মে এর আগে পেট্রোলের দাম প্রতি লিটার ১৪৯.৮৬ টাকা থেকে ৫৬ শতাংশ বেড়েছে।
একইভাবে, কেরোসিনের দাম প্রতি লিটারে ১৬ শতাংশ বা ২৯.৪৯ টাকা বাড়ানো হয়েছে এবং ১৭৮.৩১ টাকা প্রতি লিটারের পরিবর্তে ২১১.৪৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ২৬ মে থেকে এর দাম ৭৩ শতাংশ আকাশচুম্বী হয়েছে যখন এটি দাঁড়িয়েছে ১১৮.৩১ টাকায়।
এছাড়াও লাইট ডিজেল তেলের (এলডিও) এক্স-ডিপো মূল্য লিটার প্রতি ১৬.৩৩ শতাংশ বা ২৯.১৬ টাকা বাড়ানো হয়েছে এবং ১৭৮.৩১ টাকার পরিবর্তে ২০৭.৪৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর দাম মে মাসে প্রতি লিটার প্রতি ১২৫.৫৬ টাকা থেকে ৬৮.৫ শতাংশ বেড়েছে।
জনাব ইসমাইল বলেন, এ ধরনের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কোনো অর্থমন্ত্রী বা প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে সহজ ছিল না, কিন্তু পূর্ববর্তী সরকারের কয়েক মাস ধরে দাম স্থগিত রাখার ‘অযৌক্তিক সিদ্ধান্তের’ কারণে এটি অনিবার্য হয়ে উঠেছে।
তিনি আশা করেন যে, বিনিময় হার এখন উন্নত হবে, বাজার স্থিতিশীল হবে, অর্থনীতির ভারসাম্য বজায় থাকবে এবং বিনিয়োগকারীরা কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে সরকারের ইচ্ছাকে ইতিবাচকভাবে নেবে।
তিনি বলেন যে, বিশ্বব্যাপী অপরিশোধিত তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ৮৫-৯০ ডলারের কাছাকাছি ছিল, যখন পূর্ববর্তী সরকার কর অপসারণ এবং মূল্য হ্রাস করে আইএমএফের সাথে সদ্য সমাপ্ত চুক্তি প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। এটি এই সত্য হওয়া সত্তে¡ও যে, এটি প্রতি লিটার পেট্রোলিয়াম ডেভেলপমেন্ট লেভি ৩০ টাকা এবং সমগ্র মূল্যের ওপর ১৭ শতাংশ বিক্রয় কর আরোপ করার জন্য লিখিতভাবে প্রতিশ্রæতিবদ্ধ ছিল, যার অর্থ প্রতি লিটারে প্রায় ৬৪ টাকা করে।
এখন আন্তর্জাতিক দাম ব্যারেল প্রতি ১২০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে এবং ভোজ্য তেলের দামও ৩০০-৪০০ শতাংশ বেড়েছে। তিনি বলেন, পেট্রোলিয়াম ডিফারেন্সিয়াল লসের কারণে সরকারের মাসিক ১২০ বিলিয়ন টাকা ক্ষতি হচ্ছে, যেখানে সমগ্র বেসামরিক সরকার পরিচালনার মাসিক ব্যয় ৪২ বিলিয়ন টাকা। তিনি বলেন, ‘আমি গত ৩০ বছরে অর্থনীতিতে এমন বিপর্যয় দেখিনি’।
জনাব ইসমাইল বলেন, সরকার জুন মাসে বেনজির ইনকাম সাপোর্ট প্রোগ্রামের অধীনে ৮০ লাখ পরিবারকে ২ হাজার রুপি করে প্রদান করে দরিদ্রদের রক্ষা করার চেষ্টা করেছে এবং আগামী অর্থবছরে আরো ৬০ লাখ পরিবার এ সহায়তা পাবে।
তিনি বলেন যে, পূর্ববর্তী সরকার এতটাই অযোগ্য ছিল যে, কোভিড মহামারি চলাকালীন যখন সমগ্র বিশ্বক্ষুদ্র মুদ্রাস্ফীতির হার প্রত্যক্ষ করছিল, তখন পাকিস্তান শীর্ষ তিনটি ব্যয়বহুল দেশের মধ্যে ছিল। সূত্র : ডন অনলাইন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন