Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

রুশ ট্যাঙ্কারে বীমা নিষেধাজ্ঞায় তেলের দাম বাড়বে : যুক্তরাষ্ট্রের আশঙ্কা

ইউরোপে গ্যাস রপ্তানি কমিয়েছেন পুতিন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপীয় রাজধানীগুলোকে রাশিয়ান তেলের চালান সুরক্ষিত করার ওপর নিষেধাজ্ঞার প্রভাব প্রশমিত করার উপায় সন্ধান করার জন্য অনুরোধ করছে এই যুক্তিতে যে, পদক্ষেপটি বিশ্বব্যাপী অপরিশোধিত মূল্য বৃদ্ধির কারণ হতে পারে।
ইউক্রেনে প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের যুদ্ধের প্রতিক্রিয়ায় এ পর্যন্ত আরোপিত সবচেয়ে সুদূরপ্রসারী নিষেধাজ্ঞার মধ্যে একটিতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং যুক্তরাজ্য গত মাসের শেষে রাশিয়ান তেল বহনকারী ট্যাঙ্কারগুলোতে বীমা নিষিদ্ধ করতে সম্মত হয়েছিল।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন এখন তার নিষেধাজ্ঞাকে আইনে পরিণত করেছে, এটি কার্যকর হওয়ার আগে বিলম্ব সাপেক্ষে এবং কর্মকর্তারা এই ধারণাটি বাতিল করে যে, এটি সংশোধন করা যেতে পারে। যুক্তরাজ্য, যারা ব্রাসেলসে লকডাউনটি প্রত্যাহার করতে সম্মত হয়েছিল, এখনও তাদের নিজস্ব ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি।
ওয়াশিংটনের উদ্বেগ এই উদ্বেগকে প্রতিফলিত করে যে, এ পদক্ষেপ ইউরোপীয় বীমা শিল্পের আধিপত্যের কারণে অনেক তেল ট্যাঙ্কারের জন্য রাশিয়ান অপরিশোধিত পরিবহন করা অসম্ভব করে তুলতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞার ফলে অপরিশোধিত পণ্যের দাম বাড়বে না তা নিশ্চিত করার উপায় নিয়ে কাজ করছে, তবে একটি সম্মত সিলিং-এর নিচে মূল্যের কভার শিপমেন্টের অনুমতি দেওয়ার বা তেল আমদানিতে শুল্ক আরোপের প্রস্তাবগুলো ইউরোপীয় রাজধানীগুলোতে ব্যাপক সমর্থন পায় না।

বাইডেন প্রশাসন ৮ শতাংশেরও বেশি মুদ্রাস্ফীতির সাথে লড়াই করছে, কারণ এটি এ বছরের শেষের দিকে মধ্যবর্তী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে, ওয়াশিংটনে বিষয়টির সংবেদনশীলতার ওপর জোর দিচ্ছে।
একজন ইউরোপীয় কর্মকর্তা মার্কিন অবস্থান সম্পর্কে বলেছেন, ‘তারা ভয় পায় যে, দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে’ ওয়াশিংটন তার জি৭ অংশীদারদের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে।

ব্রেন্ট ক্রুড, আন্তর্জাতিক বেঞ্চমার্ক, মে মাসের শুরুতে ব্যারেল প্রতি ১০০ ডলার থেকে বেড়ে প্রতি ব্যারেল ১২০ ডলারে উন্নীত হয়েছে, ব্যবসায়ীরা এ সমাবেশের প্রধান কারণ হিসাবে বীমা নিষেধাজ্ঞাকে উদ্ধৃত করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেপুটি সেক্রেটারি অফ স্টেট ওয়েন্ডি শেরম্যান এ মাসের শুরুতে বলেছিলেন যে, কীভাবে বীমা নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় তা নিয়ে ‘অনেক আলোচনা’ হয়েছে যা নিশ্চিত করে যে, এটি ‘অবৈজ্ঞানিকভাবে তেল ও গ্যাসের খরচ বাড়ায় না।

তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, কাজ চলছে, ‘যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের মধ্যে অত্যন্ত তীব্র আলোচনার মাধ্যমে এটি একটি সত্যিই গঠনমূলক উপায়ে করা যা রাশিয়ার জন্য ক্ষতিকর, তবে ইউরোপ বা বাকি বিশ্বের জন্য নয়’।
ইইউ কর্মকর্তারা বলছেন যে, এ বিষয়ে জি৭ স্তরে আলোচনা রয়েছে এবং এটি এ সপ্তাহে ইইউ অর্থমন্ত্রীদের বৈঠকেও উত্থাপিত হতে পারে। বীমা নিষেধাজ্ঞা রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইইউ নিষেধাজ্ঞার ষষ্ঠ প্যাকেজের অংশ, যার কেন্দ্রবিন্দু ছিল ইইউতে পাইপলাইন চালানের জন্য একটি অস্থায়ী ছাড়ের সাথে সমুদ্রবাহিত তেল নিষেধাজ্ঞা।
যুক্তরাজ্যের সাথে একটি চুক্তির পর ইউরোপীয় ইউনিয়ন তার পদক্ষেপের মাধ্যমে এগিয়ে নিয়েছিল যে এটি একই কাজ করবে, নিশ্চিত করে যে লয়েডস অফ লন্ডনের বীমা বাজারকে সমান মানদÐে রাখা হয়েছে। শিল্প নির্বাহীরা বলেছেন যে সমন্বিত নিষেধাজ্ঞা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সমুদ্রবাহিত তেল নিষেধাজ্ঞার সমস্যার সমাধান করেছে যে রাশিয়া নিরাপদ আবরণ বজায় রেখে তার অপরিশোধিত তেল অন্যত্র পুনঃনির্দেশ করতে পারে।

নিষেধাজ্ঞায় ইউরোপে গ্যাস রপ্তানি কমিয়েছেন ভøাদিমির পুতিন
এদিকে রাশিয়া ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ সীমিত করার সিদ্ধান্তের জন্য পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞাকে দায়ী করেছে। তবে এ পদক্ষেপকে জার্মানি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে আখ্যায়িত করেছে। রাষ্ট্র-সমর্থিত রাশিয়ান শক্তি জায়ান্ট গাজপ্রম গত মঙ্গলবার ঘোষণা করেছে যে, তারা একটি প্রধান ইউরোপীয় পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাসের চালান ৪০ শতাংশ কমিয়ে দেবে, কারণ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা কানাডায় রক্ষণাবেক্ষণ করা টারবাইনগুলো রাশিয়ায় ফিরিয়ে দেয়া অসম্ভব করে তুলেছে।

সংস্থাটি একটি বিবৃতিতে বলেছে যে, রাশিয়ার বাল্টিক উপক‚লে পোর্টোয়ায়া প্রেসার প্ল্যান্টে তাদের কার্যক্রম আংশিকভাবে স্থগিত করতে হয়েছিল। এটি যোগ করেছে যে, এ বছরের শুরুতে নির্ধারিত রক্ষণাবেক্ষণের জন্য মন্ট্রিলে পাঠানো হয়েছিল, অনুপস্থিত অংশের ফলে গ্যাস ক¤েপ্রসারের মাত্র তিনটি ইউনিট সাইটে কাজ করা যেতে পারে। কাজটি জার্মানি-ভিত্তিক সিমেন্স এনার্জির মাধ্যমে পরিচালিত হয়েছিল, যা দাবি করেছিল যে, কানাডিয়ান নিষেধাজ্ঞাগুলো এটিকে মেরামত করা টারবাইনগুলো ফিরিয়ে দিতে বাধা দেয়।

‘কানাডা আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণে সিমেন্স এনার্জির পক্ষে গ্রাহকের কাছে মেরামত করা গ্যাস টারবাইনগুলো সরবরাহ করা বর্তমানে অসম্ভব’ তিনি যোগ করেছেন। ‘এ পটভ‚মিতে আমরা কানাডিয়ান এবং জার্মান সরকারকে অবহিত করেছি এবং একটি কার্যকর সমাধানের জন্য কাজ করছি’।

সিমেন্স এনার্জি টারবাইন ফায়ার করতে পারে কিনা তা দেখার জন্য জার্মানি কানাডাকে মস্কোর ওপর তার নিষেধাজ্ঞাগুলো পর্যালোচনা করার জন্য আবেদন করেছে।
জার্মানির অর্থনীতি মন্ত্রী রবার্ট হ্যাবেক বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার শাসনে অংশটি রাশিয়াকে ফেরত দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। কিন্তু তিনি বলেন যে, গ্যাজপ্রমের সরবরাহ ৪০ শতাংশ কমানোর সিদ্ধান্ত রক্ষণাবেক্ষণের সাথে সম্পর্কিত নয় যা পতনের আগ পর্যন্ত নির্ধারিত ছিল না।

‘সুতরাং আমারও ধারণা আছে যে, গত বুধবার যা ঘটেছে তা একটি রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত, প্রযুক্তিগতভাবে ন্যায়সঙ্গত নয়’ মি. হ্যাবেক বলেন। ‘ইউরোপীয় ও জার্মান গ্যাসের বাজারে এর কী প্রভাব পড়বে, আমাদের অপেক্ষা করতে হবে এবং দেখতে হবে’ -তিনি বলেন।

একটি পৃথক বিবৃতিতে গ্যাজপ্রম বলেছে যে, তারা ইতালীয় গ্যাস জায়ান্ট এনিকে বলেছে যে, তাদের একটি ভিন্ন পাইপলাইনের মাধ্যমে ১৫ শতাংশ চালান কমাতে হবে। সূত্র : দ্য টেলিগ্রাফ ও ফাইন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস।

 



 

Show all comments
  • Antara Afrin ১৭ জুন, ২০২২, ৯:২২ এএম says : 0
    রাশিয়ার উচিত স্বর্ণমুদ্রাই লেনদেন করা।তবেই আম্রিকার উচিত শিক্ষা হবে। কথায় কথায় বিভিন্ন দেশকে ব্ল্যাকমেইল করে নিষেধাজ্ঞা দেওয়াটা বন্ধ হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Akash Miya ১৭ জুন, ২০২২, ৯:২৩ এএম says : 0
    পুতিন সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পুতিন


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ