Inqilab Logo

বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৫ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্র দায়িত্ব ছাড়াই নিজেকে ঈশ্বরের বার্তাবাহক মনে করে: পুতিন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুন, ২০২২, ৯:০২ পিএম

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেকে ‘পৃথিবীতে ঈশ্বরের বার্তাবাহক’ হিসাবে দেখে, যার স্বার্থ আছে কিন্তু দায়িত্ব নেই। শুক্রবার সেন্ট পিটার্সবার্গ ইন্টারন্যাশনাল ইকোনমিক ফোরামের পূর্ণাঙ্গ বৈঠকে তিনি এ মন্তব্য করেন।

‘শীতল যুদ্ধে বিজয় দাবি করার পরে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করেছে যে, তারা পৃথিবীতে ঈশ্বরের বার্তাবাহক, যাদের কোনো বাধ্যবাধকতা নেই, কিন্তু শুধুমাত্র স্বার্থে আছে- এবং সেই স্বার্থগুলি পবিত্র,’ তিনি বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্পষ্টতই অজ্ঞাত যে, বিগত কয়েক দশক ধরে বিশ্বজুড়ে নতুন শক্তিশালী কেন্দ্রগুলি আবির্ভূত হয়েছে এবং তাদের কণ্ঠস্বর আরও জোরে শোনা যাচ্ছে। তাদের প্রত্যেকে তার নিজস্ব রাজনৈতিক ব্যবস্থা এবং সরকারী প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছে এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির নিজস্ব মডেল বাস্তবায়ন করছে এবং, অবশ্যই, তাদের রক্ষা করার এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করার অধিকার রয়েছে।’ তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘আমরা বিশ্বে বস্তুনিষ্ঠ প্রক্রিয়া এবং সত্যিকারের বৈপ্লবিক টেকটোনিক পরিবর্তনগুলি প্রত্যক্ষ করছি।’

ইউক্রেনে অভিযানের বিষয়ে পুতিন বলেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযান একটি সার্বভৌম দেশের একটি সিদ্ধান্ত, তার নিরাপত্তা রক্ষার অধিকারের ভিত্তিতে। ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে, ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি এবং হুমকির পটভূমিতে, রাশিয়ার একটি বিশেষ সামরিক অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত ছিল একটি বাধ্যতামূলক। এটি করা খুব কঠিন ছিল, তবে এটি বাধ্যতামূলক এবং প্রয়োজনীয় ছিল। এটি একটি সার্বভৌম কর্তৃক সিদ্ধান্ত ছিল। যে দেশটির নিরাপত্তা রক্ষার জন্য জাতিসংঘ সনদের উপর ভিত্তি করে নিঃশর্ত অধিকার রয়েছে,’ পুতিন বলেছেন।

তিনি আরও যোগ করেছেন যে, এটি আমাদের নাগরিকদের রক্ষা করার লক্ষ্যে একটি সিদ্ধান্ত ছিল, ডনবাসের গণপ্রজাতন্ত্রের বাসিন্দাদের, যারা আট বছর ধরে কিয়েভ শাসন এবং নব্য-নাৎসিদের দ্বারা গণহত্যার মুখোমুখি হয়েছিল, যারা পশ্চিমের পুরো পৃষ্ঠপোষকতা উপভোগ করেছিল। পশ্চিমারা শুধু ‘রাশিয়া-বিরোধী’ দৃশ্যকল্প বাস্তবায়নের চেষ্টাই করেনি, বরং ইউক্রেনের ভূখণ্ডের একটি সক্রিয় সামরিক উন্নয়নও পরিচালনা করেছে। তারা আক্ষরিক অর্থে ইউক্রেনে অস্ত্র ও সামরিক উপদেষ্টাদের লেলিয়ে দিয়েছে এবং তারা এখন এটি চালিয়ে যাচ্ছে।’

‘সত্যি বলতে, অর্থনীতির উন্নয়নে, সেখানে বসবাসকারী মানুষের মঙ্গলের দিকে কেউই মনোযোগ দেয় না। তারা এর দিকে কোনো ভ্রুক্ষেপই করে না এবং এর জন্য অর্থ ব্যয় করেনি। তারা ব্যয় করে পূর্বে ন্যাটোর একটি শক্তিশালী ঘাঁটি, রাশিয়ার বিরুদ্ধে এবং আগ্রাসন, ঘৃণা এবং রুসোফোবিয়া চাষে পরিচালিত কাজে,’ পুতিন জোর দিয়েছিলেন। তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে, সাধারণভাবে, আধুনিক বিশ্ব ‘মৌলিক পরিবর্তনের যুগের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।’

‘আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলি ভেঙে পড়ছে এবং নিরাপত্তা গ্যারান্টির অবমূল্যায়ন করা হচ্ছে। পশ্চিমা তার আগের বাধ্যবাধকতাগুলিকে জোরদারভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে। তাদের সাথে কোন নতুন চুক্তিতে পৌঁছানো অসম্ভব হয়ে উঠেছে,’ পুতিন উপসংহারে বলেছিলেন। সূত্র: তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ