Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

রুশ সেনা ডনবাসের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিচ্ছে

লুহানস্কে বিশেষ অভিযান শুরু করেছে চেচেন যোদ্ধারা ‘ইউক্রেন যোগ দেয়ার আগেই ইইউ ভেঙে পড়তে পারে’ : সহকর্মীদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিচ্ছে আত্মসমর্পণকারী ইউক্রেনীয় সেনারা : সউদীকে টপকে রা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

রাশিয়ান বাহিনী রোববার পূর্ব ইউক্রেনের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ডনবাস অঞ্চলের দুটি কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ শহর চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলেছে যেখানে হাজার হাজার ইউক্রেনীয় সেনা আটকা পড়ে গিয়েছে। ফলে ইউক্রেনও এই অঞ্চলে শক্তিবৃদ্ধি করার চেষ্টা করছে। এদিকে, চেচেন বিশেষ বাহিনী মিত্র বাহিনীর সাথে যৌথভাবে লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের একটি গ্রাম মুক্ত করা শুরু করেছে।

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং ন্যাটো মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ সতর্ক করেছিলেন যে, যুদ্ধ বছরের পর বছর ধরে চলতে পারে। রাশিয়ানরা রোববার বেশ খানিকটা অগ্রগতি করেছে। সিভিয়েরোডোনেৎস্ক এবং লাইসিচানস্কের মেট্রোপলিটন এলাকার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত তোশকিভকা নামের একটি ছোট শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে যা কৌশলগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আঞ্চলিক সামরিক গভর্নর সের্গেই হাইদাই স্বীকার করেছেন যে, রাশিয়ানরা তোশকিভকা এলাকায় ‘সাফল্য পেয়েছে’।

রোববার রাতে তোশকিভকা কে নিয়ন্ত্রণ করেছিল তা স্পষ্ট নয়। মস্কোর বাহিনী শেষ পর্যন্ত সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লাইসিচানস্ককে ঘিরে ফেলতে সফল হলে, তবে, দুই শহর রক্ষাকারী হাজার হাজার ইউক্রেনীয় যোদ্ধা আটকা পড়তে পারে। এটি ক্রেমলিনকে একটি কঠিন সামরিক বিজয় প্রদান করবে এবং রাশিয়ান বাহিনীকে ইউক্রেনের পূর্ব ডনবাস অঞ্চল দখল করার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের উদ্দেশ্য পূরণের এক ধাপ কাছাকাছি নিয়ে আসবে। এলাকায় ফোন যোগাযোগ সীমিত, এবং সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এর দিকে যাওয়ার সেতুগুলো ধ্বংস হয়ে গেছে, যার ফলে সেখানকার পরিস্থিতির সঠিক চিত্র পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।

ওয়াশিংটনের গবেষণা গোষ্ঠী দ্য ইনস্টিটিউট ফর স্টাডি অফ ওয়ার বলেছে যে, রাশিয়া শহরের চারপাশে ‘প্রান্তিক লাভ’ করেছে কিন্তু ডনবাসের বাকি অংশে তার আক্রমণ ‘অনেকাংশে স্থবির’ হয়েছে। ‘রাশিয়ান বাহিনী সম্ভবত আগামী সপ্তাহগুলিতে সিভিয়েরোডোনেৎস্ক দখল করতে সক্ষম হবে,’ ইনস্টিটিউট তার সর্বশেষ মূল্যায়নে বলেছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে যে, রুশ সৈন্য এবং মস্কো-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরাও সিভিয়ারোডোনেৎস্কের দক্ষিণ-পূর্বে মেটোলকাইনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তাস বলেছে যে, অনেক ইউক্রেনীয় যোদ্ধা সেখানে আত্মসমর্পণ করেছে।

ইউক্রেন তার পূর্বে একটি ক্রমবর্ধমান ভয়াবহ এবং রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের মুখোমুখি হচ্ছে, যেখানে রাশিয়া শহর এবং সামরিক অবস্থানে বোমা হামলার জন্য দূরপাল্লার কামান ব্যবহার করছে। ইউক্রেনের কর্মকর্তারা অভিযোগ করেছেন যে, তাদের মিত্রদের কাছ থেকে উন্নত অস্ত্র আসতে দেরি হওয়ায় প্রতিদিন ২০০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হচ্ছে।

এদিকে, চেচনিয়ার নেতা রমজান কাদিরভ সোমবার টেলিগ্রামে পোস্ট করা একটি মন্তব্যে বলেছেন, চেচনিয়ার আখমত বিশেষ বাহিনী মালায়া কামিশেভাখা গ্রামকে মুক্ত করার জন্য মিত্র বাহিনীর সাথে একটি যৌথ অভিযান শুরু করেছে, তারা এই এলাকায় ‘পোলিশ ভাড়াটে’ এবং অন্যান্য জঙ্গিদের সাথে লড়াই করছে। চেচেন নেতা বলেছিলেন যে, তার সৈন্যরা ধীরে ধীরে অগ্রসর হচ্ছে, বেসামরিক লোকদের সরিয়ে নেয়ার সময় যারা শত্রু দ্বারা মানব ঢাল হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

ইউক্রেন যোগ দেয়ার আগেই ইইউ ভেঙে পড়তে পারে : রাশিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের উপ প্রধান ও সাবেক প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেছেন, ইউক্রেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউতে যোগ দেয়ার আগেই এই ইউনিয়ন ভেঙে পড়তে পারে। তিনি রোববার মস্কোয় প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।
মেদভেদেভ বলেন, ইইউ সবেমাত্র ইউক্রেনকে তার সদস্যপ্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। তবে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে অনেক সময় লাগবে এবং ততদিন ইউরোপীয় ইউনিয়নের অস্তিত্ব থাকে কিনা না নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহের অবকাশ রয়েছে। ইউরোপীয় কমিশন গত শুক্রবার ইউক্রেনকে ইইউর সদস্যপ্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। আগামী সপ্তাহে কমিশনের বৈঠকে প্রস্তাবটি চূড়ান্ত হওয়ার কথা রয়েছে। ইইউর সদস্য হওয়ার জন্য যে দীর্ঘ প্রক্রিয়া রয়েছে এটি তার সূচনা মাত্র। ২৭ সদস্যবিশিষ্ট ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ নেতারা গত ১০ মার্চ ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত সম্মেলন থেকে কিয়েভের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রাখার ঘোষণা দেন। একইসাথে তারা বলেন, স্বল্প সময়ের মধ্যে ইইউতে ইউক্রেনের অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়।

সহকর্মীদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিচ্ছে আত্মসমর্পণকারী ইউক্রেনীয় সেনারা : ইউক্রেনের আইডার জাতীয়তাবাদী ব্যাটালিয়নের যোদ্ধারা, এলপিআর পিপলস মিলিশিয়ার কাছে আত্মসমর্পণ করে, তাদের সহযোগী জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে শুরু করেছে। তারা সেভেরোডোনেৎস্কের আজোট রাসায়নিক প্ল্যান্ট অবরুদ্ধ করে রেখেছিল বলে পিপলস মিলিশিয়ার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র তাসকে জানিয়েছে। ‘এ মুহূর্তে, মেটোলকিনোতে আত্মসমর্পণ করা আইডার সদস্যদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য জঙ্গিদের সাথে আলোচনার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে,’ সূত্রটি বলেছে। ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী এবং বিদেশী জঙ্গিদের সাথে সেভেরোডোনেৎস্কের আজোট রাসায়নিক প্ল্যান্ট মুক্ত করার আলোচনা রোববার ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছে, একটি সূত্র জানিয়েছে। ‘আজট প্ল্যান্টে ইউক্রেনীয় বাহিনীর সাথে আলোচনা এখন পর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছে। তারা বেরিয়ে এসে আত্মসমর্পণ শুরু করেনি, তবে আলোচনা অব্যাহত রয়েছে,’ সূত্রটি বলেছে।

বিদেশী ভাড়াটে সৈন্যরা যারা আইডার জাতীয়তাবাদী ব্যাটালিয়নের সাথে সেভেরোডোনেৎস্কের অ্যাজোট রাসায়নিক প্ল্যান্ট দখল করেছিল, তারা এলপিআর পিপলস মিলিশিয়ার কাছে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণের বিষয়ে আলোচনাকে বাধা দেয়, একটি সূত্র জানিয়েছে। ‘তারা (বিদেশী ভাড়াটেরা) আলোচনা প্রক্রিয়ায় বাধা দিচ্ছে। তাই আমরা অপেক্ষা করছি,’ সূত্রটি বলেছে। ১৮ জুন, এলপিআর পিপলস মিলিশিয়ার একটি সূত্র তাসকে জানায় যে, কমান্ডার সহ আইডার যোদ্ধারা সেভেরোডোনেটস্কের কাছে মেটোলকিনোতে এলপিআর বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে। পরে, এটি রাশিয়ান ফেডারেশনের এলপিআর দূত রোডিওন মিরোস্নিক দ্বারা নিশ্চিত করা হয়েছিল। রোববার, চেচনিয়ার প্রধান রমজান কাদিরভ তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে বলেছেন যে, চেচেন ইউনিট এবং এলপিআর পিপলস মিলিশিয়া মেটোলকিনোর বন্দোবস্ত পরিষ্কার করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সউদীকে টপকে রাশিয়া এখন চীনের বাজারে এক নম্বর তেল বিক্রেতা : পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার কারণে রাশিয়া তাদের অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কমিয়ে দিয়েছে। আর ছাড় দেয়া মূল্যের সেই তেলের প্রধান গন্তব্য হয়ে দাঁড়িয়েছে চীন। পশ্চিমা দেশগুলো যখন রুশ জ্বালানি আমদানি পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে তখন দুই হাতে রুশ তেল কিনছে চীন। রাশিয়া থেকে চীনের জ্বালানি তেল আমদানি গত এক বছরে ৫৫ শতাংশ বেড়ে গেছে। গত মাসে, অর্থাৎ মে মাসে, রেকর্ড আমদানির পর সউদী আরবকে টপকে রাশিয়া এখন চীনের বাজারে এক নম্বর তেল রপ্তানিকারক দেশ। কোভিডের কারণে চীনে জ্বালানির চাহিদা কমলেও রুশ তেলের আমদানি বাড়িয়ে দিয়েছে চীন। ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর ঠিক আগে চীন এবং রাশিয়া ঘোষণা করে যে তাদের বন্ধুত্বের ‘কোনো সীমা’ নেই।

তারপর চীনের রাষ্ট্রীয় তেল রিফাইনারি সিনোপেক এবং আরেক সরকার নিয়ন্ত্রিত জায়ান্ট জেনহুয়া ওয়েল রাশিয়া থেকে অপরিশোধিত তেলের আমদানি বাড়িয়ে দেয়। ইউক্রেন যুদ্ধের পর ইউরোপে তেলের বাজার সঙ্কুচিত হওয়ার পর রাশিয়া তাদের তেলের দাম কমিয়ে দেয়ায় চীন সেই সুযোগ দুই হাতে লুফে নিয়েছে। চীন গত মাসে ইস্ট সাইবেরিয়া প্যাসিফিক ওশান পাইপলাইন এবং সমুদ্র পথে রাশিয়া থেকে প্রায় ৯০ লাখ টন রুশ অপরিশোধিত তেল কিনেছে বলে চীনের শুল্ক কর্তৃপক্ষের পরিসংখ্যান বলছে। ঐ একই মাসে সউদী আরব থেকে চীনের তেল আমদানির পরিমাণ ছিল ৭৮ লাখ টনের কিছু বেশি।

যদিও জ্বালানি রপ্তানি রুশ অর্থনীতির প্রধান স্তম্ভ, কিন্তু রুশ জ্বালানি আমদানির ওপর বিধিনিষেধের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে ইউরোপের সাধারণ মানুষের ওপর। গত সপ্তাহে গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর রিচার্স অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ারের এক রিপোর্টে বলা হয়, রপ্তানির বাজার পড়ে গেলেও রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর প্রথম ১০০ দিনে তেল ও গ্যাস রপ্তানি করে প্রায় ১০০০০ (দশ হাজার) কোটি ডলার আয় করেছে। এই রপ্তানির ৬১ শতাংশই গেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে। সূত্র : বিবিসি নিউজ, এপি, তাস, নিউইয়র্ক টাইমস।



 

Show all comments
  • আবির ২১ জুন, ২০২২, ১:৩৭ এএম says : 0
    এ যুদ্ধে রাশিয়া জয়ী হবে
    Total Reply(0) Reply
  • আবির ২১ জুন, ২০২২, ১:৩৭ এএম says : 0
    ইউক্রেনের এখনই উচিত হবে রাশিয়ার সাথে বসে সমঝোতা করা। নয়তো তাদেরই বেশি ক্ষতি হবে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ