Inqilab Logo

বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯, ২৮ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ইউক্রেনীয় সেনারা পশ্চিমা অস্ত্র থাকতেও কোণঠাসা

সশস্ত্র বাহিনীকে আরো শক্তিশালী করবে রাশিয়া কল্পনাতীত বিধ্বংসী হামলা চালাতে পারে রাশিয়া, আশঙ্কা জেলেনস্কির ষ ইউক্রেনে আরেক মার্কিন যোদ্ধা নিহত, স্বীকার করল যুক্তরাষ্ট্র ষ তদন্তের ও

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

পশ্চিম থেকে প্রচুর অস্ত্রের আগমন সত্ত্বেও, ইউক্রেনীয় বাহিনী পূর্ব ডনবাস অঞ্চলের যুদ্ধে রাশিয়ানদের দ্বারা পরাজিত হয়েছে, যেখানে যুদ্ধটি মূলত আর্টিলারি বিনিময়ের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। রাশিয়ানরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা ভারী, একটানা গোলাবর্ষন ধরে রাখতে পারে, তবে ইউক্রেনীয় সেনারা গোলাবারুদে শত্রুর সাথে তাল রাখতে পারে না এবং তাদের গোলাবারুদকে আরও বিচক্ষণতার সাথে ব্যবহার করতে হবে। এদিকে, সশস্ত্র বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করার ঘোষণা দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

ইউক্রেনীয় কর্তৃপক্ষ বলেছে যে, দেশটির জন্য পশ্চিমাদের বহুমুখী সমর্থন যথেষ্ট নয় এবং যুদ্ধের এই নাকাল এবং অত্যন্ত মারাত্মক পর্যায়ের জন্য যথেষ্ট দ্রুত যুদ্ধক্ষেত্রে পৌঁছাচ্ছে না। যদিও রাশিয়া তার যুদ্ধে হতাহতের বিষয়ে চুপ করে আছে, ইউক্রেনের কর্তৃপক্ষ বলছে প্রতিদিন তাদের ২০০ জন সৈন্য মারা যাচ্ছে। রাশিয়ান বাহিনী পূর্বে ধীরে ধীরে নতুন নতুন এলাকা এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিচ্ছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গত সপ্তাহে ইউক্রেনীয় বাহিনীর জন্য তার বৃহত্তম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়ে অগ্রগতি বাড়িয়েছে: রাশিয়ার অগ্রগতি প্রতিহত করতে বা প্রতিহত করতে সাহায্য করার জন্য অতিরিক্ত ১০০ কোটি ডলার সামরিক সহায়তা। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, এ ধরনের সাহায্য বিতরণ ইউক্রেনের প্রয়োজনের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারেনি, কারণ প্রতিরক্ষা শিল্পগুলি যথেষ্ট দ্রুত অস্ত্রশস্ত্র তৈরি করছে না।

জার্মানির কিয়েল ইন্সটিটিউট ফর দ্য ওয়ার্ল্ড ইকোনমি গত সপ্তাহে রিপোর্ট করেছে যে, ইউক্রেনের জন্য সামরিক সহায়তায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার প্রতিশ্রুত প্রতিশ্রুতির প্রায় অর্ধেক এবং জার্মানি প্রায় এক তৃতীয়াংশ প্রদান করেছে। পোল্যান্ড এবং ব্রিটেন উভয়েই তাদের প্রতিশ্রুতির অনেকটাই পূরণ করেছে। ডেনিস শারাপোভ, ক্রয়ের দায়িত্বে থাকা ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা উপমন্ত্রী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ন্যাশনাল ডিফেন্স ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যাসোসিয়েশনের একটি প্রকাশনাকে বলেছেন যে, যে অস্ত্র সিস্টেমগুলো গৃহীত হয়েছে তা দেশের চাহিদার মাত্র ১০ থেকে ১৫ শতাংশ কভার করে। বুধবার প্রকাশিত একটি নিবন্ধে ন্যাশনাল ডিফেন্স ম্যাগাজিনের সাক্ষাতকারে, শারাপভ বলেছেন যে কোনও একক সরবরাহকারী একা ইউক্রেনের চাহিদা মেটাতে পারে না।

রাশিয়া তার সশস্ত্র বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করবে : রাশিয়া ‘সম্ভাব্য সামরিক হুমকি’ মোকাবেলায় তার সশস্ত্র বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করবে। গতকাল রাশিয়ান সামরিক একাডেমীর স্নাতকদের একটি সম্মেলনে দেয়া বক্তৃতায় এ তথ্য জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। ‘আমরা সম্ভাব্য সামরিক হুমকি এবং ঝুঁকি বিবেচনায় নিয়ে আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর বিকাশ ও শক্তিশালীকরণ অব্যাহত রাখব,’ তিনি বলেছিলেন। পুতিন যোগ করেছেন যে, রাশিয়ান সেনাবাহিনীকে এস-৫০০ সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল সিস্টেম সরবরাহ করা হচ্ছে এবং বলেছেন যে, রাশিয়া এই বছর নতুন পরীক্ষিত সারমাট আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করবে, যা ১০ টিরও বেশি পারমাণবিক ওয়ারহেড বহণে সক্ষম।

কল্পনাতীত বিধ্বংসী হামলা চালাতে পারে রাশিয়া : ইউরোপের শক্তিধর দেশগুলো তাদের সমর্থনে। জার্মানি, ইটালি, ব্রিটেন, ফ্রান্স, সকলেই জানিয়ে দিয়েছে, তারা চায় অবিলম্বে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এ যোগ দেয়ার অনুমতি পাক ইউক্রেন। আর মাত্র ক’টা দিন, চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষা। এ অবস্থায় ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির আশঙ্কা, বিধ্বংসী হামলা চালাতে পারে রাশিয়া, যা হয়তো কল্পনাতীত।

যুদ্ধের শুরু থেকেই মস্কো হুমকি দিয়েছে, যে দেশ কিয়েভের পাশে দাঁড়াবে, তাদের চরম দাম দিতে হবে। গোড়ায় ইইউ-ও জানিয়েছিল, এখনই ইউক্রেনকে গোষ্ঠীভুক্ত করা ঠিক হবে না। ইইউ-এর একাধিক দেশ কার্যত বিরোধিতা করেছিল। কিন্তু ইউক্রেনে রুশ ধ্বংসলীলা যত বেড়েছে, তত তাদের কাছে এসেছে ইউরোপের একাধিক বড় শক্তি। ফ্রান্স একসময়ে বলেছিল, আগামী এক দশকে ইউক্রেনের ইইউ-অন্তর্ভূক্ত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। সেই দেশের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ সম্প্রতি কিয়েভে গিয়ে জানিয়েছেন, অবিলম্বে ইইউ-এ জায়গা দেয়া হোক ইউক্রেনকে। সকলের সমর্থনে আপ্লুত জেলেনস্কি। কিন্তু একই সঙ্গে আতঙ্কের প্রহর গুণছেন। সংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘এ সপ্তাহে ইউক্রেনের জন্য ভাল কিছু ঘটতে পারে। সমগ্র ইউরোপের স্বার্থে একমাত্র একটা সদর্থক সিদ্ধান্ত।’ একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘আমি নিশ্চিত, আর সেটাই হয়তো স্বাভাবিক, রাশিয়া হামলার গতি আরও বাড়াবে এই সপ্তাহে... আমরাও তৈরি হচ্ছি।’

ইউক্রেনে আরেক মার্কিন যোদ্ধা নিহত, স্বীকার করল যুক্তরাষ্ট্র : আরও একজন মার্কিন নাগরিক ইউক্রেনে যুদ্ধে নিহত হয়েছেন। মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের দ্বারা এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। তাকে সহ ইউক্রেনে অন্তত দু’জন মার্কিন ভাড়াটে যোদ্ধা নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। স্টিফেন ডি জাবিয়েলস্কি (৫২), গত ১৫ মে ইউক্রেনের লড়াই করার সময় মারা গিয়েছিলেন, আপস্টেট নিউইয়র্কের মন্টগোমারি কাউন্টির পরিবেশনকারী একটি সংবাদপত্র রেকর্ডারে প্রকাশিত মৃত্যু বিবরণে বলা হয়েছে। তিনি পরিবারের অন্যান্যদের মধ্যে স্ত্রী, পাঁচজন সৎ ছেলে ও সাত ভাই-বোন রেখে গেছেন।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনে যুদ্ধ করার সময় নিহত হওয়া আরেকজন যে যোদ্ধার কথা জানিয়েছিল, তিনি হচ্ছেন ইউএস মেরিন কর্পসের সাবেক সদস্য উইলি জোসেফ ক্যানসেল (২২)। ইউক্রেনের প্রতিরক্ষার জন্য কিয়েভ সরকার আক্রমণাত্মকভাবে পূর্বের সামরিক অভিজ্ঞতা সহ পশ্চিমাদের নিয়োগ করেছে এবং অনেককে যুদ্ধে পাঠিয়েছে। জাবিয়েলস্কির মৃত্যুর খবরটি প্রতিবেদনের অনুসরণ করে যে, যুদ্ধের প্রচেষ্টায় যোগদানকারী আরও দুই আমেরিকান এই মাসে ইউক্রেনে নিখোঁজ হয়েছে। আলেকজান্ডার জে ড্রুক (৩৯) এবং অ্যান্ডি তাই হুইন (২৭), উভয়ই আলাবামার উত্তর-পূর্ব শহর খারকিভের কাছে শেষ দেখা গিয়েছিল এবং ধারণা করা হয় যে ক্রেমলিনের সাথে সংযুক্ত বাহিনী তাদের বন্দী করে নিয়ে গেছে।

ইউক্রেনীয় বাহিনীর পক্ষে লড়াই করা দুই ব্রিটিশ নাগরিক এবং একজন মরোক্কানকে এ মাসে বন্দী করা হয়েছিল। পূর্ব ইউক্রেনের একটি আদালত, যেখানে রাশিয়ান-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা বছরের পর বছর ধরে অঞ্চল নিয়ন্ত্রণ করেছে, তাদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে। মার্কিন কর্মকর্তারা কয়েক মাস ধরে আমেরিকানদের যুদ্ধে যোগদান থেকে নিরুৎসাহিত করার চেষ্টা করেছেন, নিরাপত্তা ঝুঁকি এবং কিছু ভুল হলে সহায়তা করার জন্য মার্কিন সরকারের সীমিত ক্ষমতা উল্লেখ করে। শুক্রবার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জোর দিয়ে বলেছেন যে, ‘আমেরিকানদের এখন ইউক্রেনে যাওয়া উচিত নয়।’

তদন্তের উপর নির্ভর করে আটক আমেরিকানদের ভাগ্য : রাশিয়া গ্যারান্টি দিতে পারে না যে, ইউক্রেনে বন্দী সাবেক আমেরিকান সেনাদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হবে না। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ সোমবার প্রচারিত এনবিসি টেলিভিশনের সাথে একটি সাক্ষাতকারে বলেছেন। ‘আমি কিছুর গ্যারান্টি দিতে পারি না। এটি তদন্তের উপর নির্ভর করে,’ তিনি বলেছিলেন যে, তিনি গ্যারান্টি দিতে পারেন যে, মার্কিন যুদ্ধবন্দীরা ব্রিটিশ নাগরিক এইডেন অ্যাসলিন ও শন পিনার এবং মরক্কোর নাগরিক ব্রাহিম সাদউনের মতো একই পরিণতির মুখোমুখি হবেন যারা আগে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছিল। তাদেরকে ডোনেৎস্কের একটি আদালত মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে।

ডেইলি টেলিগ্রাফ গত সপ্তাহে জানিয়েছে যে, দুই প্রাক্তন মার্কিন সেনা আলেকজান্ডার ড্রুক এবং অ্যান্ডি হুইনকে খারকভের কাছে বন্দী করা হয়েছে। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর ১৬ জুন বলেছে যে, তারা ইউক্রেনের যুদ্ধে অংশ নেয়া মার্কিন নাগরিকদের বিষয়ে রাশিয়ার সাথে জড়িত হতে প্রস্তুত। তারা আবার আমেরিকানদের ইউক্রেনে যাওয়ার বিরুদ্ধে জোরালো পরামর্শ দিয়েছে।

রাশিয়ার সামরিক অভিযানে প্রায় ১০ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত : ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের উপদেষ্টা আলেক্সি আরেস্তোভিচ সোমবার বলেছেন, রাশিয়ার সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকে প্রায় ১০ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত এবং প্রায় ৩০ হাজার আহত হয়েছে। রাশিয়ান ফেডারেল ফিনান্সিয়াল মনিটরিং সার্ভিসের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ও চরমপন্থীদের মধ্যে ইউক্রেনীয় সাংবাদিক দিমিত্রি গর্ডনের সাথে এক সাক্ষাৎকারে আরেস্তোভিচ বলেছেন, ‘প্রায় ১০ হাজার জন নিহত। এবং সেই অনুযায়ী তিনজনের একজন আহত হয়েছেন’। আরেস্টোভিচ উল্লেখ করেছেন, আহতদের মধ্যে ৯৬ থেকে ৯৮ শতাংশই সেনাবাহিনীতে ফিরে আসে।

এর আগে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আলেক্সি রেজনিকভ জানিয়েছিল যে, ইউক্রেন প্রতিদিন ১০০ সেনা নিহত ও ৫০০ জন আহত হয়েছে। তারপরে, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের প্রধানের উপদেষ্টা মিখাইল পোডোলিয়াক বলেছিলেন যে, প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ ইউক্রেনীয় সেনাসদস্য যুদ্ধে নিহত হচ্ছে। সার্ভেন্ট অফ পিপল শাসক দলের প্রধান, ডেভিড আরাখামিয়া, ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর দৈনিক ক্ষয়ক্ষতি ২০০ থেকে ৫০০ জন বলে অনুমান করেছেন। ১০ জুন, আরেস্তোভিচ প্রথমবারের মতো ইউক্রেনীয় সৈন্যদের মোট ক্ষতির উল্লেখ করেছিলেন – ১০ হাজার সেনা পর্যন্ত নিহত।

ডনবাসের পূর্বে আক্রমণের তীব্রতা বাড়িয়েছে রুশ সেনা : পূর্ব ডনবাসে ইউক্রেনের রক্ষকদের জন্য সামরিক পরিস্থিতি ‘অত্যন্ত কঠিন’ হয়ে পড়েছে বলে লুহানস্ক অঞ্চলের গভর্নর জানিয়েছেন। কারণ, সিভিয়েরোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ক দখল করার প্রচেষ্টায় রাশিয়ার আক্রমণ তীব্রতর হয়েছে। সেরহি হাইদাই সোমবার রাতে বলেছিলেন যে, সিভারস্কি ডোনেৎস্ক নদীর পূর্ব তীরে শহরে ইউক্রেনের বাহিনীর আশ্রয় নেয়া শেষ সাইট সিভিয়েরোডোনেৎস্কের অ্যাজোট রাসায়নিক প্ল্যান্টে ৫৬০ বেসামরিক লোক আটকে রয়েছে। পশ্চিম তীরে প্রতিবেশী লাইসিচানস্কে ‘একটানা’ গোলাবর্ষণ করা হচ্ছে, হাইদাই যোগ করেছেন - যখন বিশ্লেষকরা কাছাকাছি একটি রাশিয়ান অগ্রগতির বিষয়ে সতর্ক করেছিলেন যার অর্থ রুশ বাহিনী শহর থেকে ৪ মাইল (৭ কিমি) দক্ষিণ-পূর্বে ছিল।

কনরাড মুজিকা, একজন সামরিক বিশ্লেষক, বলেছেন যে, রাশিয়ানরা তার দক্ষিণে তোশকিভকা এবং উস্তিনিভকা গ্রামের কাছে প্রতিরক্ষা লাইন ভেঙ্গে যাওয়ার পরে লিসিচানস্কের পরিস্থিতি ‘ইউক্রেনীয়দের জন্য ক্রমবর্ধমান অন্ধকার’ বলে মনে হচ্ছে। হাইদাই স্বীকার করেছেন যে, ‘পুরো লুহানস্ক ফ্রন্টের পরিস্থিতি অত্যন্ত কঠিন’। তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে একটি পূর্ববর্তী পোস্টে বলেছেন যে, রাশিয়া রিজার্ভ বাহিনী ব্যবহার করে ‘বড় আকারের আক্রমণ’ শুরু করছে। লুহানস্কে স্বঘোষিত প্রজাতন্ত্রের রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত রডিয়ন মিরোশনিক বলেছেন, তার বাহিনী ‘দক্ষিণ থেকে লিসিচানস্কের দিকে অগ্রসর হচ্ছে’ এবং একটি আসন্ন বিজয়ের পূর্বাভাস দিয়েছে। ‘আগামী সময়গুলি এই অঞ্চলে বাহিনীর ভারসাম্যে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনতে হবে,’ তিনি টেলিগ্রামে বলেছিলেন।

সিভিয়েরোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ক দখল করলে রাশিয়া প্রায় সমস্ত লুহানস্ক ওব্লাস্ট নিয়ন্ত্রণ করবে। মস্কোর লক্ষ্য হতে পারে পশ্চিমকে প্রদর্শন করা যে, তারা ইইউ, জি ৭ এবং ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলনের আগে একটি সামরিক বিজয় অর্জন করতে পারে যা, বৃহস্পতিবার থেকে ধারাবাহিকভাবে শুরু হবে।

রাশিয়ার খাদ্য ও সার ক্রয়ে বাধা নেই -ইইউ : ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান জোসেপ বোরেল বলেছেন, রাশিয়ার খাদ্য ও সার অবাধে কেনা, স্থানান্তর এবং বীমা করা যেতে পারে। সোমবার বোরেল বলেন, কেউ রাশিয়ার খাদ্য এবং সার কিনতে চাইলে তারা অবাধে এবং নিষেধাজ্ঞার ভয় ছাড়াই তা করতে পারে। নিষেধাজ্ঞা ওই পণ্যগুলোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। জোসেপ বোরেল ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকের আগে সাংবাদিকদেরকে এ কথা বলেন। সামরিক সংঘাতের মধ্যে ইউক্রেনের কৃষ্ণসাগরীয় বন্দরগুলোতে আটকে থাকা শস্য মুক্ত করার উপায় আলোচনা করা ছিল ওই বৈঠকের অন্যতম উদ্দেশ্য। ডাব্লিউটিওর অনুমান, বর্তমানে ইউক্রেনের বন্দরে ২ কোটি ২০ লাখ থেকে আড়াই কোটি টন শস্য মজুত রয়েছে। পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়াকে এসব রফতানি আটকে দেওয়ার জন্য অভিযুক্ত করেছে। তবে মস্কো বলেছে, তারা কৃষ্ণসাগরের মধ্য দিয়ে ইউক্রেনীয় শস্যবোঝাই জাহাজের জন্য নিরাপদ পথের ব্যবস্থা করতে আগ্রহী। দেশটির অভিযোগ, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী এতে বাধা দিচ্ছে। তারা বন্দরগুলোতে মাইন পেতে রেখেছে। জোসেপ বোরেল বলেন, ‘বিশ্বে, বিশেষ করে আফ্রিকায় একটি বড় দুর্ভিক্ষের ঝুঁকি সম্পর্কে আমি আবারও সতর্ক করছি। এ যুদ্ধ মূল্যবৃদ্ধি এবং জ্বালানি ও খাদ্যের ঘাটতি তৈরি করছে। আমরা ইউক্রেন থেকে রপ্তানি চালু করার জন্য জাতিসংঘের প্রচেষ্টাকে সমর্থন করছি’।

ডলারের বিপরীতে রুবলের মান সাত বছরের সর্বোচ্চে : মস্কো এক্সচেঞ্জে সোমবার দুপুরের দিকে ডলারের বিপরীতে রুবলের মান ১.২ শতাংশ বেড়ে ৫৫ দশমিক ৭৫ এ দাঁড়ায়। এদিন ডলারের বিপরীতে রুবলের মান সাত বছরের সর্বোচ্চে উঠে যায়। জ্বালানি তেলসহ কমোডিটি রফতানি বৃদ্ধি ও আমদানির লাগাম টেনে ধরায় রুবলের মান শক্তিশালী হয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া ইউরোর বিপরীতে রুবলের মান শূন্য দশমিক ৬ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৮ দশমিক ৪৯। পণ্য রফতানি বৃদ্ধি ও আমদানি হ্রাসের ফলে চলতি বছরে সবচেয়ে শক্তিশালী মুদ্রা হিসেবে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া রুশ নাগরিকদের বৈদেশিক মুদ্রায় সঞ্চয় ব্যয় থেকে নিষেধাজ্ঞা এতে প্রভাব রেখেছে। বিভিন্ন কোম্পানি তাদের কর পরিশোধ করবে বলে চলতি সপ্তাহে রুবলের অবস্থান আরও শক্তিশালী হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এ মাসের শেষের দিকে ডলারের বিপরীতে রুবলের মান ৫০ এ নেমে আসবে বলে মনে করে এসবারসিআইবি ইনভেস্টমেন্ট রিসার্চ নামে একটি বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান। সূত্র : ডেইলি মেইল, এপি, রয়টার্স, ওয়াশিংটন পোস্ট, তাস।



 

Show all comments
  • আলিফ ২২ জুন, ২০২২, ১:২৬ এএম says : 0
    ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধে রাশিয়া জয়ী হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২২ জুন, ২০২২, ১:২৮ এএম says : 0
    পশ্চিম থেকে প্রচুর অস্ত্রের আগমন সত্ত্বেও, ইউক্রেনীয় বাহিনী পূর্ব ডনবাস অঞ্চলের যুদ্ধে রাশিয়ানদের দ্বারা পরাজিত হয়েছে, যেখানে যুদ্ধটি মূলত আর্টিলারি বিনিময়ের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২২ জুন, ২০২২, ১:২৯ এএম says : 0
    এ যুদ্ধের মাধ্যমেই বুঝা গেলো বিশ্বে আমেরিকার এক নায়কতন্ত্র প্রভাব শেষ
    Total Reply(0) Reply
  • আকিব ২২ জুন, ২০২২, ১:৩২ এএম says : 0
    বিশ্ব নেতাদের উচিত এ যুদ্ধে ইন্ধন না যুগিয়ে সমাধান করা। তাহলেই বিশ্বে শান্তি ফিরে আসবে
    Total Reply(0) Reply
  • আকিব ২২ জুন, ২০২২, ১:৩৫ এএম says : 0
    এ যুদ্ধ বন্ধ না হলে শুধু দুই দেশের সমস্যা হবে না। এ সমস্যা সারা বিশ্বে প্রভাব পড়বে। যার ফলে বিশ্বে অর্থনীতির অবস্থা আরো শোচনীয় হতে পারে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ