Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

রাশিয়ার তেল নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে ইইউ নিজেদের ধ্বংস করছে

পশ্চিমা পদক্ষেপ এখন বুমেরাং ভিন্ন মতাবলম্বী খোডোরকভস্কির সতর্কতা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

রাশিয়ান তেল টাইকুন থেকে ভিন্নমতাবলম্বী হয়ে ওঠা মিখাইল খোডোরকভস্কি বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন মস্কোর ওপর তেল নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে একটি মারাত্মক ভুল করেছে যা এখন ক্রেমলিনের যুদ্ধ তহবিল নিষ্কাশনের পরিবর্তে ২৭-জাতির ব্লককে অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল করছে।

রাশিয়ার সাবেক শীর্ষ ধনকুবের বলেন, নিষেধাজ্ঞার সাথে এগিয়ে যাওয়ার আগে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিকল্প সরবরাহগুলো সুরক্ষিত করা উচিত ছিল বা এটি সম্পূর্ণরূপে নিষেধাজ্ঞার পরিবর্তে রাশিয়ান জ্বালানির ওপর শুল্ক আরোপের মতো সম্পূর্ণরূপে অন্য পদ্ধতি বিবেচনা করা উচিত ছিল। খোডোরকভস্কি যুক্তি দেন যে, নিজ অর্থায়নে গর্ত খুঁড়ে ইউরোপ এখন ইউক্রেনের জন্য আরো অস্ত্র কেনার গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য অর্থ জোগাতে কম সক্ষম।
এক মাস আলোচনার পর মে মাসের শেষের দিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশগুলো এ বছরের শেষ নাগাদ রাশিয়া থেকে সমুদ্রে তেলের চালান নিষিদ্ধ করতে সম্মত হয়েছে যা আমদানির ৯০ শতাংশেরও বেশি।
ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর ইউরোপীয় ইউনিয়নে তার প্রথম সফরের সময় তিনি পলিটিকোকে বলেন, ‘এ মুহূর্তে জ্বালানি নিষেধাজ্ঞা ইউরোপকে আঘাত করছে, রাশিয়াকে নয়’।

তেল জায়ান্ট ইউকোসের প্রাক্তন প্রধান খোডোরকভস্কি ক্রেমলিনের একজন স্পষ্টবাদী সমালোচক হওয়ার পরে ব্যাপকভাবে ট্রাম্প-আপ চার্জ হিসাবে দেখা যাওয়ার জন্য ১০ বছর কারাগারে কাটিয়েছেন। ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়ার পর খোডোরকভস্কি তার সংগঠন ওপেন রাশিয়ার মাধ্যমে রাশিয়ায় গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের প্রচার চালান।
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সমস্যা হল বর্তমান পশ্চিমা রাজনীতিবিদদের কোনো গ্যাংস্টারের সঙ্গে কথা হয়নি’। ‘আপনি তখনই তার সাথে আলোচনা শুরু করতে পারেন যখন তিনি অনুভব করেন যে, তিনি একটি দুর্বল অবস্থানে আছেন’।

খোডোরকভস্কি ব্রাসেলসে ইইউ কর্মকর্তাদের এবং ব্রাতিসøাভা ভিত্তিক থিঙ্ক ট্যাঙ্ক গ্লোবসেক আয়োজিত অন্যদের সাথে দুই দিনের বৈঠকের জন্য যুক্তি দেন যে, ইউনিয়নটি ইউক্রেনের জন্য অস্ত্রের জন্য তার অর্থ ব্যয় করলে ভাল হত।
সব ধরনের জ্বালানি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে পশ্চিমারা কতটা রাজস্ব হারিয়েছে? ১০০ বিলিয়ন ডলার?
ইউক্রেনের যুদ্ধের মধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এ বছরের জন্য তার প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাসকে এপ্রিলে প্রায় ১ শতাংশ কমিয়েছে - যা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাম্প্রতিক জিডিপি অনুমানের ওপর ভিত্তি করে প্রায় ১৬০ বিলিয়ন ইউরোর সমতুল্য। এদিকে, ব্লকটি ইউক্রেনকে অস্ত্র দিতে দুই বিলিয়ন ইউরো বরাদ্দ করেছে।
খোডোরকভস্কির চিন্তাধারার সাথে মিল রেখে অনেক বিশেষজ্ঞ যুক্তি দিয়েছেন যে, শুল্ক আরোপ করা স্মার্ট হবে, কারণ বর্তমানে যে পরিকাঠামো রয়েছে সেখানে তেলকে অন্য দেশে পুনঃনির্দেশিত করা মস্কোর পক্ষে কঠিন হবে। এর মানে হল, রাশিয়ান জ্বালানি কোম্পানিগুলো সম্ভবত ইউরোপে উচ্চ রফতানি খরচ শোষিত করবে, তাদের মার্জিন হ্রাস করবে এবং শেষ পর্যন্ত মস্কোর সামরিক বাজেট সঙ্কুচিত করবে।

অবশেষে, প্রাক্তন বিলিয়নেয়ার বলেন যে, ইউরোপের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার আগে তেল ও গ্যাসের বিকল্প সরবরাহের জন্য আরো সমন্বিত প্রচেষ্টা করা উচিত ছিল। এর পরিবর্তে, ইইউ দেশগুলোকে দ্রুত ব্যক্তিগত চুক্তি নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে রাশিয়ান জ্বালানি সরবরাহ প্রতিস্থাপন করতে হয়েছিল।
খোডোরকভস্কি বলেছেন, ‘আমি অবাক হয়েছি যে, কোন বিকল্প সরবরাহের বিষয়ে কোন চুক্তি ছিল না এবং তারপরে [এখন] আপনি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছেন?

পশ্চিমা পদক্ষেপ এখন বুমেরাং
এদিকে চীন এবং ভারত ইউক্রেন অভিযান বন্ধের প্রয়াসে পশ্চিমাদের এড়িয়ে রাশিয়ান তেল কেনায় মস্কো এখন যুদ্ধের আগের তুলনায় অনেক বেশি আয় করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন যখন এ বছর রাশিয়ান জীবাশ্ম জ্বালানি ক্রয় কমাতে চায়, তখন তারা আশা করেছিল যে, এটি ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযানকে মস্কোর জন্য এতটাই অর্থনৈতিকভাবে বেদনাদায়ক করে তুলতে সাহায্য করবে যে, প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন অভিযান ত্যাগে বাধ্য হবেন। সে সম্ভাবনা এখন সবচেয়ে দূরবর্তী বলে মনে হচ্ছে।

বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশ চীন এবং ভারত রাশিয়ান তেলের প্রায় একই পরিমাণ কিনতে পারে যা পশ্চিমে যেত। তেলের দাম এত বেশি যে, রাশিয়া চার মাস আগে যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে বিক্রি থেকে এখন আরো বেশি অর্থ উপার্জন করছে এবং এর একসময়ের নিম্নমুখী ধাবমান মুদ্রার মূল্য ডলারের বিপরীতে বৃদ্ধি পেয়েছে।
রাশিয়ান কর্মকর্তারা হাসাহাসি করছেন যাকে তারা গরুর কাছে একটি চমকপ্রদ ব্যর্থতা বলছেন এবং তেল বয়কটের অর্থনৈতিক যন্ত্রণা মস্কোতে তেমন নয়, পশ্চিমে, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, যেখানে আকাশছোঁয়া তেলের দাম প্রেসিডেন্ট বাইডেনের জন্য তার মেয়াদের অর্ধ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে একটি শক্তিশালী হুমকি তৈরি করে।

কেউ কেউ উল্লেখ করেছেন যে, ইউরোপের তেল নিষেধাজ্ঞা এখনও কার্যকর হয়নি এবং বলে যে, যুদ্ধের জন্য রাশিয়ার অর্থনৈতিক বঞ্চনার দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব দেশের ভাগ্যের একটি শক্তিশালী নির্ধারক হিসাবে রয়ে গেছে। এসব প্রভাব জীবাশ্ম জ্বালানীর বাণিজ্যের বাইরেও প্রসারিত, রাশিয়ান ব্যাঙ্কিং এবং অন্যান্য শিল্পকে বাধাগ্রস্ত করে, তবে এটি মূলত তেল এবং গ্যাসের বিক্রয় যা সরকারকে চালিত রাখে।

রাশিয়ার জ্বালানি আয় সম্পর্কে মস্কোর পিএফ ক্যাপিটাল কনসালটিং কোম্পানির প্রধান অর্থনীতিবিদ ইয়েভজেনি নাদরশিন বলেন, ‘বিষয়গুলো সবচেয়ে খারাপ অবস্থার থেকে অনেক ভালো এবং সম্ভবত বেস কেসের থেকেও ভালো’। ‘দুর্ভাগ্যবশত, সবচেয়ে কঠিন সময়টি শুধুমাত্র শুরু’।
মি. পুতিন এখন অনির্দিষ্টকালের জন্য যুদ্ধের বিচার করার জন্য আর্থিকভাবে সাহসী বোধ করবেন কিনা একটি উন্মুক্ত প্রশ্ন। তবে এমন সব ইঙ্গিত রয়েছে যে, ইউক্রেন এবং তার সমর্থকরা দীর্ঘস্থায়ী সঙ্ঘাতের জন্য আরো কমবেশি করছে।

বাইডেন প্রশাসন মঙ্গলবার অ্যাটর্নি জেনারেল মেরিক গারল্যান্ডকে ইউক্রেনে একটি আকস্মিক সফরে প্রেরণ করে, যেখানে তিনি সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধে জড়িত রাশিয়ানদের ট্র্যাক করতে আমেরিকান প্রচেষ্টার নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য প্রাক্তন নাৎসিদের তদন্তের জন্য পরিচিত একজন প্রবীণ প্রসিকিউটর এলি রোজেনবাউমকে নিয়োগের ঘোষণা করেন। মিঃ পুতিন স্পষ্টভাবে ইউক্রেনে রাশিয়ান নৃশংসতার যেকোনো অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন, যা তিনি দীর্ঘদিন ধরে ধরে রেখেছেন এমনকি একটি বৈধ দেশও নয়।

কিন্তু স্বল্পমেয়াদে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার পশ্চিমা মিত্ররা অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার ওপর নির্ভর করছে, ফৌজদারি মামলা নয়, মস্কোকে পিছিয়ে যেতে রাজি করাতে, বা অন্ততপক্ষে যুদ্ধ টিকিয়ে রাখার ক্ষমতা হ্রাস করতে। আপাতত, অন্ততপক্ষে, সেই কৌশলটি বুমেরাং হয়েছে বলে মনে হচ্ছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সউদী আরবের পরে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম তেল উৎপাদনকারী দেশ রাশিয়া থেকে তেলের জন্য এশিয়ায় ক্রমবর্ধমান চাহিদার কারণে।
চীনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী মে মাসে চীনের রাশিয়ান তেলের আমদানি আগের মাসের তুলনায় ২৮ শতাংশ বেড়েছে, যা রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে এবং রাশিয়াকে চীনের বৃহত্তম সরবরাহকারী হিসাবে সউদী আরবকে ছাড়িয়ে যেতে সহায়তা করেছে। একটি বাজার গবেষণা সংস্থা কেপলারের বিশ্লেষিত শিপিং ড্যাটা অনুসারে, ভারত এখন প্রতিদিন ৭ লাখ ৬০ হাজার ব্যারেলের বেশি তেল আনছে, যেটি একসময় সামান্য রাশিয়ান তেল কিনেছিল।
কেপলারের বিশ্লেষক ভিক্টর কাটোনা বলেন, ‘এশিয়া রাশিয়ার অপরিশোধিত উৎপাদন রক্ষা করেছে’। ‘রাশিয়া আরো পতনের পরিবর্তে, প্রায় তার প্রাক মহামারি স্তরের কাছাকাছি’।

স্বাধীন গবেষণা এবং বাণিজ্য বিশ্লেষণ সংস্থা রিস্টাড ইনার্জির মতে, ইউরোপে রাশিয়ান অপরিশোধিত তেলের বিক্রি মার্চ থেকে মে পর্যন্ত দিনে ৫ লাখ ৫৪ হাজার ব্যারেল কমেছে, কিন্তু এশিয়ান শোধনাগারগুলো তাদের ব্যবহার দিনে ৫ হাজার ৩ হাজার ব্যারেল বাড়িয়েছে।
ইউক্রেনের অভিযানের কারণে ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার সাথে যুক্ত ঝুঁকির কারণে রাশিয়া খাড়া ছাড়ে তেল বিক্রি করলেও ক্রমবর্ধমান জ্বালানির দামে ক্ষতিপূরণ করছে। ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সির মতে, রাশিয়া গত মাসে এপ্রিলের তুলনায় ১.৭ বিলিয়ন ডলার বেশি নিয়েছে।

এশিয়া ইউরোপের জন্য নির্ধারিত সব রাশিয়ান তেল কিনবে কিনা তা স্পষ্ট নয়, কারণ ইইউ ক্রেমলিনের জ্বালানি রপ্তানির ওপর নির্ভরতা থেকে নিজেকে মুক্ত করতে কাজ করে। কিন্তু আপাতত, পরিবর্তনটি মস্কোকে তেল উৎপাদনের মাত্রা বজায় রাখতে সক্ষম করেছে এবং এর আউটপুট হ্রাস পাবে এমন প্রত্যাশাকে ক্ষুণ্ন করেছে।
চীনের কেনাকাটা বিশেষ করে মিঃ পুতিন তার চীনা প্রতিপক্ষ শি জিনপিংয়ের কাছ থেকে যে সমর্থন পেয়েছেন তা বোঝায়, যিনি ইউক্রেনের যুদ্ধ নিয়ে উদ্বেগ নির্বিশেষে মস্কোর সাথে সহযোগিতা গভীর করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
বিশ্লেষকদের মতে, ছাড় দেওয়া রাশিয়ান অপরিশোধিত তেল এবং উচ্চ মূল্যের সমন্বয়ের অর্থ হল ভারতীয় শোধনাকারীরা দ্বিগুণ লাভ করছে। ফিনিশ-ভিত্তিক সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ারের মতে, ভারতের রফতানি করা কিছু তেল পণ্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, ফ্রান্স এবং ইতালিতে পাঠানো হয়েছে।

একবার রিফাইনাররা তেলকে ডিজেল বা পেট্রলে রূপান্তর করলে তারা ইউরোপ এবং অন্য কোথাও যে জ্বালানি পাঠায় তা রাশিয়ান অপরিশোধিত থেকে আসে কিনা তা কেউ আলাদা করতে পারে না। এর মানে হল যে, পশ্চিমা গাড়িচালকরা যারা মনে করেন যে, তারা অ-রাশিয়ান জ্বালানির জন্য অতিরিক্ত অর্থ প্রদান করছেন তাদের ভুল হতে পারে।
পশ্চিমে রফতানি করা পরিশোধিত তেল পণ্য সম্পর্কে জ্বালানি পরামর্শক সংস্থা এফজিই-এর প্রেসিডেন্ট জেফ ব্রাউন বলেন, ‘ওই অণু, তাদের বেশিরভাগই রাশিয়ান’।

রাশিয়ার তেল ও গ্যাসের উচ্চ বৈশ্বিক চাহিদা রাশিয়ান কর্মকর্তাদের ঘোষণা করতে প্ররোচিত করছে যে, রাশিয়ান রফতানি সীমিত করার জন্য পশ্চিমের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। রাশিয়ান জ্বালানি জায়ান্ট গ্যাজপ্রমের প্রধান আলেক্সি মিলার গত সপ্তাহে সেন্ট পিটার্সবার্গে একটি অর্থনৈতিক সম্মেলনে ব্যঙ্গ করে বলেন যে, ইউরোপের বিরুদ্ধে তার কোনো ক্ষোভ নেই, কারণ এমনকি মহাদেশের রাশিয়ান প্রাকৃতিক গ্যাসের আমদানি ‘কয়েক দশ শতাংশ কমে গেছে’ দাম কয়েকগুণ বেড়েছে’।

‘যদি আমি আপনাকে বলি আমাদের কোন অভিযোগ নেই, আমি সত্য বলব না’, তিনি বলেন।
শুধুমাত্র এ মাসেই রাশিয়ার অর্থ মন্ত্রণালয় অনুমান করেছে, উচ্চ মূল্যের কারণে তেল ও গ্যাসের রাজস্ব আনুমানিক তুলনায় ৬ বিলিয়ন ডলার বেশি পাবে বলে আশা করা হয়।

তবুও, নিষেধাজ্ঞা এ বছরের শেষের দিকে রাশিয়ান অর্থনীতিতে আরো যন্ত্রণা দিতে পারে এবং রাশিয়ার মুদ্রা রুবেলের রিবাউন্ড দেশটির আশ্চর্যজনক অর্থনৈতিক স্থিতিস্থাপকতার জন্য দায়ী, এটি পুঁজি প্রবাহের ওপর কঠোর সরকারি নিয়ন্ত্রণ এবং রাশিয়ায় আমদানি হ্রাসকেও প্রতিফলিত করে।

মি. পুতিনের সরকার বাজেটের তথ্যের পরিমাণও তীব্রভাবে হ্রাস করেছে, যা যুদ্ধে ঠিক কতটা ব্যয় করছে তা নির্ধারণ করা কঠিন করে তুলেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, এমন কোনো প্রমাণ নেই যে, মিঃ পুতিন তার সামরিক অভিযান বন্ধ করার জন্য অর্থনৈতিক বা অন্য কোনো তাৎক্ষণিক চাপে আছেন। সূত্র : পলিটিকো এবং নিউ ইয়র্ক টাইমস।



 

Show all comments
  • Mominul Hoque ২৩ জুন, ২০২২, ১১:৩৫ এএম says : 0
    ইউরোপিয়ানরা যুক্তরাষ্ট্রের ফাঁদে পা দিয়ে নিজের পায়েই কুঠার মারছে। সমগ্র বিশ্বের জ্বালানীর চাহিদা ১০০ভাগের ৪০ভাগ যদি রাশিয়ার মাধ্যমে আসে। সেটি যদি বর্তমানে ইউরোপ নাও নেয় সেই ৪০ভাগ তেল এশিয়া আফ্রিকাতেই যাবে। কারণ তারা অন্য সোর্স (মধ্যপ্রাচ্য) থেকে তখন আর জ্বালানী আমদানী করতে হবে না অথবা পারবে না। এতে করে বিশ্বের মোট জ্বালানীর চাহিদা অপরিপর্তীতই রয়ে গেলো। কিন্তু উপরন্তু আমদানী কারকরা অতিরিক্ত মাসুল দিয়ে জ্বালানী নিতে হচ্ছে। মনে রাখতে হবে আগুন নেভানোর জন্য পানি নিয়েই এগোতে হয়, আগুন নিয়ে নয়!
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ