Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠানো নিয়ে সঙ্কটে ইউরোপের দেশগুলো

ইতালির সরকারে ভাঙন, রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক রক্ষার তাগিদ জার্মানির এ বছরেই শয়তান ২ পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করবে রাশিয়া  প্রতি মাসে ৬০০ কোটি ডলার লোকসান দিচ্ছে কিয়েভ  লুহানস্

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহ করা নিয়ে ইউরোপের প্রধান দেশগুলোর সরকারের মধ্যেই বিভেদ বাড়ছে। সম্প্রতি কিয়েভ সফরে গিয়েছিলেন জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ ও ইতালির প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী মারিও ড্রাঘি। তারপর থেকেই নিজ সরকারের মধ্যেই বিরোধিতার মুখোমুখি হয়েছেন তারা।
ইতোমধ্যে দলের অবস্থানের প্রতিবাদে ইতালীর পররাষ্ট্রমন্ত্রী লুইগি ডি মায়ো বেশ কয়েকজন আইনপ্রণেতাকে নিয়ে তার দল ফাইভস্টার মুভমেন্ট থেকে বেরিয়ে গিয়েছেন। তিনি আন্দোলনের একজন কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্ব এবং এর সাবেক নেতা, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তার পদত্যাগের কথা ঘোষণা করেছিলেন। তিনি ফাইভস্টারের বিরুদ্ধে ইউক্রেনকে সমর্থন করার মাধ্যমে সরকারী প্রচেষ্টাকে দুর্বল করার এবং কিছু অতিরিক্ত ভোট লাভের প্রচেষ্টায় রোমের আন্তর্জাতিক অবস্থানকে দুর্বল করার অভিযোগ করেছেন।

প্রাথমিকভাবে, এবং অনিচ্ছায়, ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠানোর সরকারের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে, ফাইভস্টারের নেতা জিউসেপ কন্টে - যারা শাসক জোটের অংশ - সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে তার বিরোধিতা বাড়িয়ে বলেছেন যে, অস্ত্রগুলো যুদ্ধে ইন্ধন জোগাচ্ছে। তিনি এর পরিবর্তে রাশিয়ার সাথে সংলাপে আহ্বান জানিয়েছে। মঙ্গলবার রোমে এক প্রেস কনফারেন্সে ডি মায়ো বলেন, ‘আক্রমণকারী ইউক্রেন বা আগ্রাসী রাশিয়ার সাথে ইতিহাসের কোন দিকটি থাকবে তা বেছে নেয়া প্রয়োজন। ফাইভস্টারের কিছু নেতার অবস্থান আমাদের দেশকে দুর্বল করার হুমকি দিয়েছে।’

ডি মাইও তার সাথে যেতে রাজি হওয়া আইন প্রণেতাদের সুনির্দিষ্ট সংখ্যা দেননি তবে ইঙ্গিত দিয়েছেন যে তার সাথে একটি বিশাল বিচ্ছিন্ন গোষ্ঠী থাকবে। ‘আগামীকাল থেকে ফাইভস্টার আর সংসদের বৃহত্তম দল হবে না,’ তিনি বলেছিলেন। তিনি যোগ করেছেন যে, তিনি একটি নতুন দল শুরু করছেন না বরং ‘একটি যাত্রা’ শুরু করছেন। ডি মায়োর প্রস্থান প্রধানমন্ত্রী মারিও ড্রাঘির সরকারের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। ডি মায়ো বলেছেন যে, তিনি এবং বিচ্ছিন্ন সংসদ সদস্যরা সরকারকে সমর্থন অব্যাহত রাখবেন। তবে ফার-রাইট লিগের নেতা মাত্তেও সালভিনি মঙ্গলবারের শুরুতে সতর্ক করেছিলেন যে, তার দলের প্রতিনিধিত্ব করেন না এমন একজন পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকা ‘সমস্যাজনক’।

এদিকে, জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজের শীর্ষ পররাষ্ট্র নীতি সহকারী সোমবার রাতে বলেছেন যে, ইউক্রেনে জার্মান ট্যাঙ্ক পাঠানোর বদলে ইউরোপকে রাশিয়ার সাথে দীর্ঘমেয়াদী সম্পর্ক রক্ষায় আরও বেশি মনোযোগ দেয়া উচিত। একটি জনসমাবেশে বার্লিনের রাশিয়া নীতির একজন দীর্ঘস্থায়ী স্থপতি জেনস প্লোটনার যুক্তি দিয়েছিলেন যে, ইউক্রেনের জন্য জার্মানির সামরিক সমর্থন নিয়ে বিতর্ক, যা প্রায়শই খুব দ্বিধাগ্রস্ত এবং ধীরগতির জন্য সমালোচিত হয়, ‘একটি ভুল সিদ্ধান্ত দ্বারা চালিত হয়েছিল যা অনেক ক্ষেত্রে বড় প্রশ্নের জন্ম দেয়।’

বিশেষত, তিনি জার্মানির ইউক্রেনীয় সামরিক বাহিনীকে তথাকথিত মার্ডার পদাতিক ফাইটিং যান সরবরাহ করা উচিত কিনা তা নিয়ে দীর্ঘকাল ধরে চলমান বিতর্কের দিকে ইঙ্গিত করেছিলেন - যা শলৎজ এখনও পর্যন্ত করতে অস্বীকার করেছে। ‘আপনি ২০টি মার্ডার ট্যাঙ্ক দিয়ে সংবাদপত্রের অনেক পৃষ্ঠা পূরণ করতে পারেন, তবে ভবিষ্যতে রাশিয়ার সাথে আমাদের সম্পর্ক কী হবে সে বিষয়ে চিন্তা করা প্রয়োজন,’ জার্মান কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশনে বক্তৃতায় প্লোটনার বলেছেন। এই মন্তব্যগুলি ছাড়াও, প্লোটনার চীনের প্রতি একটি নরম দৃষ্টিভঙ্গির আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং যুক্তি দিয়েছিলেন যে, ইউক্রেনকে রাশিয়ার আক্রমণের অধীনে ইইউ সদস্য হওয়ার জন্য কোনও ‘ছাড়’ দেয়া উচিত নয়।

অন্যদিকে, প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুনর্র্নিবাচিত হওয়ার দুই মাসের মধ্যেই জাতীয় আইনসভার নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছেন ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। পার্লামেন্ট নির্বাচনে তার ক্ষমতাসীন জোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে অপেক্ষাকৃত ভালো ফলে পার্লামেন্টে নিজেদের অবস্থান শক্ত করেছে বামদলীয় জোট এবং কট্টর ডানপন্থি দল। বামপন্থি নেতা জ্যঁ-লুক মিলশ্যঁ কমিউনিস্ট ও পরিবেশবাদী গ্রিন্সসহ মূলধারার বামপন্থি দলগুলোর জোট নিউফ গঠন করে বড় ধরনের সাফল্য পেয়েছেন। জাতীয় পরিষদের ১৩১টি আসনে জয় পেয়ে নিউফ প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে।
এ বছরেই শয়তান ২ পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন : রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন বলেছেন যে, মস্কো তার সশস্ত্র বাহিনীকে আরও শক্তিশালী ও আধুনিক করবে, যার মধ্যে রয়েছে ২০২২ সালের শেষ নাগাদ তার নতুন পরীক্ষিত সারমাট আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) মোতায়েন। পশ্চিমাবিশ্বে এটি শয়তান ২ নামে পরিচিত। রাশিয়া চলতি বছরের এপ্রিল মাসে সফলভাবে ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা করেছিল, যা আবার পশ্চিমের সাথে পারমাণবিক সংঘর্ষের আশঙ্কা উত্থাপন করেছে। রাশিয়ার সেনাবাহিনীর বৃহত্তর বিল্ড আপের অংশ হিসাবে এই স্থাপনা আসবে, পুতিন বলেছেন, সৈন্যরা ইতিমধ্যে এস-৫০০ বিমান প্রতিরক্ষা এবং ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পেতে শুরু করেছে ‘যার বিশ্বে কোন সমকক্ষ নেই’।

যদিও পশ্চিমা কর্মকর্তারা পূর্বে বলেছিলেন যে, তারা আশা করেছিল যে বছরের শেষ নাগাদ সারমাট মোতায়েন করা হবে, এর প্রবর্তন নিরাপত্তার জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ হবে। ক্ষেপণাস্ত্রটি, যা রাশিয়ার দ্বারা বছরের পর বছর ধরে তৈরি করা হয়েছে, এর একটি বিশাল পেলোড এবং চরম পরিসীমা রয়েছে, এটি সম্ভবত বেশিরভাগ রাডার এবং ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে বাইপাস করতে সক্ষম করে তোলে। রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট এর আগে সরমাট ক্ষেপণাস্ত্রকে একটি ‘সত্যিকারের অনন্য অস্ত্র’ হিসাবে প্রশংসা করেছিলেন যা বাইরের ‘হুমকি’ থেকে তার দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। তিনি বলেছেন যে, এটি আক্রমনাত্মক বক্তব্যের উত্তাপে যারা রাশিয়াকে ‘হুমকি’ দেয়ার চেষ্টা করে তাদের ‘দুবার ভাবতে’ বাধ্য করবে।

প্রতিমাসে ৬০০ কোটি ডলার লোকসান দিচ্ছে কিয়েভ : চলমান যুদ্ধের কারণে ইউক্রেন সরকার প্রতি মাসে ৫০০ থেকে ৬০০ কোটি ডলার হারাচ্ছে। মঙ্গলবার বিশ্বব্যাংকে দেয়া বক্তব্যে এ তথ্য জানিয়েছেন ইউনাইটেড স্টেটস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টের অ্যাডমিনিস্ট্রেটর সামান্থা পাওয়ার। যদিও ওয়াশিংটন ইউক্রেনের জন্য তার বাজেট ব্যয়ের অর্থায়নের জন্য ৭৫০ কোটি ডলার প্রদান করবে, তবে এ তহবিল দীর্ঘমেয়াদী পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট হবে না, মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন। এপ্রিলের শেষের দিকে ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের গোলটেবিল বৈঠকে ভাষণ দেয়ার সময়, শ্যামিগাল বলেছিলেন যে, তার দেশের স্বল্পমেয়াদী দৃষ্টিকোণে প্রতি মাসে ৪০০ থেকে ৫০০ কোটি ডলারের আর্থিক সহায়তা প্রয়োজন। অর্থমন্ত্রী সের্গেই মারচেনকো মে মাসে বলেছিলেন যে, ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় বাজেটের নিজস্ব রাজস্ব থেকে অর্থায়ন করা হয়েছে মাত্র এক তৃতীয়াংশ, বাকি দুই-তৃতীয়াংশ আন্তর্জাতিক অনুদান এবং ঋণ।

লুহানস্কের আরও কিছু শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে রুশ সেনা : আঞ্চলিক গভর্নর এবং ইউক্রেনের জেনারেল স্টাফ মঙ্গলবার বলেছেন, লুহানস্ক অঞ্চলের লিসিচানস্ক এবং সিভিয়েরোডোনেৎস্কের বিরোধপূর্ণ শহরগুলোর কাছে রাশিয়ান বাহিনী বেশ কয়েকটি বসতি দখল করেছে। পূর্বের প্রতিবেদনগুলি নিশ্চিত করে লুহানস্কের গভর্নর সের্হি গাইদাই ইউক্রেনের জাতীয় সম্প্রচারকারীকে বলেছেন যে, রাশিয়ান বাহিনী সিভিয়েরোডোনেৎস্কের দক্ষিণে তোশকিভকা বসতি দখল করেছে। ‘দুর্ভাগ্যবশত, শত্রুরা প্রচুর পরিমাণে অস্ত্রশস্ত্র এবং সৈন্য মোতায়ের করেছিল এবং তোশকিভকা দখল করেছিল,’ গাইদাই বলেছিলেন। ইউক্রেনের জেনারেল স্টাফ তাদের দৈনিক প্রতিবেদনে বলেছে যে, রুশ বাহিনী লিসিচানস্কের দক্ষিণে অবস্থিত পিডলিসনে এবং মিরনা ডলিনার বসতিও দখল করেছে।
ইউক্রেন ইস্যুতে বৈশ্বিক সংঘাতের বিষয়ে সতর্ক করল চীন : চীনের একজন রাষ্ট্রদূত মঙ্গলবার সতর্ক করেছেন যে, ইউক্রেনের সংঘাত নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মধ্যে বিরোধিতা জাতিসংঘের কাজকে ব্যাহত করছে। জাতিসংঘে চীনের উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি ডাই বিং বলেছেন, ‘কিছু সময়ের জন্য, ইউক্রেনের সংঘাত উদ্ঘাটনের সাথে সাথে, বৈরিতা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে, বিভিন্ন ক্ষেত্রে জাতিসংঘের কাজকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করছে এবং নিরাপত্তা পরিষদের কর্তৃত্ব ও কার্যকারিতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে।’
এই জাতীয় রাজনৈতিক অবস্থা ইউক্রেন সঙ্কটের সঠিক নিষ্পত্তির জন্য অনুকূল নয় এবং এটি বিশ্বব্যাপী শাসন ব্যবস্থার ব্যর্থতার দিকে নিয়ে যেতে পারে, বিশ্বকে বৃহত্তর বিভাজন ও অশান্তিতে নিমজ্জিত করতে পারে, যা কোনও পক্ষের স্বার্থে নয়, তিনি একটি সুরক্ষা সংস্থাকে বলেছেন, ইউক্রেনের উপর কাউন্সিলের সভা ‘সহিংসতার প্ররোচনা যা নৃশংসতা অপরাধের দিকে পরিচালিত করে।’ তিনি বলেন, নিরাপত্তা পরিষদের, বিশেষ করে, তার দায়িত্ব কাঁধে পালন করা, পার্থক্য পরিচালনা করা এবং শান্তি আলোচনা, মধ্যস্থতা এবং ভালো অফিসের সুবিধার্থে সক্রিয় শক্তি হওয়া উচিত। আরও প্রাণঘাতী অস্ত্র পাঠানো কেবল শত্রুতাকে বাড়িয়ে তুলবে, সংঘাতকে বাড়িয়ে তুলবে, বৃহত্তর মানবিক সঙ্কটের সূত্রপাত করবে এবং আরও নিরপরাধ জীবন দাবি করবে, ডাই বলেছেন।

রোগীদের বের করে হাসপাতালে সেনা মোতায়েন : রাশিয়ার ন্যাশনাল ডিফেন্স ম্যানেজমেন্ট সেন্টারের প্রধান কর্নেল জেনারেল মিখাইল মিজিনসেভ মঙ্গলবার বলেছেন, ইউক্রেন হাসপাতাল ও চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে সেনা ও অস্ত্র মোতায়েন করছে। ইউক্রেনে মানবিক প্রতিক্রিয়ার জন্য রাশিয়ার আন্তঃসংস্থা সমন্বয় কেন্দ্রের প্রধান মিজিনসেভ জানান, আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা ইউনিটগুলো ওডেসার সিটি হাসপাতালের ২৯ নম্বরে অবস্থান করছে, কাছাকাছি কামানের টুকরো এবং একাধিক রকেট লঞ্চার মোতায়েন করা হয়েছে, যখন সমস্ত রোগীকে তাদের অবস্থা নির্বিশেষে সেখান থেকে বের করে দেয়া হয়েছিল।

মিজিনসেভ যোগ করেছেন যে, জাতীয়তাবাদীরা আভদেয়েভকা সিটি জেনারেল হাসপাতালে গুলিবর্ষণ এবং স্নাইপার অবস্থান তৈরি করেছে এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের না জানিয়ে সুবিধার দিকে যাওয়ার রাস্তার পাশে মাইন লাগিয়েছে। ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনী লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের প্রিভোলি বসতিতে একটি ঘাঁটি এবং অস্ত্রের ডিপোও স্থাপন করেছিল, স্থানীয়দের বেসমেন্টে আশ্রয় নিতে বাধ্য করেছিল। এছাড়াও, মিজিনসেভ জানান, ইউক্রেনীয় জঙ্গিরা ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের সøাভিয়ানস্ক শহরে একটি মানসিক সুবিধা এবং একটি স্যানিটারি এপিডেমিওলজিকাল স্টেশনে শিবির তৈরি করেছিল, সেখানে সাঁজোয়া যান, আর্টিলারি সিস্টেম এবং একাধিক রকেট লঞ্চার মোতায়েন করেছিল। ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী আশেপাশের বিল্ডিংগুলির বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়নি, তাদের মানব ঢাল হিসাবে ব্যবহার করছে। সূত্র : তাস, ডেইলি মেইল, সিনহুয়া, ইউএস নিউজ, পলিটিকো।



 

Show all comments
  • আকিব ২৩ জুন, ২০২২, ১:০৩ এএম says : 0
    ইউক্রেন ও রাশিয়ার যুদ্ধে রাশিয়া জয়ী হবে। কাজেই ইউক্রেনের উচিত হবে এখনই যুদ্ধ বন্ধ করা
    Total Reply(0) Reply
  • আকিব ২৩ জুন, ২০২২, ১:০২ এএম says : 0
    এখন ইউরোপও বুঝতেছে রাশিয়ার বিরুদ্ধে গিয়ে কিছু হবে না। তাদের বিরুদ্ধে লড়াই করা সহজ না। উল্টা আরো পশ্চাতে হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২৩ জুন, ২০২২, ১:০৭ এএম says : 0
    বিশ্বের ক্ষমতাধর রাষ্ট্রপ্রধানদের উচিত হবে এখনই দুই দেশের যুদ্ধ বন্ধ করা। নয়তো সারা বিশ্বের অর্থনীতিতে ব্ড় প্রভাব পড়বে
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২৩ জুন, ২০২২, ১:১৩ এএম says : 0
    ভবিষ্যতে সারা বিশ্ব শাসন করবে রাশিয়া।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আশরাফুল হক ২৩ জুন, ২০২২, ২:১৪ এএম says : 0
    সবাই চায় আমি নিরাপদ থাকি রাশিয়া ও এ ভাবনা, কিন্তু পশ্চিমারা ও আমেরিকা মনে করে ইরানের ওপর যেভাবে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে এ ভাবে রাশিয়া ও পঙ্গু হবে, কিন্তু পশ্চিমারা জানেনা যে রাশিয়া প্রেসিডেন্ট একজন ইন্টেলিজেন্ট নেতা , ইরানের নেতার মত বোকা না ! তাই এখন নিজেরাই ফাঁদে পড়ছে পশ্চিমারা !
    Total Reply(0) Reply
  • Mominul Hoque ২৩ জুন, ২০২২, ১০:৪৬ এএম says : 0
    শান্তির ফেরিওয়ালারা (ইউরোপিয়ানরা) আজ নিজেদের মস্তিষ্ককে শয়তানের প্রেতাত্মা হিসেবে ব্যবহার করছে। তারা ইউক্রেন সমস্যার সমাধানের দিকে না গিয়ে বরং এটিকে উষ্কে দিয়ে পুরো বিশ্বকে একটি সংকটের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। যে সংকটের গভীরে সবার আগে তারাই নিমজ্জিত হচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply
  • jack ali ২৩ জুন, ২০২২, ১:৩৫ পিএম says : 0
    যারা আপনারা রাশিয়া কে সাপোর্ট দিচ্ছেন তাদের জানা উচিত রাশিয়া কিভাবে মুসলমানদেরকে হত্যা করেছে রেপ করেছে| চেসনিয়াতে গণহত্যা চালিয়েছে সিরিয়াতে ইবলিশ বাশার আল-আসাদকে সরাসরি রাশিয়ার জন্য পাঠিয়ে সুন্নি মুসলিমদের কোটি কোটি বাড়ি ঘর মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে লক্ষ লক্ষ মুসলিমদেরকে হত্যা করেছে অতীতে যখন কমিউনিস্টরা ক্ষমতায় আসে 4 কোটির বেশি মুসলিমকে হত্যা করেছে মসজিদগুলোকে বানানো হয়েছে মদের বার অথবা ঘোড়া রাখার জায়গা কখনোই আপনারা কাফেরদেরকে সাপোর্ট করবেন না যারা কাফেরদের কে সাপোর্ট করবে আল্লাহ তাদের সাথেই কেয়ামতের দিন তাদের সাথে উঠাবে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেনে রাশিয়ার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ