Inqilab Logo

শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

যে কোন সময় সমগ্র লুহানস্কের নিয়ন্ত্রণ নেবে রাশিয়া

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জুন, ২০২২, ৪:৩৮ পিএম | আপডেট : ৮:৩০ পিএম, ২৩ জুন, ২০২২

ডনবাসে রুশ সেনার কাছে যে ইউক্রেনীয় বাহিনী পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছে তা এখন স্বীকার করতে বাধ্য হচ্ছে পশ্চিমারাও। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিপুল অস্ত্র ও অর্থ সমর্থন সত্ত্বেও রাশিয়াকে মোকাবেলায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে কিয়েভ সরকার।

বুধবার রুশ সেনা লুহানস্কের শেষ দুটি বড় শহর সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লাইসিচানস্কের বেশিরভাগ অংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সেখানকার প্রতিরক্ষায় থাকা কিয়েভের বাহিনীকে ঘিরে ফেলেছে। শহরদুটি সম্পূর্ণ মুক্ত হতে এত সময় লাগার কারণ হচ্ছে সেখানে থাকা বেসামরিক নাগরিকদের মানব ঢাল হিসাবে ব্যবহার করছে ইউক্রেনের সেনারা। তাদের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ধীরে ধীরে অগ্রসর হচ্ছে রুশ সেনা।

যুদ্ধবিধ্বস্ত শহরটি ছেড়ে পালাচ্ছে ইউক্রেনীয় সেনারা। যারা এখনো থেকে গিয়েছে, তাদের সরবরাহ লাইন বিচ্ছিন্ন করে ঘিরে রেখেছে রুশ সেনা। কয়েক সপ্তাহ ধরে, রাশিয়ানরা ট্যাঙ্ক এবং সৈন্য নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার আগে ইউক্রেনীয় বাহিনীর উপর কামান ও রকেট নিক্ষেপ এবং গুলি করেই সন্তুষ্ট ছিল। লুহানস্কের আঞ্চলিক গভর্নর সেরহি হাইদাই স্বীকার করেছেন যে, রাশিয়ানরা তিনটি কৌশলগত গ্রাম দখল করার সাথে সাথে এই কৌশলটি বুধবার একটি আপাত অগ্রগতিতে পরিণত হয়েছে।

গ্রামগুলো ছোট হলেও, কয়েকদিনের মধ্যে তাদের পতন ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় একটি উল্লেখযোগ্য লঙ্ঘনের পরিমাণ, যা রাশিয়ান বাহিনীকে লিসিচানস্কের দোরগোড়ায় নিয়ে আসে এবং শহরে সরবরাহের পথ কমে যাওয়াকে হুমকি দেয়। ‘এখানে আশ্চর্যজনক দিকটি হল যে ইউক্রেন রাশিয়ান বাহিনীকে শহরটির কাছাকাছি ইঞ্চি হিসাবে শক্তিশালী করার জন্য বেছে নিয়েছে,’ মাইকেল কফম্যান বলেছেন, ভার্জিনিয়ায় একটি গবেষণা গ্রুপ সিএনএ-তে রাশিয়ার অধ্যয়নের পরিচালক, ‘উভয় শহর, সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ক, নিকটবর্তী মেয়াদে পতন হতে পারে।’

এটি রাশিয়ার জন্য লুহানস্ক এবং প্রতিবেশী ডোনেৎস্ক প্রদেশ দখল করার পথ খুলে দিতে পারে, যা সম্মিলিতভাবে ডনবাস নামে পরিচিত। ওয়াশিংটনে অবস্থিত একটি গবেষণা গ্রুপ, ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অফ ওয়ার অনুসারে, রাশিয়ান অগ্রগতি এই অঞ্চলে ‘ইউক্রেনীয় প্রতিরক্ষার জন্য একটি স্পষ্ট ধাক্কা’ ছিল, যদিও এটি একটি বিস্তৃত পতনের চিহ্ন নয়। ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা বলছেন যে, মারিউপোলে সপ্তাহ ধরে থাকা রক্ষকদের মতো, যোদ্ধারা সিভিয়েরোডোনেৎস্কের একটি রাসায়নিক কারখানায় আশ্রয় নিয়েছে, সাথে অজানা সংখ্যক বেসামরিক নাগরিকও রয়েছে। ফলে, সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেয়ার জন্য রাশিয়ার কয়েক দিন বা সপ্তাহ লাগতে পারে। সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ