Inqilab Logo

রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

যে কোনো সময় লুহানস্কের নিয়ন্ত্রণ নেবে রাশিয়া

কাতেরিনোভকা গ্রাম মুক্ত করেছে চেচেন সেনারা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০২২, ১২:০৬ এএম

রাশিয়ার বিরুদ্ধে না যাওয়ায় ইসরাইলকে নিন্দা জেলেনস্কির
ইউক্রেনের সেনাদের উপর চাপ বৃদ্ধি করছে রাশিয়া: যুক্তরাজ্য
‘রাশিয়া ও চীনের কাছে নতুন স্নায়ুযুদ্ধে হারতে পারে যুক্তরাষ্ট্র’
নিষেধাজ্ঞা সত্তে¡ও ৭ বছরের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী রাশিয়ার রুবল
মার্কিন স্টাইলের গণতন্ত্র সারা বিশ্বে অকার্যকর : চীন
ডনবাসে রুশ সেনার কাছে যে ইউক্রেনীয় বাহিনী পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছে তা এখন স্বীকার করতে বাধ্য হচ্ছে পশ্চিমারাও। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিপুল অস্ত্র ও অর্থ সমর্থন সত্তে¡ও রাশিয়াকে মোকাবেলায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে কিয়েভ সরকার। এদিকে, চেচনিয়ার রাশিয়ান উত্তর ককেশাস অঞ্চলের প্রধান রমজান কাদিরভ বুধবার তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে লিখেছেন, লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের (এলপিআর) কাটেরিনোভকার বসতি মুক্ত করা হয়েছে, বুধবার রুশ সেনা লুহানস্কের শেষ দুটি বড় শহর সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লাইসিচানস্কের বেশিরভাগ অংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সেখানকার প্রতিরক্ষায় থাকা কিয়েভের বাহিনীকে ঘিরে ফেলেছে। শহরদুটি সম্পূর্ণ মুক্ত হতে এত সময় লাগার কারণ হচ্ছে সেখানে থাকা বেসামরিক নাগরিকদের মানব ঢাল হিসাবে ব্যবহার করছে ইউক্রেনের সেনারা। তাদের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ধীরে ধীরে অগ্রসর হচ্ছে রুশ সেনা। যুদ্ধবিধ্বস্ত শহরটি ছেড়ে পালাচ্ছে ইউক্রেনীয় সেনারা। যারা এখনো থেকে গিয়েছে, তাদের সরবরাহ লাইন বিচ্ছিন্ন করে ঘিরে রেখেছে রুশ সেনা। কয়েক সপ্তাহ ধরে, রাশিয়ানরা ট্যাঙ্ক এবং সৈন্য নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার আগে ইউক্রেনীয় বাহিনীর উপর কামান ও রকেট নিক্ষেপ এবং গুলি করেই সন্তুষ্ট ছিল। লুহানস্কের আঞ্চলিক গভর্নর সেরহি হাইদাই স্বীকার করেছেন যে, রাশিয়ানরা তিনটি কৌশলগত গ্রাম দখল করার সাথে সাথে এই কৌশলটি বুধবার একটি আপাত অগ্রগতিতে পরিণত হয়েছে।

গ্রামগুলো ছোট হলেও, কয়েকদিনের মধ্যে তাদের পতন ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় একটি উল্লেখযোগ্য লঙ্ঘনের পরিমাণ, যা রাশিয়ান বাহিনীকে লিসিচানস্কের দোরগোড়ায় নিয়ে আসে এবং শহরে সরবরাহের পথ কমে যাওয়াকে হুমকি দেয়। ‘এখানে আশ্চর্যজনক দিকটি হল যে ইউক্রেন রাশিয়ান বাহিনীকে শহরটির কাছাকাছি ইঞ্চি হিসাবে শক্তিশালী করার জন্য বেছে নিয়েছে,’ মাইকেল কফম্যান বলেছেন, ভার্জিনিয়ায় একটি গবেষণা গ্রæপ সিএনএ-তে রাশিয়ার অধ্যয়নের পরিচালক, ‘উভয় শহর, সিভিয়ারোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ক, নিকটবর্তী মেয়াদে পতন হতে পারে।’

এটি রাশিয়ার জন্য লুহানস্ক এবং প্রতিবেশী ডোনেৎস্ক প্রদেশ দখল করার পথ খুলে দিতে পারে, যা সম্মিলিতভাবে ডনবাস নামে পরিচিত। ওয়াশিংটনে অবস্থিত একটি গবেষণা গ্রæপ, ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অফ ওয়ার অনুসারে, রাশিয়ান অগ্রগতি এই অঞ্চলে ‘ইউক্রেনীয় প্রতিরক্ষার জন্য একটি স্পষ্ট ধাক্কা’ ছিল, যদিও এটি একটি বিস্তৃত পতনের চিহ্ন নয়। ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা বলছেন যে, মারিউপোলে সপ্তাহ ধরে থাকা রক্ষকদের মতো, যোদ্ধারা সিভিয়েরোডোনেৎস্কের একটি রাসায়নিক কারখানায় আশ্রয় নিয়েছে, সাথে অজানা সংখ্যক বেসামরিক নাগরিকও রয়েছে। ফলে, সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেয়ার জন্য রাশিয়ার কয়েক দিন বা সপ্তাহ লাগতে পারে।

এদিকে, রমজান কাদিরভ বলেছেন, ‘আখমত বিশেষ বাহিনী ইউনিটের সৈন্যরা, রাশিয়ার হিরো জামিদ চালায়েভের নেতৃত্বে, মিত্র সৈন্যদের সাথে লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের আরেকটি বসতি মুক্ত করেছে - কাতারিনোভকা গ্রাম। সফল আক্রমণে বেশিরভাগ ইউক্রেনীয় জাতীয়তাবাদীদের নির্মূল করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কয়েকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে, কিন্তু আমাদের যোদ্ধারা তাদের দ্রæত খুঁজে বের করার প্রতিশ্রæতি দিয়েছে।’

রাশিয়ার বিরুদ্ধে না যাওয়ায় ইসরাইলকে নিন্দা জেলেনস্কির : রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞা দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় ইসরাইলের তীব্র সমালোচনা করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। জেরুজালেমের হিব্রæ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষণ দেয়ার সময় তিনি বলেন, ‘আপনি কিভাবে এ ধরনের আগ্রাসনের শিকারদের সাহায্য না করে থাকতে পারেন।’ জেলেনস্কি নিজেও একজন ইহুদি এবং ইসরাইলে তার পরিবার আছে। ‘সবাই আমাকে যখন জিজ্ঞাসা করে, ইসরাইল কীভাবে সাহায্য করেছে এবং ইসরাইল আর কী করতে পারে, তখন আমি কোন উত্তর দিতে পারিনা,’ তিনি যোগ করেছেন। তেল আবিব ইউক্রেনে মানবিক ও চিকিৎসা সহায়তা পাঠিয়েছে, কিন্তু অস্ত্র সরবরাহ এবং নিষেধাজ্ঞা টেবিলের বাইরে রয়ে গেছে।

ইউক্রেনের সেনাদের উপর চাপ বৃদ্ধি করছে রাশিয়া : যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, রুশ বাহিনী লিসিচানস্ক-সিভেরোডোনেৎস্ক এলাকায় ইউক্রেনের সেনাদের ‘ক্রমবর্ধমান চাপের’ মধ্যে রাখছে। রাশিয়ান বাহিনী লিসিচানস্কের দক্ষিণ অংশের দিকে ৫ কিমি (৩ মাইল) এরও বেশি অগ্রসর হয়েছে, মন্ত্রণালয় তার সর্বশেষ গোয়েন্দা ব্রিফিংয়ে বলেছে, কিছু ইউক্রেনীয় ইউনিট পালিয়ে গিয়েছে, তারা সম্ভবত ঘেরাও হওয়া এড়াতে চেয়েছে। তারা জানিয়েছে, ‘বিল্ট-আপ এলাকার চারপাশের এলাকাগুলো দখল করার সাথে সাথে বাহিনী লাইসিচানস্ক-সিভেরোডোনেৎস্ক পকেটকে ক্রমবর্ধমান চাপের মধ্যে ফেলেছে।’ যাইহোক, পশ্চিম ডোনেটস্ক ওবøাস্টের সম্পূর্ণ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিতে তাদের প্রচেষ্টা এখনও স্থবির রয়েছে,’ তারা যোগ করেছে।

‘রাশিয়া ও চীনের কাছে নতুন স্নায়ুযুদ্ধে হারতে পারে যুক্তরাষ্ট্র’ : রাশিয়া এবং চীনের বিরুদ্ধে একটি নতুন শীতল যুদ্ধে প্রবেশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তারা এটি হেরে যেতে পারে। ২০০১ সালে অর্থনীতিতে নোবেল বিজয়ী জোসেফ স্টিগলিটজ বুধবার প্রকাশিত শিয়ারপোস্ট পোর্টালে এ মন্তব্যে করেছেন।

‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চীন এবং রাশিয়া উভয়ের সাথেই একটি নতুন ঠান্ডা যুদ্ধে প্রবেশ করেছে বলে মনে হচ্ছে। এবং মার্কিন নেতাদের গণতন্ত্র ও কর্তৃত্ববাদের মধ্যে সংঘর্ষের চিত্র পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়, বিশেষ করে এমন সময়ে যখন একই নেতারা সক্রিয়ভাবে একটি নিয়মতান্ত্রিক আচরণ করছেন। তারা সউদী আরবের মতো মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী দেশের দ্বারস্থ হচ্ছেন। এই ধরনের ভ্লামির ইঙ্গিত করে যে, তারা অন্তত মূল্যবোধ নয়, আংশিকভাবে বিশ্বব্যাপী আধিপত্য নিয়ে চিন্তিত,’ বিশ্বব্যাংকের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ বলেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাউন্সিল অফ ইকোনমিক অ্যাডভাইজারের সাবেক প্রধান বলেন, সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর প্রায় দুই দশক ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ‘স্পষ্টভাবে এক নম্বর ছিল।’ কিন্তু তারপরে মধ্যপ্রাচ্যে বিপর্যয়করভাবে বিপথগামী যুদ্ধ, ২০০৮ সালের আর্থিক বিপর্যয়, ক্রমবর্ধমান বৈষম্য, কোভিড মহামারী এবং অন্যান্য সঙ্কট যা আমেরিকার অর্থনৈতিক মডেলের শ্রেষ্ঠত্বের উপর সন্দেহ প্রকাশ করে বলে মনে হয়েছিল। তাছাড়া, ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনের মধ্যে, অভ্যুত্থানের চেষ্টা ইউএস ক্যাপিটলে অসংখ্য গণ গুলি, রিপাবলিকান পার্টি ভোটার দমনের দিকে ঝুঁকছে, এবং কিউএনন-এর মতো ষড়যন্ত্রমূলক সম্প্রদায়ের উত্থান, আমেরিকান রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনের কিছু দিক গভীরভাবে প্যাথলজিকাল হয়ে গেছে বলে ইঙ্গিত করার জন্য যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে।

নিষেধাজ্ঞা সত্তে¡ও ৭ বছরের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী রুবল : বুধবার ডলারের বিপরীতে রাশিয়ার রুবলের বিনিময় হার ছিল ৫২ দশমিক ৩। ২০১৫ সালের মে মাসের পর এটি রুবলের সবচেয়ে শক্তিশালী অবস্থান। মস্কোতে বৃহস্পতিবার বিকালে, মুদ্রাটির দাম সামান্য কমলেও সেটি এখনও সাত বছরের উচ্চতার কাছাকাছি অবস্থানে আছে।

রাশিয়ার পুতিন প্রশাসন অসামান্য দক্ষতায় রুবলের পতন ঠেকিয়েছে। মার্চের শুরুতে ডলারের বিপরীতে রুবলের মান ১৩৯-এ নেমে গিয়েছিল, যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইউক্রেনে তার আক্রমণের প্রতিক্রিয়া হিসাবে মস্কোর উপর অভ‚তপূর্ব নিষেধাজ্ঞা জারি শুরু করেছিল। পরের মাসগুলিতে রুবেলের অত্যাশ্চর্য বৃদ্ধিকে ক্রেমলিন ‘প্রমাণ’ হিসাবে উল্লেখ করেছে যে, পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞাগুলি কাজ করছে না। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত সপ্তাহে বার্ষিক সেন্ট পিটার্সবার্গ ইন্টারন্যাশনাল ইকোনমিক ফোরামের সময় বলেছিলেন, ‘ধারণাটি পরিষ্কার ছিল: রাশিয়ার অর্থনীতিকে সহিংসভাবে চ‚র্ণ করুন। তারা সফল হয়নি। স্পষ্টতই, এটি ঘটেনি।’

রুবলের দাম বৃদ্ধির প্রধান কারণগুলো হল, সহজভাবে বলতে গেলে, অসাধারণভাবে জ্বালানির উচ্চ দাম, মূলধন নিয়ন্ত্রণ এবং স্ব-নিষেধাজ্ঞা। রাশিয়া বিশ্বের বৃহত্তম গ্যাস রপ্তানিকারক এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল রপ্তানিকারক। এর প্রাথমিক গ্রাহক? ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যা প্রতি সপ্তাহে বিলিয়ন ডলার মূল্যের রাশিয়ান শক্তি কিনছে যখন একই সাথে নিষেধাজ্ঞার সাথে শাস্তি দেয়ার চেষ্টা করছে। এটি ইইউকে একটি বিশ্রী জায়গায় ফেলেছে - তারা এখন তেল, গ্যাস এবং কয়লা কেনাকাটায় রাশিয়ার কাছে ইউক্রেনকে সাহায্যের চেয়ে বেশি অর্থ পাঠিয়েছে, যা ক্রেমলিনের যুদ্ধের খরচ পূরণ করতে সহায়তা করেছে। এবং ব্রেন্ট ক্রুডের দাম গত বছরের তুলনায় এ সময়েয় ৬০ শতাংশ বেশি, যদিও অনেক পশ্চিমা দেশ তাদের রাশিয়ান তেল কেনা বন্ধ করেছে, তারপরেও মস্কো এখনও রেকর্ড মুনাফা করছে।

মার্কিন স্টাইলের গণতন্ত্র সারা বিশ্বে অকার্যকর : মার্কিন স্টাইলের গণতন্ত্র সারা বিশ্বে অকার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। গতকাল চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েন বিন বেইজিংয়ে এক নিয়মিত সাংবাদিক সম্মেলনে এই কথা বলেছেন।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের এক গণজরিপ থেকে জানা গেছে, ৪৯ শতাংশ মানুষ মনে করে, ভবিষ্যতে যুক্তরাষ্ট্র আর একটি গণতান্ত্রিক দেশ থাকবে না। অর্ধেক মানুষ মনে করে, যুক্তরাষ্ট্রের নৈতিক মূল্যবোধ খুব খারাপ। আর ৬৫ শতাংশ মানুষ মনে করে, সরকারি পদের নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীদের প্রধান উদ্দেশ্য হল ব্যক্তিগত স্বার্থ অর্জন করা। বিশ্বের ৪৪ শতাংশ মানুষ মনে করে, যুক্তরাষ্ট্র হল বিশ্বের গণতন্ত্রের জন্য বৃহত্তম হুমকি।

চীনা মুখপাত্র ওয়াং ওয়েন বিন এই সম্বন্ধে বলেন, এর মূল কারণ হল মার্কিন রাজনীতিকরা গণতন্ত্রকে ব্যক্তিগত এবং রাজনৈতিক দলের স্বার্থ অর্জনের যন্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে। চীনা মুখপাত্র বলেন, মার্কিন রাজনীতিকদের আচরণের বিরোধিতা করে মার্কিন জনগণ এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশের জনগণও এর সমর্থন করে না। সূত্র : সিআরআই, সিএনবিসি, আল-জাজিরা, নিউইয়র্ক টাইমস, তাস।



 

Show all comments
  • Shaheb A Zaman ২৪ জুন, ২০২২, ৫:৪০ এএম says : 0
    যুদ্ধের স্থায়িত্ব যত বেশি, অস্ত্রের ব্যবসাও ততবেশি........পশ্চিমাদের শুধু মজা আর মজা
    Total Reply(0) Reply
  • Munia Afroz Jerin ২৪ জুন, ২০২২, ৫:৪০ এএম says : 0
    শুধু তো দুইটা দেশের মানুষ কষ্ট করছে না আমরা পৃথিবীর সব মানুষ কষ্ট পাচ্ছি এদের জন্য।
    Total Reply(0) Reply
  • Anjan Brahma ২৪ জুন, ২০২২, ৫:৪০ এএম says : 0
    যত বেশি দিন চলবে তত বেশি অস্ত্রের ব্যবসা করবে পশ্চিমি দেশগুলো , তারাতো চাইবেই যুদ্ধ বেশি দিন চলুক।
    Total Reply(0) Reply
  • MD Humayun Kabir ২৪ জুন, ২০২২, ৫:৪০ এএম says : 0
    এই দুনিয়াতে যতো অশান্তি তৈরি হয় মানুষের দারা তার সব কয়টাই আমরিকা করে থাকে।
    Total Reply(0) Reply
  • Sabbir Ahmed ২৪ জুন, ২০২২, ৫:৪১ এএম says : 0
    রাশিয়ার কাছে শস্য শক্তি, জ্বালানি শক্তি, পরমাণু শক্তি তার সাথে লেজ নাড়ানো বন্ধ করলেই হয় !
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ