Inqilab Logo

শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ মুহাররম ১৪৪৪

৪ বছর পর পরিবার জানালো মার্কিন নাগরিকের লাশ নেবে না

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ জুন, ২০২২, ১২:০১ এএম

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) মর্গে মরচুয়ারিতে চার বছর যাবত সংরক্ষিত ছিল মার্কিন নাগরিক রবার্ট মাইরোন বারকারের লাশ। অবশেষে সেই লাশ নিয়ে গেছেন দূতাবাসের কর্মকর্তারা। ২০১৮ সালের ২৫ মে হৃদরোগে রবার্ট মাইরোন বারকারের মৃত্যু হলেও বিদেশি নাগরিক হওয়ায় সেই থেকেই লাশ ঢামেক হাসপাতাল মর্গের মরচুয়ারিতে সংরক্ষিত ছিল। সেখানে রাখার আগে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। গতকাল শুক্রবার ঢামেক মর্গ থেকে দক্ষিণখান থানা পুলিশের উপস্থিতিতে দূতাবাসের লোকজন মার্কিন নাগরিক রবাটের লাশ নিয়ে যায়। দক্ষিণখান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল হক মিয়া এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, ২০১৮ সালে দক্ষিণখানে মার্কিন নাগরিক রবার্ট মাইরোন বারকার (৭৮) হার্ট অ্যাটাকে মারা যান। বিদেশি নাগরিক হওয়ায় আইন অনুযায়ী তার লাশ ময়নাতদন্ত করে ঢামেক হাসপাতাল মর্গের মরচুয়ারিতে রাখা ছিল। গত শুক্রবার সেখান থেকে বাংলাদেশি স্ত্রী মাজেদা খাতুনের উপস্থিতিতে দূতাবাসের লোকজন তার লাশ নিয়ে গেছে। পরে গাজীপুরে খ্রিস্টান ধর্ম অনুযায়ী তার লাশ সমাধিস্থ করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, বাংলাদেশি মাজেদা খাতুন তার স্ত্রী হলেও আমেরিকায় তার বড় স্ত্রী ও সন্তানরা রয়েছে। মৃত্যুর পরে দূতাবাসের লোকজন সেখানে তাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে আসছিল। দীর্ঘ চার বছর পরে আমেরিকার পরিবারের সঙ্গে তারা যোগাযোগ করতে পেরেছে। কিন্তু রবার্টের পরিবার লাশ নিতে অস্বীকৃতি জানালে দূতাবাসের লোকজন বাংলাদেশেই খ্রিস্টান ধর্ম রীতিতে তার লাশ সমাধিস্থ করেছে। প্রসঙ্গত, রাজধানীর দক্ষিণখান থানা এলাকার বাসিন্দা বেসরকারি হাসপাতালের সাবেক নার্স মাজেদা খাতুনের দাবি, ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বরে তিন ছেলে ও এক মেয়ের জনক মার্কিন নাগরিক রবার্ট মাইরোন বারকারের সঙ্গে খ্রিষ্টধর্ম অনুযায়ী বিয়ে হয় তার। এরপর থেকে মাজেদার সঙ্গেই সংসার করতেন রবার্ট। যিনি পেশায় একজন বিদেশি উন্নয়নকর্মী হলেও কোন এনজিওতে কাজ করতেন, তা জানাতে পারেননি মাজেদা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মার্কিন


আরও
আরও পড়ুন