Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

ইউক্রেনে অস্ত্রের প্রবাহ সমন্বয় করছে মার্কিন কমান্ডোরা

সেভেরোদোনেৎস্কের পতন রাশিয়ার জন্য আরো একটি বড় অর্জন ইউক্রেনের ১০টি রকেট প্লাটুন নিশ্চিহ্ন করেছে রাশিয়া আকাশ যুদ্ধে ইউক্রেনের মিগ-২৯ ফাইটার গুলিতে ভূপাতিত সেভেরোডোনেৎস্কের অ্যাজোট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

পূর্ব ইউক্রেনে রাশিয়ান সৈন্যদের অগ্রাভিযানের মুখে, আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য দেশটির ক্ষমতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের সাহায্যের উপর আগের চেয়ে অনেক বেশি নির্ভর করে - যার মধ্যে রয়েছে অস্ত্র, প্রশিক্ষণ, গোয়েন্দা তথ্য এবং সরবরাহ করতে ছুটে আসা কমান্ডো এবং গুপ্তচরদের একটি গোপন নেটওয়ার্ক।

এসব কাজ বেশিরভাগই ইউক্রেনের বাইরে ঘটে, উদাহরণস্বরূপ, জার্মানি, ফ্রান্স এবং ব্রিটেনের ঘাঁটিতে। কিন্তু যদিও বাইডেন প্রশাসন ঘোষণা করেছে যে, তারা ইউক্রেনে আমেরিকান সেনা মোতায়েন করবে না, কিছু সিআইএ এর বর্তমান এবং প্রাক্তন কর্মকর্তাদের মতে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনের বাহিনীর সাথে যে বিপুল পরিমাণ গোয়েন্দা তথ্য ভাগ করে নিচ্ছে, তার জন্য মার্কিন কর্মীরা বেশিরভাগই রাজধানী কিয়েভে গোপনে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
একই সময়ে, ব্রিটেন, ফ্রান্স, কানাডা এবং লিথুয়ানিয়া সহ অন্যান্য ন্যাটো দেশের কয়েক ডজন কমান্ডোও ইউক্রেনের অভ্যন্তরে কাজ করছে। ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার নিজস্ব ১৫০ জন সামরিক প্রশিক্ষককে প্রত্যাহার করে নিয়েছিল, কিন্তু এই মিত্রদের কমান্ডোরা তখন থেকে রয়ে গেছে বা দেশের বাইরে চলে গেছে, ইউক্রেনীয় সৈন্যদের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দিচ্ছে এবং স্থলপথে অস্ত্র ও অন্যান্য সাহায্য পৌঁছে দিতে একটি নেটওয়ার্ক পরিচালনা করছে বলে তিন মার্কিন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া ইউক্রেন আক্রমণ করার অল্প সময়ের মধ্যেই, মার্কিন সেনাবাহিনীর ১০তম স্পেশাল ফোর্সেস গ্রুপ, যেটি যুদ্ধের আগে দেশের পশ্চিমে একটি ঘাঁটিতে ইউক্রেনীয় কমান্ডোদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছিল, ইউক্রেনীয় কমান্ডো এবং অন্যান্য ইউক্রেনীয়দের সামরিক সহায়তার সমন্বয়ের জন্য নীরবে জার্মানিতে একটি জোট পরিকল্পনা সেল প্রতিষ্ঠা করে। সৈন্য সেলটি এখন ২০টি দেশে বেড়েছে।
সেনা সচিব ক্রিস্টিন ই ওয়ার্মুথ গত মাসে অপারেশনের একটি আভাস দিয়েছিলেন, বলেছিলেন যে, বিশেষ অপারেশন সেল ইউক্রেনে অস্ত্র ও সরঞ্জামের প্রবাহ পরিচালনা করতে সহায়তা করেছিল। ‘যেহেতু ইউক্রেনীয়রা সেগুলো ফ্রন্টে স্থানান্তর করার চেষ্টা করে এবং রাশিয়ানরা সম্ভাব্য কনভয়কে লক্ষ্যবস্তু করার চেষ্টা করছে তা এড়াতে, আপনি জানেন, আমরা সেই সমস্ত বিভিন্ন ধরণের চালানগুলিকে স্থানান্তরিত করার জন্য সমন্বয় করতে সাহায্য করার চেষ্টা করছি,’ তিনি আটলান্টিক কাউন্সিল আয়োজিত একটি জাতীয় নিরাপত্তা অনুষ্ঠানে বলেছিলেন।
সেল, যা আফগানিস্তানে ব্যবহৃত একটি কাঠামোর অনুকরণে তৈরি করা হয়েছিল, এটি ইউক্রেনীয় সৈন্যদের সহযোগী সহায়তার গতি বাড়াতে পেন্টাগনের ইউরোপীয় কমান্ডো পরিচালিত অপারেশনাল এবং গোয়েন্দা সমন্বয় কোষের একটি বিস্তৃত সেটের অংশ। জার্মানির রামস্টেইন বিমান ঘাঁটিতে, উদাহরণস্বরূপ, গ্রে উলফ নামে একটি মার্কিন বিমান বাহিনী এবং এয়ার ন্যাশনাল গার্ড দল ইউক্রেনীয় বিমানবাহিনীকে কৌশল এবং ট্রেইনিং সহ সমর্থন প্রদান করে, একজন সামরিক মুখপাত্র বলেছেন।
বাইডেন প্রশাসন এ পর্যন্ত চারটি মোবাইল মাল্টিপল-লঞ্চ রকেট সিস্টেম ইউক্রেনে পাঠিয়েছে এবং বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছে যে, আরও চারটি পথে রয়েছে। এগুলি হল সবচেয়ে উন্নত অস্ত্র যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখন পর্যন্ত ইউক্রেনকে সরবরাহ করেছে, রকেট সহ যার রেঞ্জ ৪০ মাইল পর্যন্ত, যা ইউক্রেনের এখন যা আছে তার থেকেও বেশি। পেন্টাগনের কর্মকর্তারা বলেছেন যে, ইউক্রেনীয় সৈন্যের একটি প্রথম দলকে কীভাবে সিস্টেমগুলি ব্যবহার করতে হয় সে সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে এবং দ্বিতীয় দল এখন জার্মানিতে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে।
তবুও, প্রাক্তন সামরিক কর্মকর্তারা যারা ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর সাথে কাজ করছেন তারা কিছু প্রশিক্ষণের প্রচেষ্টা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন। উদাহরণস্বরূপ, ইউক্রেনীয়রা সামনের সারিতে আহত সৈন্যদের সরিয়ে নিতে সংগ্রাম করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ফ্রন্ট-লাইন প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ বাড়াতে পারে এবং আহতদের স্থিতিশীল করতে এবং তাদের পরিবহনের জন্য কীভাবে মধ্যবর্তী মোবাইল হাসপাতালের নেটওয়ার্ক স্থাপন করতে হয় সে বিষয়ে ইউক্রেনীয়দের পরামর্শ দিতে পারে, সাবেক কর্মকর্তারা বলেছেন। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের পশ্চিমা মিত্রদের এসব প্রচেষ্টা কোন কাজেই লাগছে না। ইতোমধ্যে রাশিয়া ডনবাসের প্রায় ৮০ শতাংশ এলাকা মুক্ত করেছে। সেখানকার প্রধান প্রধান শহরগুলো তাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং সমগ্র ইউক্রেনই সমুদ্রের দিক থেকে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে।
সেভেরোদোনেৎস্কের পতন রাশিয়ার আরো একটি বড় অর্জন : রোববার রাশিয়ান বাহিনী সম্পূর্ণরূপে সেভেরোদোনেৎস্ক দখল করেছে। এটি একটি কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর এবং ইউক্রেনীয় প্রতিরোধের সর্বশেষ প্রতীক। গত মাসে মারিউপোল বন্দর দখল করার পর থেকে এটি হচ্ছে মস্কোর সবচেয়ে বড় বিজয়। ‘শহরটি এখন রাশিয়ার সম্পূর্ণ দখলে রয়েছে,’ শহরের মেয়র অলেক্সান্ডার স্ট্রিউক জাতীয় টেলিভিশনে বলেছেন, ‘যে কেউ পিছনে থেকে গেছে তারা আর ইউক্রেনীয়-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে পৌঁছাতে পারবে না, কারণ শহরটি কার্যকরভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।’ রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ বলেছেন, ইউক্রেনের অ্যাজোট রাসায়নিক প্ল্যান্টকে প্রতিরোধের আরেকটি কেন্দ্রে পরিণত করার চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।
রাশিয়া এখন সিভারস্কি ডোনেটস নদীর বিপরীত তীরে যেখানে সেভেরোদোনেৎস্কের যমজ শহর লাইসিচানস্কের দিকে লক্ষ্যস্থির করেছে। দুটি শহর এবং আশেপাশের এলাকাগুলি লুহানস্ক প্রদেশে ইউক্রেনীয় প্রতিরোধের শেষ প্রধান পকেট, যার ৯৫ শতাংশ রাশিয়ান এবং স্থানীয় বিচ্ছিন্নতাবাদী নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। রাশিয়ান এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী বাহিনী ডনবাসের দ্বিতীয় প্রদেশ ডোনেৎস্কের প্রায় অর্ধেক নিয়ন্ত্রণ করে। সেভেরোদোনেৎস্কের দখল মস্কোকে লুহানস্কের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের কাছাকাছি নিয়ে আসে। রাজধানী কিয়েভ থেকে আল জাজিরার চার্লস স্ট্রাটফোর্ড রিপোর্ট করছে যে, সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে প্রত্যাহারের ফলে ইউক্রেনীয় বাহিনী লুহানস্কের একটি অবশিষ্ট শহরের নিয়ন্ত্রণে চলে যাবে। ‘যদিও এখন বড় প্রশ্ন হল ইউক্রেনীয়রা লুহানস্ককে ধরে রাখতে পারবে কিনা’। ‘এটিকে মৌলিকভাবে বর্ণনা করা হচ্ছে, গত মাসের মারিউপোলের পর ইউক্রেনের বাহিনীর জন্য সম্ভাব্য সবচেয়ে বড় পরাজয়,’ তিনি বলেন।
এখন রুশ সেনা তাদের সম্পূর্ণ মনোযোগ লাইসিচানস্কের দিকে নিবদ্ধ করতে পারবে। যার পতন হলে সমগ্র লুহানস্ক তাদের করায়ত্ব হবে। সেভেরোডোনেৎস্কের পতন হওয়ায় এ শহরটি তারা এখন স্থল ও নদী - সব দিক থেকেই অবরোধ করতে পারবে। মস্কো বলেছে যে, লুহানস্ক এবং ডোনেৎস্ক, যেখানে তারা ২০১৪ সাল থেকে বিদ্রোহকে সমর্থন করেছে, তারা স্বাধীন দেশ এবং ইউক্রেনকে দুটি প্রদেশের সমগ্র এলাকা বিচ্ছিন্নতাবাদী প্রশাসনের হাতে তুলে দেয়ার দাবি জানিয়েছে।
ইউক্রেনের ১০টি রকেট প্লাটুন নিশ্চিহ্ন করেছে রাশিয়া : রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ গতকাল রোববার জানিয়েছেন, রাশিয়ার অ্যারোস্পেস বাহিনী ডোনেটস্ক এলাকায় একাধিক লঞ্চ রকেট সিস্টেমের দশটি ইউক্রেনীয় প্লাটুনকে নির্মূল করতে স্মার্ট অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়েছে।
‘তাদের কাউন্টার-ব্যাটারি ফায়ারে রাশিয়ান এরোস্পেস ফোর্স ডোনেটস্কের আভদেয়েভকা, ইউক্রেনস্ক, ইভানভকা, নোভোসিলোভকা পারভায়া এবং ভোজদভিজেঙ্কার বসতিগুলোর এলাকায় একাধিক লঞ্চ রকেট সিস্টেমের দশটি প্লাটুনকে নির্মূলে ডোনেটস্ক এলাকায় নির্ভুল হামলা চালায়’ -মুখপাত্র বলেছেন।
আকাশ যুদ্ধে ইউক্রেনের মিগ-২৯ ফাইটার গুলিতে ভূপাতিত : রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ এদিন আরো বলেছেন যে, ইউক্রেনের একটি মিগ-২৯ ফাইটার দেনেপ্রোপেট্রোভস্ক অঞ্চলে একটি আকাশযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। মুখপাত্র বলেছেন, ‘ইউক্রেনীয় বিমান বাহিনীর একটি মিগ-২৯ বিমান দেপ্রোপেট্রোভস্ক অঞ্চলের জেলেনোডলস্কের বসতির কাছে একটি বায়বীয় যুদ্ধে গুলি করে ভূপাতিত করা হয়েছে’।
সেভেরোদোনেৎস্ক আত্মসমর্পণ নিয়ে শীর্ষ কমান্ডারের সাথে জেলেনস্কির বিরোধ : এলপিআর (লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক) সহকারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভিটালি কিসেলিভ গতকাল তাসকে জানিয়েছেন, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির জেলেনস্কি এবং ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চীফ ভ্যালেরি জালুঝনির মধ্যে সেভেরোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্কের পরিস্থিতি নিয়ে একটি দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। কিসেলিভ বলেন, ‘তথ্য দেখা গেছে যে, জেলেনস্কি জালুঝনিকে জিজ্ঞাসা করেন, কেন সৈন্যরা যুদ্ধ করতে চায় না এবং কেন সৈন্যরা সেভেরোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ককে পুনরুদ্ধার করছে না এবং কেন সেনাবাহিনীতে এত চালক, বাবুর্চি এবং রেডিও পুরুষ ছিল’। কিছু ইউক্রেনীয় টেলিগ্রাম চ্যানেল ইতোমধ্যে প্রেসিডেন্ট অফিসের কর্মকর্তা এবং জালুঝনির মধ্যে দ্বন্দ্বের খবর দিয়েছে। জেলেনস্কি এ তথ্য প্রত্যাখ্যান করেছেন।
সেভেরোডোনেৎস্কের অ্যাজোট প্ল্যান্টে ৭০ ইউক্রেনীয় জঙ্গি বন্দি : রাশিয়ায় এলপিআর (লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক) রাষ্ট্রদূত রডিয়ন মিরোশনিক গতকাল ঘোষণা করেছেন যে, সেভেরোডোনেৎস্কের অ্যাজোট রাসায়নিক প্ল্যান্টে লুকিয়ে থাকা প্রায় ৭০ ইউক্রেনীয় জঙ্গিকে বন্দি করা হয়েছে।
‘প্রথমত, সেখানে প্রচুর বাহিনীকে নির্মূল করা হয়। সেখানে বেশ সক্রিয় আক্রমণ চালানো হয়েছিল এবং তাদের কিছু অংশ [ইউক্রেনীয় জঙ্গিরা] সেভারস্কি ডোনেটের দিকে প্রবেশ করার চেষ্টা করে এবং কিছু অংশ পালিয়ে যেয়ে থাকতে পারে। তাদের বেশিরভাগই ধরা পড়েনি, অন্তত ৫০-৭০ জন পুরুষ যাদের সম্পর্কে স্থানীয় বাসিন্দারা কথা বলছেন’ মিরোশনিক সলোভিয়েভ লাইভ টিভি চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচারে বলেছিলেন।
রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এর আগে জানিয়েছিল যে, লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিকের সীমানার মধ্যে সেভারস্কি ডোনেট নদীর বাম তীরের পুরো অঞ্চলটি এলপিআর মিলিশিয়া বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়েছে। সেভেরোডোনেৎস্কের আজট রাসায়নিক প্ল্যান্টের প্রাঙ্গণ মুছে ফেলার জন্য একটি অভিযানও শুরু করা হয় যেখানে নব্য-নাজি আইদার গঠনের জঙ্গিরা বেসামরিক লোকদের জিম্মি করেছিল এবং সেখান থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিয়েছিল।
বেলারুশকে ইস্কান্দার-এম ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা দিচ্ছে রাশিয়া : রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন শনিবার তার বেলারুশিয়ান সমকক্ষ আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোর সাথে আলোচনার শুরুতে বলেছেন, মস্কো আগামী মাসগুলোতে মিনস্কে ইস্কান্দার-এম ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করবে। ‘যেমন আপনি এবং আমি একমত হয়েছি, আপনি এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করছেন, আমরা একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী মাসগুলোতে, আমরা বেলারুশকে ইস্কান্দার-এম কৌশলগত ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করব যা জানা যায়, ব্যালিস্টিক এবং ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র উভয়ই ব্যবহার করতে পারে। এটি সাধারণ কিংবা পারমাণবিক বোমা, উভয়ভাবেই কাজ করতে পারে,’ পুতিন বলেছিলেন।
রাশিয়ান নেতা রাশিয়ান এবং বেলারুশিয়ান প্রতিরক্ষামন্ত্রী এবং স্টাফদের প্রধানদের এ সমস্যাসম্পর্কিত সব বিবরণ দিয়ে কাজ করার নির্দেশ দেয়ার প্রস্তাবও করেছিলেন। ‘আমি একেবারে একমত,’ লুকাশেঙ্কো বলেছিলেন। ‘এটি একটি চুক্তি,’ পুতিন উপসংহারে বলেছিলেন।
জি৭ সম্মেলনের আগে কিয়েভে হামলা রাশিয়ার : রোববার সকালে কিয়েভের একটি এলাকা বিস্ফোরণে কেঁপে উঠে যখন জি৭ নেতারা রাশিয়ার আক্রমণের বিরুদ্ধে ইউক্রেনের সমর্থন নিয়ে আলোচনা করতে জার্মানিতে জড়ো হয়েছিল, কয়েকদিন পরেই একটি গুরুত্বপূর্ণ ন্যাটো বৈঠক শুরু হতে চলেছে। প্রায় তিন সপ্তাহের মধ্যে রাজধানীতে প্রথম হামলার উদ্দেশ্য ছিল ‘ন্যাটো সম্মেলনের সময় ইউক্রেনীয়দের ভয় দেখানোর উদ্দেশ্যে,’ শহরের মেয়র ভিটালি ক্লিটসকো বলেছেন। ‘কিছু বাসিন্দাকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। দুইজন আহত ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে,’ ক্লিটসকো আঘাতপ্রাপ্ত অ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিং পরিদর্শন করার পর বলেন, মানুষ ‘ধ্বংসস্তুপের নিচে’ রয়ে গেছে।
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি, যিনি ইইউ এবং ন্যাটো উভয় সমাবেশে ভাষণ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে, তিনি বলেছেন যে, পোলিশ সীমান্তের কাছে লভিভের মতো দূরবর্তী শহরগুলো শনিবার আক্রান্ত হয়েছিল। ‘এটি নিশ্চিত করে... যে বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা -- আমাদের অংশীদারদের যে আধুনিক ব্যবস্থা আছে -- সেগুলো (তাদের বর্তমান) সাইটে বা স্টোরেজে থাকা উচিত নয়, ইউক্রেনে থাকা উচিত,’ তিনি তার দৈনিক ভাষণে বলেছিলেন।
রাশিয়ান স্বর্ণের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেবে জি৭ : ইউক্রেনের সংঘাতের জেরে মস্কোর উপর বৃহত্তর নিষেধাজ্ঞার মধ্যে উন্নত দেশগুলির গ্রুপ জি৭ রাশিয়ার সোনা আমদানিতে নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেবে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন রোববার বলেছেন। ‘একসাথে, জি৭ ঘোষণা করবে যে, আমরা রাশিয়ান সোনা আমদানি নিষিদ্ধ করব, এটি একটি বড় ক্ষেত্র যেখান থেকে রাশিয়া কয়েক বিলিয়ন ডলার আয় করে,’ বাইডেন টুইটারে লিখেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও দাবি করেছেন যে, ইউক্রেনের সংঘাতের জন্য ওয়াশিংটন রাশিয়ার উপর ‘অভূতপূর্ব মূল্য চাপিয়েছে’। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এর আগে রোববার এক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কিন প্রশাসনের কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে যে, জি৭ ২৮ জুন রাশিয়ান সোনা আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করবে। সূত্র : তাস, এএফপি, নিউইয়র্ক টাইমস, আল-জাজিরা।



 

Show all comments
  • হামজা ২৭ জুন, ২০২২, ৪:৪৪ এএম says : 0
    আমার মতে উন্নত দেশগুলো ইউক্রেনকে নিয়ে রাশিয়ার সাথে খেলছে। কারণ তারা চাইলে যুদ্ধ বন্ধ করতে পারতো। কিন্তু তারা তা না তা করে উল্টো যুদ্ধ বেশি করে লাগাচ্ছে। এতে সমগ্র বিশ্বের ক্ষতি হচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply
  • হামজা ২৭ জুন, ২০২২, ৪:৩৭ এএম says : 0
    যাই হোক এ যুদ্ধে রাশিয়াই জয়ী হবে
    Total Reply(0) Reply
  • হামজা ২৭ জুন, ২০২২, ৪:৪০ এএম says : 0
    উন্নত ও ক্ষমতাধর দেশগুলো নিষেধাজ্ঞা না দিয়ে যুদ্ধ থামানোর ব্যবস্থা করলে বিশ্বের জন্য ভালো হতো। কিন্তু তারা তা না করে নিষেধাজ্ঞা দিয়েই চলছে। এতে পুরো বিশ্বেরই ক্ষতি হচ্ছে। এমনকি ইউক্রেনের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২৭ জুন, ২০২২, ৪:৪৬ এএম says : 0
    ইউক্রেনের উচিত হবে এখনই যুদ্ধ বন্ধ করা।
    Total Reply(0) Reply
  • আলিফ ২৭ জুন, ২০২২, ৪:৪৬ এএম says : 0
    যুদ্ধ বন্ধ করলে দুই দেশ না এটা পুরো বিশ্বের ভালো হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেনে রাশিয়ার


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ