Inqilab Logo

শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ মুহাররম ১৪৪৪

ষড়যন্ত্র না থাকলে বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন বন্ধ করল কেন

পদ্মা সেতু নিয়ে কমিশন গঠনের বিষয়ে আদেশ আজ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০২২, ১২:০৩ এএম

পদ্মা সেতু নির্মাণবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করার নির্দেশনা চেয়ে করা রিটের বিষয়ে আদেশ আজ। গতকাল সোমবার ইতোপূর্বে জারিকৃত রুলের ওপর শুনানি হয়। আজও এ বিষয়ে শুনানি হওয়ার কথা রযেছে। গতকালের শুনানি শেষে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার এবং বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের ডিভিশন বেঞ্চ আদেশের এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

শুনানিকালে পদ্মা সেতুকে জাতীয় সম্পদ ও দেশের অহঙ্কার আখ্যা দিয়ে আদালত বলেন, যারা এমন জাতীয় সম্পদের বিরোধিতা করবে তারা জাতির শত্রু। তাদের চিহ্নিত করা জরুরি। আদালত প্রশ্ন রাখেন, ষড়যন্ত্র না থাকলে পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন বন্ধ করলো কেন?

শুনানিকালে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান। সরকারপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিনউদ্দিন মানিক শুনানিতে অংশ নেন। আদালত থেকে বেরিয়ে তিনি জানান, পদ্মা সেতু নিয়ে জারিকৃত রুলের বিষয়ে গত ২৬ জুন আদালতে উপস্থাপন করা হয়। আদালত পরে তা শুনানির জন্য ২৭ জুন তারিখ নির্ধারণ করেন। শুনানি হয়েছে। মঙ্গলবারও শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। ওইদিন এ বিষয়ে আদেশ দেবেন আদালত। প্রসঙ্গত: ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি দৈনিক ইনকিলাব ‘ইউনূসের বিচার দাবি: আওয়ামী লীগ ও সমমনা দলগুলো একাট্টা’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ১৫ ফেব্রুয়ারি ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে স্বপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করেন। রুলে পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টিকারী কে তা জানতে চেয়ে এবং প্রকৃত ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- এই মর্মে রুল জারি করেন। একই সঙ্গে ‘ইনকোয়ারি অ্যাক্ট ১৯৬৫ (৩ ধারা)’ অনুসারে কমিশন গঠন এবং দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- জানতে চাওয়া হয়। সংশ্লিষ্টদের কেন বিচারের মুখোমুখি করা হবে না- জানতে চাওয়া হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন ও যোগাযোগ সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, যোগাযোগ সচিব ও দুদক চেয়ারম্যানকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়। কমিটি বা কমিশন গঠনের বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে সে বিষয়ে ৩০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবকে নির্দেশ দেন।

উল্লেখ্য, গত ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন। এরপর রুল শুনানির বিষয়টি আদালতের দৃষ্টিতে আনা হয়।



 

Show all comments
  • Tareq Sabur ২৮ জুন, ২০২২, ১২:৫৭ এএম says : 0
    ষড়যন্ত্র তো ছিলই- লুটপাটের ষড়যন্ত্র। তাইতো বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়েছিল।
    Total Reply(0) Reply
  • Mominul Hoque ২৮ জুন, ২০২২, ১০:৩৩ এএম says : 0
    পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংক এর ঋন বন্ধের ষড়যন্ত্র উন্মোচন করতে হলে, সেই তখনকার মন্ত্রী আবুল হোসেনকে পদ্মা সেতু নির্মানের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য কত টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছিলো এবং তা কোন কোন খাতে কত টাকা ব্যয় হয়েছে তা নিরীক্ষণ শেষে যাচাই করার মাধ্যমেই ষড়যন্ত্রের উৎস বেরিয়ে আসবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পদ্মা সেতু


আরও
আরও পড়ুন